The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার ৭ মে ২০১৪, ২৪ বৈশাখ ১৪২১, ৭ রজব ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন: সাত দিনের মধ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ | বিএসএমএমইউ পরিচালকের কক্ষের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ, গ্রেফতার ১

তরুণেরা গড়বে নতুন দেশ ডিজিটাল হবে বাংলাদেশ

জুনাইদ আহমেদ পলক

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের ঘোষণাটি আসে ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর; জাতীয় নির্বাচনের প্রাক্কালে দেশের সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারের ঘোষণায়। এটি অনেকটা বিদ্যুত্গতিতে ছড়িয়ে যায় মানুষের মাঝে। খুব দ্রুতই ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ পরিণত হয় একটি স্লোগানে। দেশের তরুণদের দারুণভাবে উদ্দীপ্ত করে এ স্লোগান।

তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারে কার্যকর টেলিযোগাযোগ কাঠামো, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ সরবরাহ, সেবাপদ্ধতি ও অর্থ ব্যবস্থার ডিজিটাইজেশন, দক্ষ কর্মশক্তি এবং তথ্যপ্রযুক্তিবান্ধব পরিবেশ তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করার ফলে বেশকিছু ক্ষেত্রে নজরকাড়া অগ্রগতি সাধিত হয়। বিগত পাঁচ বছরে শুধু শহরে নয়, তথ্যপ্রযুক্তির সেবা পৌঁছে যায় গ্রামের মানুষের একেবারে দোরগোড়ায়। তবে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের কার্যক্রম যত এগিয়ে যাচ্ছে, ততই চাহিদা তৈরি হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রশিক্ষিত দক্ষ মানবসম্পদের। সরকার ঘোষিত রূপকল্প ২০২১-এ ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে যে চারটি স্তম্ভের উল্লেখ করা হয়েছে, তাতে দেশের মানবসম্পদকে একুশ শতকের উপযোগী করে গড়ে তোলার পাশাপাশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যক্তিমালিকানাধীন খাতসমূহ ও বাজার ব্যবস্থাকে আরও উত্পাদনশীল ও প্রতিযোগিতামূলক করে গড়ে তোলার কথা বলা হয়েছে। তাই আমরা শুরু থেকেই জোর দিয়েছি দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে। আমাদের এবারের স্লোগান—'তরুণেরা গড়বে নতুন দেশ, ডিজিটাল হবে বাংলাদেশ'।

তরুণরা হবে আত্মনির্ভরশীল

বর্তমানে আত্মনির্ভরশীল হওয়ার গতি অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় বেশি। আন্তর্জাতিক শ্রমসংস্থার (আইএলও) এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, আগামী এক দশকের মধ্যে বিশ্বের আত্মনির্ভরশীল ব্যক্তির সংখ্যা হবে বর্তমান জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ। ঘরে বসে আয়ের পাশাপাশি আত্মনির্ভরশীল হওয়ার সবচেয়ে বড় সুবিধা ও আপন পেশাগত দক্ষতা প্রদর্শনের মাধ্যমে অর্থ আয়ের মাধ্যমে নিজের ক্যারিয়ারকে বিকশিত করা যায় আউটসোর্সিংয়ের সাহায্যে। পরিবারের সবার কাছাকাছি থাকার মাধ্যমে পারিবারিক বন্ধন আরও অটুট হয়।

সারাবিশ্বে যখন আউটসোর্সিংয়ের কাজের দ্রুত প্রসার ঘটছে তখন বাংলাদেশ হাত গুটিয়ে বসে থাকতে পারে না। তাই লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং কর্মসূচির অধীনে জেলা পর্যায়ের তরুণ-তরুণীদের ফ্রিল্যান্সিং আউটসোর্সিংয়ের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এরইমধ্যে ২০১৩ সালে এ প্রোগ্রামের অধীনে ১৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরি করা হয়েছে। ২০১৪ সালে ২০ হাজার নারীসহ আরও ৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরি করা লক্ষ্যে আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ইউআইএসসি থেকে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীরাও যাতে ফ্রিল্যান্সিং আউটসোর্সিং প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারেন সেজন্য উপজেলায় প্রশিক্ষণ চলছে। এ ছাড়া ফ্রিল্যান্সারদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ফ্রিল্যান্সার টু এন্টারপ্রেনার কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে।

আউটসোর্সিং কাজে মহিলাদের সম্পৃক্ততা বাড়াতে নেওয়া হয়েছে 'বাড়ি বসে বড়লোক কর্মসূচি'। আইটিতে দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তোলার জন্য এ কর্মসূচির বাস্তবায়ন চলছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ দেশের উপজেলা পর্যায়ে গ্রামের শিক্ষিত তরুণ-তরুণী বিশেষ করে মহিলাদের আইটি শিক্ষায় প্রশিক্ষিত করে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার জন্যই এ প্রকল্প গ্রহণ করে। এ কর্মসূচির বৈশিষ্ট্য হচ্ছে প্রশিক্ষিতদের ৭০ শতাংশই হচ্ছে মহিলা।

বিশ্বে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের একটি বড় বাজার তৈরি হয়েছে। বাংলাদেশ এ বাজারে তার অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করতে চায়। তাই সরকারি উদ্যোগেই মোবাইল অ্যাপস ডেভেলপার তৈরির পাশাপাশি অ্যাপস উন্নয়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রকল্পটির নাম জাতীয় পর্যায়ে মোবাইল অ্যাপস উন্নয়ন প্রকল্প। আমাদের আগামীর প্রকল্প—ওয়ান উইমেন ওয়ান ফ্যামিলি প্রকল্প। দেশের প্রতিটি পরিবার থেকে একজন শিক্ষিত মহিলা সদস্যকে আইটি প্রশিক্ষণ প্রদান। যাতে তারা পরিবারের অন্য সদস্যদের আইটি সার্ভিসের ব্যাপারে প্রশিক্ষিত করতে পারে।

তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারকে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য সরকার হাতে নিয়েছে জন্য ওয়াই-ফাই হটস্পট স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার, রেলওয়ে স্টেশন এবং বাসস্ট্যান্ডসহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ স্থানে এক লক্ষ ওয়াই-ফাই হটস্পট স্থাপনের জন্য আইসিটি মন্ত্রণালয়ের প্রয়াস অব্যাহত আছে। সারাদেশে থ্রিজি নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে পড়ায় ইন্টারনেটভিত্তিক বিভিন্ন সেবা দ্রুত মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য সহজে ও কম খরচের পদ্ধতি হচ্ছে ওয়াই-ফাই হটস্পট প্রযুক্তি। এ ছাড়াও এসব হটস্পটের ইন্টারনেট সুবিধা ব্যবহার করে ব্যবসায়িক ও সামাজিক যোগাযোগ গড়ে তোলার সুযোগ পাবে। এ ছাড়াও দেশের আইসিটি শিল্পের বিকাশের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং রপ্তানি বাণিজ্যকে বহুমুখীকরণের লক্ষ্যে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে ঢাকাসহ দেশের সকল বিভাগীয় এবং জেলা শহরে হাইটেক পার্ক/সফটওয়্যার পার্ক স্থাপন করা হচ্ছে।

পাবলিক নেটওয়ার্ক স্থাপনের লক্ষ্যে ২০১০-১১ অর্থ বছর থেকে ন্যাশনাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফর বাংলাদেশ গভর্নমেন্ট (BanglaGovNet) প্রকল্পের বাস্তবায়নের কাজ চলছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে সকল বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, সংস্থা, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের দপ্তরের মধ্যে নেটওয়ার্ক সংযোগ স্থাপন করা এবং প্রাথমিক পর্যায়ে ৬৪টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপজেলা আইসিটি কেন্দ্র (ইউআইসিটিসি) স্থাপন এবং উপজেলা আইসিটি কেন্দ্রসমূহকে জেলা আইসিটি কেন্দ্রের মাধ্যমে জাতীয় আইসিটি কেন্দ্রের সাথে সংযুক্ত করা হবে। দেশে

তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রশিক্ষিত জনবলকে আরও দক্ষ ও আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার লক্ষ্যে জাপানের আইটি ইঞ্জিনিয়ার্স এক্সামিনেশনস (ITEE)-এর মাধ্যমে জাইকার আর্থিক ও কারিগরি সহযোগিতায় ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অন আইটিইই ম্যানেজমেন্ট প্রকল্প ডিসেম্বর ২০১২ থেকে বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে আন্তর্জাতিক মানের সার্টিফিকেশনের মাধ্যমে দেশের আইসিটি জনবল আন্তর্জাতিক মান অর্জন করতে পারবে।

দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার পাশাপাশি বর্তমানে সরকারের প্রকল্প ও কর্মসূচিতে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে শ্রমনির্ভর থেকে জ্ঞান এবং প্রযুক্তিনির্ভর অর্থনীতিতে উত্তরণের। বিশ্বে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটেছে তিনটি ধাপে। প্রথমে কৃষিনির্ভর অর্থনীতি। এরপর শিল্পনির্ভর অর্থনীতি এবং বর্তমানে সেবা খাত, বিশেষভাবে তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর অর্থনীতি। শিল্পনির্ভর অর্থনীতি মূলত শ্রমনির্ভর। বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে উন্নত দেশগুলোতে তথ্যপ্রযুক্তি বিপ্লব নাম দিয়ে শ্রমনির্ভর থেকে প্রযুক্তিনির্ভর জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতিতে রূপান্তর শুরু হয়। ফলে ওইসব দেশে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিকাশের সাথে সাথে এ খাতে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান হয়। সেদিন বেশি দূরে নয় যখন বাংলাদেশও তরুণদের তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত করে শ্রমনির্ভর থেকে জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতির পথে এগিয়ে যাবে। আমাদের নিরলস প্রচেষ্টা সেদিনের জন্যই।

লেখক :প্রতিমন্ত্রী, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ,

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের ঘটনায় র্যাবের মহাপরিচালক মোখলেছুর রহমান বলেছেন, 'র্যাবের কেউ জড়িত থাকলে তাকে রক্ষার চেষ্টা করব না, বিভাগীয় সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেয়া হবে।' তিনি কি এ প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারবেন?
2 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ১৮
ফজর৪:৫৬
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৫সূর্যাস্ত - ০৫:১০
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: ittefaq.adsection@yahoo.com, সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: ittefaqpressrelease@gmail.com
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :