The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার, ০৮ জানুয়ারি ২০১৪, ২৫ পৌষ ১৪২০, ০৬ রবিউল আওয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ অবরোধ চলবে: মির্জা ফখরুল | নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ কাল | পানছড়িতে গুলিতে আওয়ামী লীগ নেতা নিহত

আমরা কি ঘুমিয়ে আছি

সাব্বির হোসেন

মানুষের বিশ্বাস নিয়ে ব্যবসা হয়ে আসছে সেই সৃষ্টির আদি থেকে, যদিও অনেকের মতে অবিশ্বাসের সূত্র ধরেই মানব জাতির সৃষ্টি, আবার অন্যভাবে বলতে গেলে শয়তানকে বিশ্বাসের অপরাধে মানব জাতি আজ পৃথিবীতে রাজত্ব করছে। এই কথায় বিশ্বাসীরা সন্দেহাতীতভাবে মেনে নিতে পারে যে, মানুষের বিশ্বাস নিয়ে ব্যবসা হয়ে আসছে মানবজাতি সৃষ্টির শুরু থেকে। আমি নিজেও এই গোত্রেরই একজন। আমার এ বিশ্লেষণ অনেকের কাছেই অগ্রহণযোগ্য মনে হতে পারে, তবে আমার বিশ্লেষণের তাত্পর্য যারা অনুধাবন করতে পারবেন তারা খুব সহজেই আমার সাথে একমত হতে পারবেন বলে আমার বিশ্বাস। কারণ সবকিছুর পেছনে থাকা শয়তানের মনবাঞ্ছনা কিন্তু শেষ পর্যন্ত পূরণ হয়েছেই। সেখানে অর্থের বিনিময় না থাকায় সাধারণ ব্যবসায়ের নিয়মে না পড়লেও তা অসাধারণের মাত্রাও অতিক্রম করেছে বলে মানতেই হবে।

যুগে যুগে বিশ্বাস নিয়ে ব্যবসা কি প্রকারান্তে বিস্তার লাভ করেছে তা নিয়েও হয়েছে নানান রকম গবেষণা। সেই গবেষণার হাত ধরে জানা গেছে, ধর্ম ব্যবসায়ের নামে ব্যবসায়ীরা নিজেদের উদ্দেশ্য পূরণের জন্য জনসাধারণের বিশ্বাস, আবেগ, অনুভূতি, সত্তার সাথে ধোঁকাবাজি করে যাচ্ছে অনবরত; শুধু স্থান, কাল ও পাত্র বিশেষে এর স্বরূপ, প্রকৃতি আর ব্যবসায়ীরা ভিন্ন হয়ে থাকে। বিশ্বাসের এই ব্যবসা ধর্মের হাত ধরে মানব সমাজে আসলেও সত্যিকার অর্থে ধর্মকে দায়ী করার কোন কারণই নেই। বিশ্বে যে ধর্মগুলো প্রচলিত আছে এবং যারা এদের অনুসারী তাদের কথাই যদি ভাবি, তাহলে আমরা দেখব, ওই ধর্মের মৌলিক শিক্ষা এত কল্যাণমুখী, এত জীবনমুখী, এত প্রেমময়, এত নৈতিক গুরুত্বে ভরপুর, যা সুস্থ মস্তিষ্কে অবিশ্বাস করাই কষ্টকর, এটাইত আমাদের বিশ্বাসের স্তম্ভ। পৃথিবীর এমন কোন ধর্ম খুঁজে পাওয়া যায় না বা কেউ বের করতে পারবে না, যে ধর্ম মানুষকে হিংসা-বিদ্বেষ শিক্ষা দেয়। কোনো ধরনের অন্যায় আচরণকে কোনোভাবে সমর্থন করার সামান্যতম সুযোগ নেই কোনো ধর্মে। আর এই বিশ্বাসের সাথে কারো সাথে সমঝোতায় যেতে আমি রাজি নই, তা কেউ গ্রহণ করুক বা না করুক। তবে এ লেখার তাত্পর্য সুস্থ মস্তিষ্কের কোন মানুষই অগ্রাহ্য করতে পারবে না বলে বিশ্বাস।

রাসুল (সা.)কে একবার জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, কে সত্যিকারের মুসলমান? তিনি বলেছিলেন, 'যার হাত ও মুখ থেকে অন্য মানুষ নিরাপদ।' আমরা কজন নিজেকে মুসলমান দাবি করতে পারি? আমাদের হাত ও মুখ থেকে অন্য মানুষ নিরাপদ? আমরা এ দাবি করতে পারি না। কারণ আমরা নামে মুসলমান। ইসলামের যে সত্যিকারের শিক্ষা, সেটা আমাদের অন্তরে প্রবেশ করেছে তা কিন্তু দাবি করতে পারি না। এ দেশে সংখ্যালঘু হলেও উপ-মহাদেশের বৃহত্ জনগোষ্ঠী কিন্তু হিন্দু ধর্মাবলম্বী। হিন্দু ধর্মের সম্বোধন হচ্ছে- 'নমস্কার'। এর অর্থ: 'আপনার ভেতর যে ঈশ্বর আছেন তার কাছে আমি মাথানত করছি।' আমি যদি জানি, আপনার ভেতর ঈশ্বর আছেন তাহলে আমি কী করে আপনাকে ঘৃণা করতে পারি বা আঘাত করতে পারি? 'নমস্কার' শব্দের অর্থ কি হিন্দু ধর্মাবলম্বী সবাই জানেন? ইহুদিদের কাছে একজন অতি শ্রদ্ধেয়, সম্মানী ব্যক্তি হিল্লেলের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, 'তাওরাত অনেক দীর্ঘ, যা আমরা পড়তেও পারব না, বুঝতেও পারব না। আপনি সংক্ষেপে এক লাইনে যদি বলে দেন ইহুদি ধর্মের মূল শিক্ষাটা কী, তাহলে আমাদের জন্য ভালো হয়।' তিনি বলেছিলেন, 'অন্যে যে আচরণ করলে তুমি কষ্ট পাও, সে আচরণটা তুমি অন্যের সঙ্গে করো না।' এটাই ইহুদি ধর্মের মূল শিক্ষা। আজ ইহুদিরা কি হিল্লেলের কথাটা মানে? মানে না। খ্রিস্ট ধর্ম প্রেম, ক্ষমা ও ভালোবাসার ধর্ম। যিশু খ্রিস্টের শিক্ষা হলো, তোমাকে যে ক্ষতি করে তাকেও তুমি ভালোবাসো। কাউকে ঘৃণা করো না, কাউকে ক্ষতি করো না। খ্রিস্টান ধর্মের অনুসারীরাই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পারমাণবিক বোমা ফেলেছিল। যেখানে এমন একটা সময় জাপান যুদ্ধে হেরে যাচ্ছে এবং আত্মসমর্পণের প্রস্তুতি নিচ্ছে, ঠিক তখন পারমাণবিক বোমা ফেলা হলো। এটা ফেলতে যে অনুমতি দিয়েছিল, যে পাইলট এটি নিক্ষেপ করেছিল- সবাই খ্রিস্টান ছিল। এরা কি যিশু খ্রিস্টের সত্যিকার অনুসারী হতে পারে? না কি তারা খ্রিস্ট ধর্মের কলঙ্ক? এইসব প্রশ্নের উত্তরের কোন অপেক্ষা নেই। উদাহরণগুলো হয়তো সামান্যতম হলেও প্রত্যকের মনে এক নতুন ভাবোদয়ের সৃষ্টি করবে। নিজের মনের কাছে প্রশ্ন জাগতে পারে, আমরা কি ঘুমিয়ে আছি?

প্রতি বছর আমাদের দেশে সনদধারী লোকের সংখ্যা বাড়ছে; কিন্তু শিক্ষিত লোকের সংখ্যা বাড়ছে না। আমরা অনেক বড় বড় ডিগ্রি অর্জন করছি; কিন্তু শিক্ষা বলতে যা বোঝায়, সে শিক্ষা আমাদের অন্তরে প্রবেশ করছে না। আমরা ডিগ্রিধারী, সনদধারী কিন্তু শিক্ষিত না। আমাদের জানার, বোঝার ইচ্ছা এখন প্রায় শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে। তাইতো আমাদের মাথায় বারবার টুপি পরিয়ে দেদারছে ইচ্ছেমতো ব্যবসায়িক ফায়দা লুটছে একদল মানুষ। আজ যদি আমরা জেগে থাকতাম, তাহলে আমরা অন্যায়কে 'অন্যায়', সত্যকে 'সত্য' বলে ভাবতাম। না জেনে না বুঝে আরেকজনের মাথায় আঘাত করতে পারতাম না, ঘৃণা করতে পারতাম না।

লেখক:পি এইচ ডি গবেষক

hazrasabbir@gmail.com

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
ড.আবুল বারাকাত বলেছেন, 'এই নির্বাচন সাংবিধানিক সঙ্কট তৈরি ছাড়াই রাজনৈতিক ইস্যুতে মতৈক্য সৃষ্টির পথ তৈরি করবে।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
6 + 6 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
আগষ্ট - ২০
ফজর৪:১৬
যোহর১২:০২
আসর৪:৩৬
মাগরিব৬:৩১
এশা৭:৪৭
সূর্যোদয় - ৫:৩৬সূর্যাস্ত - ০৬:২৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: ittefaq.adsection@yahoo.com, সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: ittefaqpressrelease@gmail.com
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :