The Daily Ittefaq
ঢাকা, মঙ্গলবার ৮ জুলাই ২০১৪, ২৪ আষাঢ় ১৪২১, ৯ রমজান ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ফতুল্লায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫ | খুলনায় চিকিৎসকদের কর্মবিরতি ১৫ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত | বুধবার থেকে রাজশাহীতে অনির্দিষ্ট কালের পরিবহণ ধর্মঘটের ডাক | সমুদ্রসীমার রায়: সাড়ে ১৯ হাজার বর্গকিলোমিটার পেল বাংলাদেশ | সবকিছুর ঊর্ধ্বে দেশ: সাকিব

শুধুই শাড়ি

ঈদসহ যেকোনো উত্সবে নারীর শাড়ি পড়ার প্রচলন রয়েছে প্রত্যেক ঘরে ঘরে। ঈদে চাই নতুন শাড়ি। আর তাই বাঙালি ললনারা ছুটেন বিভিন্ন দোকানে বাহারি ডিজাইনের শাড়ির খোঁজে। বাজার ঘুরে ঘুরে যাচাই বাছাই করে তারা কিনে আনেন মানানসই আর সবচেয়ে ভিন্ন শাড়িটি। ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে বিপণী বিতান আর বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলোও প্রস্তুত হয়েছে নান্দনিক ডিজাইনের শাড়ি নিয়ে। ঈদের শাড়ি নিয়ে আমাদের এবারের মূল ফিচার। লিখেছেন খালেদ আহমেদ

বাঙালি নারীর চিরন্তন সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলতে বারো হাত শাড়ির কোনো বিকল্প নেই। নারীদের ঐতিহ্যবাহী ও নিত্যনৈমিত্তিক পরিধেয় বস্ত্র শাড়ি। বাংলার এই শাড়ির ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখার সম্পূর্ণ কৃতিত্ব বাঙালি রমণীদের। এই পোশাকটির সঙ্গে বাঙালিয়ানার টান রয়েছে। ভারত ও বাংলাদেশের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সাধারণত শাড়িকে সবচেয়ে উপযোগী পোশাক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সামনেই ঈদ। পছন্দের তালিকায় শাড়ির স্থান সবার ওপরে। এবারের ঈদে নানা ডিজাইনের লাল কাপড়ের শাড়ি পাওয়া যাচ্ছে। এক সময় নারীরা শাড়ি বলতেই বুঝতেন ভারতীয় শাড়িকে। কিন্তু এখন নারীদের যেন দেশীয় শাড়ির সৌন্দর্যই বেশি টানে। তাই তাঁত, জামদানি, কাতান, সিল্ক, হাফসিল্ক ও বেনারসি শাড়ির দোকানগুলোতে দেখা যায় মেয়েদের উপচেপড়া ভিড়। বেইলী রোডের শাড়ি বিক্রেতারা জানান, বৃষ্টির কথা মাথায় রেখে এবার শাড়িতে অল্প ডিজাইন ও হালকা রঙের কাজগুলো কমই প্রাধান্য পেয়েছে। তবে হাতের কাজের গর্জিয়াস শাড়িও আছে প্রচুর। এবার শাড়ির দোকানগুলোতে আকর্ষণীয় শাড়ির মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে মসলিন শাড়িতে অলওভার কাজও। ঈদের শাড়িতে যতটুকু না থাকে ঐতিহ্য তার থেকে বেশি থাকে বৈচিত্র্য। ঐতিহ্য আর বৈচিত্র্যকে ধারণ করে শাড়িকে বাঙালি নারীর কাছে জনপ্রিয় করেছে। রেগুলার স্টাইলের জন্য সুতি ও মসলিন শাড়ি। এক প্যাঁচের জন্য সুতি শাড়ির কোনো বিকল্প নেই, তবে এক প্যাঁচের শাড়ি ঘরে পরাই ভালো। ছোট আঁচলের শাড়ির জন্য জামদানি ও হাফসিল্ক আর ফেস্টিভ ফিউশনের জন্য কাতান, সিল্ক ও হাফসিল্ক শাড়ির কোনো বিকল্প নেই। তবে টাঙ্গাইল শাড়ি কুটিরের এবার সব থেকে আকর্ষণীয় শাড়ির মধ্যে আছে মসলিন শাড়িতে অলওভার কাজ। দেশের বিভিন্ন এলাকার মেয়েদের হাতের কাজের শাড়িসহ এবার ঈদে পাওয়া যাবে নানা ধরনের অভিজাত শাড়ি। নিম্নবিত্ত শ্রেণীর কথা বিবেচনা করে অল্প দামের শাড়িতে উত্সবের আমেজ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। আছে প্রাকৃতিক রঙের ডিজাইন ও নতুন ধরনের জুট কাতান শাড়ি। ঈদের শাড়িতে যতটুকু না থাকে ঐতিহ্য তার থেকে বেশি থাকে বৈচিত্র্য। ঐতিহ্য আর বৈচিত্র্যকে ধারণ করে কুমুদিনী আর আড়ং তৈরি করেছিল এক নতুন বাজার। টাঙ্গাইল শাড়ি কুটির জনপ্রিয় করেছিল বাঙালি রমণীদের কাছে শাড়িকে। এবার ঈদে নিয়ে এসেছে এক্সক্লুসিভ ডিজাইনের মসলিন ও জামদানি শাড়ি। মসলিন শাড়িতে করা হয়েছে বির্টস, দপকা, জরি কম্বিনেশনে হাতের কাজ। শাড়ির ফ্রেমি করা হয়েছে জামেবার দিয়ে। জামদানি শাড়িতে করা হয়েছে পাল্স, বির্টস দিয়ে হাতের কাজ। এ ছাড়া আছে শিপন ও জর্জেট শাড়ি। গরমের কারণে শাড়ির রং হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে হালকা কালার। গোলাপি, বেগুনি, হালকা নীল, জলপাই, অ্যাশ, অফহোয়াইট কালার ব্যবহার করা হয়েছে শাড়িতে। মসলিন শাড়ির দাম পড়বে ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা, জামদানি, জর্জেট ও শিপন শাড়ির দাম পড়বে ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা। সুতি, সিল্ক, হাফসিল্ক ও মসলিন শাড়িতে ব্যবহার করা হয়েছে ঈদ উত্সবের রং। ডিজাইনের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে অ্যাপ্লি¬ক, সুতার কাজ, কারচুপি, ব¬ক প্রিন্ট, স্ক্রিনপ্রিন্টসহ নানা মাধ্যম। ফ্যাশন হাউস আড়ং, অঞ্জন'স, কে ক্র্যাফট, নগরদোলা, অন্যমেলা ও অন্যান্য হাউসগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে নান্দনিক ডিজাইনের শাড়ি। তবে এবারের শাড়ির বাজারে দামটা বেশ চড়াও বলেছেন এমন অনেক ক্রেতারা আর তা স্বীকার করলেন অনেক বিক্রেতা নিজেরাও। শাড়ির বাজার আর বেইলি রোডে যাবেন না তা তো হয় না। অসংখ্য শাড়ির দোকান রয়েছে যেখান থেকে বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের শাড়িটি। তবে এখানকার বিক্রেতারা খুব একটা খুশি নন। তারা বলেছেন ক্রেতার সংখ্যা কমেছে অনেক। যানজটের কারণে ধানমন্ডি আর গুলশানের ক্রেতারা এদিকে আসা ছেড়েই দিয়েছেন। আজিজ সুপার মার্কেটে রয়েছে আরও কিছু শাড়ির দোকান—নবরুপা, দোয়েল সিল্ক, মনে রেখ শাড়িসহ বিভিন্ন দোকানে চলছে ক্রেতাদের যাওয়া-আসা। নগরদোলা এনেছে বৈচিত্র্যময় কিছু শাড়ি। আর যাদের বাজেট একটু বেশি তারা যেতে পারেন বসুন্ধরা সিটি ও পিঙ্ক সিটিতে। এখানে শাড়ি রয়েছে ৬০ হাজার পর্যন্ত দামেরও। স্মোক শিফনের শাড়ি, ধুপিয়ান কাতান, অপেরা জুট কাতান, গাদোয়ান কাতান, গাদ্দি কাতানসহ বিভিন্ন শাড়ি ক্রেতারা পছন্দ করছেন এবার। ফ্যাশনে জামদানি শাড়ির প্রচলন সবসময়। ডেমরার জামদানি কুটিরে ঘিরে রঙের জমিনে জরির হাতের কাজের শাড়ি বিক্রি হচ্ছে ৩২ হাজার টাকায়। টাঙ্গাইল শাড়ি কুটিরে তসরের উপরে জামদানি কাজের শাড়ি পাওয়া যাচ্ছে সাড়ে ৫ হাজার টাকায়। এ ছাড়াও মসলিনে জরির কাজের শাড়ি, ভেজিটেবল ডাইংয়ের শাড়ি ৩ হাজার টাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন দামে পাওয়া যাচ্ছে। অঞ্জন'স-এর স্বত্বাধিকারী ও ফ্যাশন ডিজাইনার শাহীন আহম্মেদ বলেন, 'এবার রাজশাহী সিল্ক, কটন, এন্ডি সিল্ক, হাফ সিল্ক, মসলিন, তাঁত কটনসহ বিভিন্ন কাপড়ে স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক প্রিন্ট, এমব্রয়ডারি, কাঁথা স্টিচ, বিভিন্ন ম্যাটারিয়ালের কাজ করা হয়েছে। বেশির ভাগ শাড়িতে একাধিক মাধ্যমে কাজ করা হয়েছে। নিজস্ব বুনন ডিজাইনে তাঁতের শাড়ি করা হয়েছে। বয়স ও উত্সবকে মাথায় রেখে শাড়ি ডিজাইন বিন্যাস করা হয়েছে। এসব শাড়ির দাম পড়বে সুতি ৭৫০ থেকে ৪ হাজার টাকা, সিল্ক ১০ হাজার থেকে ১৮ হাজার টাকা, মসলিন ৩৫ শ' থেকে ১২ হাজার টাকা, হাফ সিল্ক ২৫ শ' থেকে ৬ হজার টাকা। এবারের ঈদের প্রতিটি শাড়ি যেন একেকটি সদ্য ফোটা ফুল, একরাশ ভালোবাসার পঙিক্ত। আসলে তাই, এবারে বাজারে এত সুন্দর ও আকর্ষণীয় শাড়ি এসেছে যার দৃষ্টিনন্দন ডিজাইন যেন একেকটি কাব্য, নতুন দিনের ভালোবাসা।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
সাকিব আল হাসানকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। এই সিদ্ধান্ত সমর্থন করেন কি?
5 + 4 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ২৭
ফজর৩:৪৬
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪২
এশা৮:০৫
সূর্যোদয় - ৫:১২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৭
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: ittefaq.adsection@yahoo.com, সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: ittefaqpressrelease@gmail.com
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :