The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার, ২২ মে ২০১৩, ৮ জৈষ্ঠ্য ১৪২০, ১১ রজব ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ অবশেষে আটক ১২ বাম নেতা-কর্মীকে ছেড়ে দিল পুলিশ | জয়পুরহাটে বিজিবির গুলিতে দুইজন নিহত | রাজশাহীতে যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা | আশুলিয়ার ৫ পোশাক কারখানা বন্ধ ঘোষণা | কিশোরগঞ্জ উপনির্বাচন ৩ জুলাই, গাজীপুর সিটি নির্বচন ৬ জুলাই | মানবতাবিরোধী অপরাধ: কায়সারের জামিন আবেদন নাকচ | সরকারি করা হলো ৮ কলেজ | মাহমুদুরের মা ও সংগ্রাম সম্পাদকের মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেছে হাইকোর্ট | আটকে গেল দুই ডিসিসির নির্বাচন | রাজধানীতে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ২ | সাভার ভবন ধস: ১২১ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তা প্রধান | ৫ পোশাক মালিক ও রানাকে যাবজ্জীবন সাজার সুপারিশ তদন্ত কমিটির

আমাদের ক্যাম্পাস

বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়

বাপ্পা চৌধুরী

১৯৬৭ সালে স্থাপিত হয় বাকলিয়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়। নানা ঘাত-প্রতিঘাত পদদলিত করে চট্টগ্রামে সুনামের সাথে শিক্ষা বিস্তার করছে বিদ্যালয়টি। এ বিদ্যালয়ে দুই শিফটে মোট বিজ্ঞান ও বাণিজ্য বিভাগ মিলিয়ে ১৫৮০ জন শিক্ষার্থীর জন্য শিক্ষক রয়েছেন ২৪ জন। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার যথাক্রমে ১০০% ও ৯৯%। এছাড়া এ বছর ৮৬ জন জিপিএ-৫ ও ২০১২ সালে জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষায় বৃত্তি পয়েছে ৩৯ জন। কিন্তু এত সব সফলতা পরও পনেরশ' শিক্ষার্থীকে ক্লাস করতে হয় ভয় ও উত্কণ্ঠার মধ্যে। কারণ বিদ্যালয়ের বিভিন্ন অংশে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় ফাটল। আর সে ফাটল দিয়ে বৃষ্টি এলেই পানি গড়িয়ে পড়ে। যে কোন সময় ভেঙ্গে পড়ে ঘটতে পারে বিশাল দূর্ঘটনা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ও সহকারী প্রধান শিক্ষক জানালেন তাদের আকুতির কথা। তাঁরা বলেছেন একদিকে বিল্ডিং ভেঙ্গে পড়ার ভয় অন্য দিকে বর্ষা এলেই অঘোষিতভাবে বিদ্যালয় এ পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে হয়। বিদ্যালয়ের নিচতলায় ক্লাস করা সম্ভব হয় না কারণ সেখানে কোমর পানি হয়। আর উপরের তলায় ছাদ দিয়ে বৃষ্টির পানি নিরবিচ্ছিন্নভাবে ক্লাস পড়তে থাকে। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষিকা বলেন, শিক্ষা প্রশাসন অধিদপ্তরের কাছে নতুন বিল্ডিং-এর জন্য ১০ কোটি টাকা অনুদানের জন্য আবেদন করলেও মাত্র ১ কোটি টাকার অনুদান মিলেছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। বিদ্যালয়ে ছাত্র-শিক্ষক অভিভাবকমণ্ডলী সবাই এ সমস্যা নিরসনে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছে।

সাফায়েত বিন আমিন

১০ম শ্রেণি, রোল নং-১

১৯৬৭ সাল থেকে ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছে। এই প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করে অনেকে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সুনামের সঙ্গে আরো ভালো ফলাফলে অবদান রাখবে এটা আমার প্রত্যাশা। আমি আমার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে দেশের প্রথম সারির উচ্চ বিদ্যালয় হিসেবে দেখতে চাই।

দিপ্ত দাশ

১০ম শ্রেণি, রোল নং-২

বর্তমান যুগের সাথে তাল মিলিয়ে কম্পিউটার শিক্ষা গ্রহণ করা খুবই জরুরি। আমি চাই আমাদের বিদ্যালয়ের কম্পিউটার ল্যাবে নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকুক। যার মাধ্যমে ইন্টারনেট সেবাগুলো পেতে সহজ হবে। আমার বিদ্যালয়টি ভালো ফলাফলের ধারা অব্যাহত রেখে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে। আমি চাই বিদ্যালয়টি দেশের শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে।

মো. তছলিম উদ্দীন

১০ম শ্রেণি, রোল নং-৩

আমি আমার বিদ্যালয়টি সব দিক থেকে স্বয়ংসম্পূর্ণ দেখতে চাই। শিক্ষা, বিনোদন, সাহিত্য-সংস্কৃতি, খেলাধুলাসহ সকল দিক থেকে সমভাবে কৃতিত্বের সঙ্গে এগিয়ে যাক এবং সামাজিক দায়িত্ববোধ সৃষ্টির মাধ্যমে দেশ ও জাতি গঠনে শিক্ষার্থীরা অবদান রাখুক এটাই আমার প্রত্যাশা। আমি এই বিদ্যালয়টিকে চট্টগ্রামবাসীর অহংকার হিসেবে দেখতে চাই।

হূদিকা দাশ

৮ম শ্রেণি, রোল নং-১

ফলাফলের দিক থেকে আমাদের স্কুল সব সময় ভালো করে। আমরা বিদ্যালয়টিকে সব সময় ভালো ফলাফলের সেরা বিদ্যালয় হিসেবে দেখতে চাই। সেই সাথে বিদ্যালয়ের সকল ধরনের সামাজিক কর্মকাণ্ড ও খেলাধুলার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিক্ষা সফর প্রভৃতি কর্মকাণ্ড দেখতে চাই। আমাদের স্কুলের পরিবেশ আরো ভালো দেখতে চাই সেই সাথে নিয়মিত বিতর্ক চর্চার দাবি জানাই।

জান্নাতুল নাঈম

৮ম শ্রেণি, রোল নং-২

আমি আমার বিদ্যালয়ে ক্যান্টিন, ফুলের বাগান, পাঠাগার ও বিজ্ঞানাগারের আরো উন্নয়ন চাই। এছাড়া প্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ ও শিক্ষা সহায়ক পরিবেশ তৈরির মাধ্যমে একটি আদর্শ বিদ্যালয় হিসেবে দেখতে চাই। সেই সাথে বিদ্যালয়টি এই অঞ্চলের সেরা স্কুল হিসেবে গড়ে উঠুক। যাতে করে আমরা আমাদের এই স্কুলকে নিয়ে গর্ব করতে পারি।

শাহেদা আক্তার

প্রধান শিক্ষক

বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সুনামের সঙ্গে সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করে যাচ্ছে। এটি এই জেলার ছেলে-মেয়েদের অন্যতম বিদ্যাপীঠ হিসেবে পরিচিত। তবে স্কুলের অনেক সম্ভাবনা আছে। আশা করছি সরকারের কাছ থেকে সহযোগিতা পেলে বিদ্যালয়টি দেশের শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত করা সম্ভব হবে। বিদ্যালয়টির বিশেষ

বৈশিষ্ট্য হচ্ছে একাডেমিক কার্যক্রমের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সচেতনতা বৃদ্ধি ও সাধারণ জ্ঞান চর্চার মাধ্যমে প্রতিভা বিকাশের বিষয়টি বিশেষ গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয়। ভালো শিক্ষক পেলে ভালো শিক্ষার্থীদের অভাব হয় না। তবে ভালো ফলাফলের জন্য ক্লাসে পড়া দেয়া এবং ক্লাসে পড়া নেয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে আমি মনে করি।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
ড. আকবর আলি খান বলেছেন, সংসদ নির্বাচন পদ্ধতি নির্ধারণে গণভোট হতে পারে। তার এই বক্তব্য আপনি কি সমর্থন করেন?
1 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ১৫
ফজর৪:৫৪
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১২সূর্যাস্ত - ০৫:১১
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :