The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ৯ ফাল্গুন ১৪২০, ২০ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ নাটোরে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে নিহত ৩ | শাহ আমানতে সাড়ে ১০ কেজি সোনা আটক | একুশের প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন

বাংলাভাষা ছড়িয়ে পড়ুক সবখানে

জানা সৈয়দা গুলশান ফেরদৌস/ শরত্ চৌধুরী

মাতৃভাষা বাংলা চর্চায় বাঙালি তার জীবনের প্রতিক্ষণের প্রতিচ্ছবি এনেছেন। কি সাহিত্যে, কি গবেষণায়, কি সঙ্গীতে, কি বিশ্লেষণে, সর্বত্র। প্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান বিকাশে এদেশেও ইন্টারনেটের প্রবেশ ঘটে, তবে শুরুর দিকে ইন্টারনেটে বাংলা লেখালেখি সম্ভব ছিল না। একইসাথে মুক্ত মত প্রকাশের জন্য মাতৃভাষা বাংলায় ইন্টারনেটভিত্তিক কোন মাধ্যম ছিল না। সে বিষয়টি মাথায় রেখে, গণতন্ত্র চর্চায় শক্তিশালী মাধ্যম হিসাবে পারস্পরিক আলাপচারিতার লক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী বাংলা ভাষাকে ছড়িয়ে দিতে ২০০৫ সালে বাংলা কমিউনিটি ব্লগিং-এর যাত্রা সূচিত হয়েছিল। সেটির প্রেরণা হিসাবেও ছিল বাংলা ভাষার প্রতি একনিষ্ঠ ভালোবাসা এবং দায়িত্ববোধ। আর তাই, তখনকার আন্তর্জাতিক ব্লগিং ধারায় যখন প্রধান প্রবণতা ছিল ব্যক্তিগত ব্লগিং এবং তা কেবল ইংরেজিতে, তখন বাংলাদেশে শুরু থেকেই ব্লগিং-এর মূল প্রবণতা কমিউনিটি ব্লগিং। যেখানে মাতৃভাষায় ব্লগিং করার সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে সামহোয়্যারইন—-ব্লগ এমন একটি ভাষা কমিউনিটির সূচনা করে যা একইসাথে স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক। ভৌগোলিক দূরত্ব পেরিয়ে বাংলা ভাষাভাষী ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা এমন একটি কমিউনিটির সদস্য হয়ে যান যেখানে মাতৃভাষায় নিজেদের আবেগ, অনুভূতি, অভিজ্ঞতা, বিশ্লেষণ, ভিন্নমত একে অপরের সাথে ভাগাভাগি করে নিতে পারেন অনায়াশেই। অনেকটা পথ পেরিয়ে বাংলা কমিউনিটি ব্লগ ৮ম বছরে পা দিয়েছে। এই ধারা অব্যাহত রেখে বর্তমানে বাংলা কমিউনিটি ব্লগের সংখ্যা ৩০টির বেশি।

ইন্টারনেটে বাংলাকে ছড়িয়ে দেয়া এবং বাংলা ভাষার উপকরণ বৃদ্ধির কাজটি সহজ ছিল না। বাংলার ব্লগাররা ক্রমাগত নতুন নতুন লেখা/পোষ্টের মাধ্যমে তিল তিল করে ইন্টারনেটে বাংলা ভাষার উপকরণ যুক্ত করেছেন এবং এখনো করে চলেছেন। তৈরি হয়েছে বাংলা ভাষায় উইকি (অনলাইন বিশ্বকোষ)। ইউনিকোড বাংলা লেখা প্রচলনের মাধ্যমে ওয়েবে বাংলা লেখা ও পড়া সহজতর হয়েছে এবং খুলে গেছে মাতৃভাষায় যোগাযোগের নতুন দুয়ার। ব্লগ পরিমণ্ডল এখন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পরিসরের গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগ মাধ্যম, স্বাধীন মতপ্রকাশ ও অধিকার আদায়ের হাতিয়ার। বিকল্প গণমাধ্যম হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হবার সাথে সাথে এটি বিকশিত করে চলেছে নাগরিক সাংবাদিকতা, মানব কল্যাণে যূথবদ্ধতা, অন্যায়ের প্রতিরোধ এবং সাধারণ মানুষের স্বাধীন মত প্রকাশের উর্বর ক্ষেত্র। একইসাথে লক্ষণীয় যে, সাম্প্রতিক সময়ে বাংলা ভাষায় ইন্টারনেটভিত্তিক নিউজ পোর্টালের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে দ্রুত হারে, তৈরি হয়েছে ইন্টারনেট লাইফ স্টাইল ভিত্তিক ওয়েবজিন। বাংলাদেশে তুলনামূলকভাবে নতুন এবং জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম যেমন ফেইসবুকের স্থানীয় জনপ্রিয়তার পেছনে অন্যতম কারণ হিসাবে রয়েছে বাংলা ভাষাভাষীদের নিজের ভাষায় মত ও অনুভূতি প্রকাশের সক্ষমতা।

দেশের জাতীয় চেতনা, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব নিয়ে ব্লগারদের অংশগ্রহণ ভাষা চেতনার সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। বাংলা কমিউনিটি ব্লগের একেবারে প্রথম পর্যায় থেকেই স্বাধীনতা বিরোধী সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকেছেন ব্লগাররা। অনলাইনে অফ লাইনে ক্রমাগতভাবে লড়াই করে চলেছেন সকল প্রকার মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী অপপ্রচারের বিরুদ্ধে। তৈরি করেছেন মুক্তিযুদ্ধের অনলাইন আর্কাইভ। যুক্ত থেকেছেন নিরলস গবেষণায়। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গণসচেতনতা বৃদ্ধিতে তৈরি করেছেন স্টিকার লিফলেট, বুকলেট। একুশে ফেব্রুয়রিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি আদায়ের জন্য নিরলস কাজ করে গেছেন, বাংলার ব্লগাররা। তৈরি করেছেন জনমত। এরই ধারাবাহিকতায় গত কয়েক বছর ধরে আপ্রাণ চেষ্টা চলছে যাতে গুগল একুশে ফেব্রুয়ারিতে তাদের লোগো (যা ডুডল নামে বেশি পরিচিত) পরিবর্তন করে এবং এই দিনটি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে সকল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছে দেয়। কেবল ব্লগে বা অন্যান্য গণমাধ্যমে জনমত তৈরি নয়, কিংবা গুগলকে অনুরোধ জানিয়ে ইমেইল করাই নয়, ব্লগাররা তাদের নিজস্ব যোগাযোগ ব্যবহার করে বেশ কয়েক বছর ধরে গুগলকে একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব বোঝানোর চেষ্টা করছেন। গুগলের পাশাপাশি এবার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বাংলাদেশে অপেক্ষাকৃত কম ব্যবহূত যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে বাংলা ভাষাকে ছড়িয়ে দেয়ার। এবারের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বাংলা ভাষায় টুইট করার বিষয়টিতে সবাই অংশগ্রণ করবেন, এটাই উদ্যোক্তাদের প্রত্যাশা।

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছেন, বাংলার ব্লগাররা। গত কয়েক বছর থেকে অমর একুশে বইমেলায় ব্লগারদের লেখা গল্প/উপন্যাস কবিতাসহ ব্লগ সংকলন প্রকাশিত হচ্ছে নিয়মিত। ব্লগারদের সম্পাদনায় প্রকাশিত হচ্ছে বেশকিছু ছোট কাগজ/সাহিত্য/পত্রিকা। উঠে আসছেন কবি, নতুন গল্পকার, প্রাবন্ধিক, ছবি শিল্পী প্রমুখ। মৌলিক ছবি এবং ভিডিওতে সমৃদ্ধ হচ্ছে বাংলা ব্লগ আর্কাইভ। এবারের অমর একুশে বইমেলায় কেবল সামহোয়্যারইন... ব্লগের ব্লগারদের বইয়ের সংখ্যা সত্তরটিরও বেশি। এছাড়া ব্লগারদের বাছাই করা লেখা নিয়ে নিয়মিত সংকলনের বইও প্রকাশিত হয়েছে বিভিন্ন ব্লগ প্লাটফর্ম থেকে। সংলকলনের পরিধিও বিস্তৃত হয়েছে কবিতা, ছোটগল্প, এমন নানান শ্রেণিতে। বাংলা সাহিত্যে ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠিত লেখকদের পাশাপাশি উঠতি সাহিত্যিকদের আবশ্যিক বিচরণ ক্ষেত্র হয়ে উঠেছে বাংলা ব্লগ পরিমণ্ডল। সেইসাথে বাংলা ব্লগারদের দিকে মূল আগ্রহ রেখে তৈরি হয়েছে নতুনদের জন্য সহায়ক প্রকাশক গোষ্ঠী। সামাজিক মাধ্যম বিশ্লেষকদের মতে, কেবল সাহিত্যচর্চাই নয় বইয়ের পরিচিতি ও প্রসারের জন্য ব্লগ প্ল্যাটফর্মকে নিয়মিত ব্যবহার করেন প্রতিষ্ঠিত ও অপেক্ষাকৃত নতুন লেখকেরা। এছাড়া প্রথাগতভাবে বইয়ের পাঠকের প্রতিক্রিয়ায় বিষয়ে একটি যুগান্তকারী পরিবর্তন সাধন হয়েছে বাংলা ব্লগিং এর মাধ্যমেই, যেটা অনুকরণ করছে অন্যান্য সামাজিক মাধ্যম। একটি লেখাকে পাঠকরা কিভাবে নিচ্ছেন, কিভাবে বিশ্লেষণ করছেন, কি সমালোচনা করছেন তার অনেকটুকুই লেখকরা পেয়ে যাচ্ছেন পাঠকের তাত্ক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায়। কেননা এই পাঠক শ্রেণিতে সাধারণ পাঠক থেকে শুরু করে বিশ্লেষক সমালোচক সাহিত্যবোদ্ধা সকলেই রয়েছেন। ফলে লেখকদের জন্য তাদের লেখাকে আরো শাণিত এবং অর্থবহ করে তুলতে সাহায্য করছে ব্লগ প্ল্যাটিফর্মগুলো।

যে কথা অনস্বীকার্য, জাতীয়, আন্তর্জাতিক সকল ইস্যুতে কার্যকর বিতর্ক, মতামত গঠনের ক্ষেত্রে হয়ে উঠেছে বাংলা ব্লগোস্ফিয়ার। বাংলা ভাষাভাষী সামাজিক মাধ্যম এরই অপরিহার্য অংশ। ভাষার মাস একুশে ফেব্রুয়ারি ঘিরে তাই নিয়মিত বিতর্ক হয় ভাষা আধিপত্যবাদ সাংস্কৃতিক আধিপত্যবাদ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে। একদিকে উন্মুক্ত গণমাধ্যমময় বিশ্বে ইংরেজি এবং হিন্দি ভাষার আধিপত্য, অন্যদিকে নিজের ভাষার প্রতি অবহেলা এবং আদিবাসী ভাষার প্রতি উপেক্ষা সবই দৃশ্যমান হয়ে ওঠে চলমান বিতর্কে। নিজের মাতৃভাষাকে বিশ্ব দরবারে সমুজ্জল করে তোলার পাশাপাশি, অপেক্ষাকৃত ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর ভাষার বিষয়ে আরো মনোযোগ এবং যত্নের পরিচয় দেবে বাংলা ভাষাভাষী মানুষ। রুখে দেবে ভাষা আধিপত্য, এটাই এই সময়ের প্রত্যাশা।

লেখকদ্বয়: এডিটর, সামহোয়্যারইন ব্লগ/ মডারেটর, সামহোয়্যারইন ব্লগ।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, 'উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বিএনপি প্রমাণ করেছে শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
3 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জানুয়ারী - ১৭
ফজর৫:২৩
যোহর১২:০৯
আসর৩:৫৯
মাগরিব৫:৩৭
এশা৬:৫৪
সূর্যোদয় - ৬:৪২সূর্যাস্ত - ০৫:৩২
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :