The Daily Ittefaq
ঢাকা, শনিবার ১২ জুলাই ২০১৪, ২৮ আষাঢ় ১৪২১, ১৩ রমজান ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ গোল্ডেন বলের জন্য মনোনীত ১০ খেলোয়াড় | গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলায় নিহত ১৬ | ঝিনাইদহে 'বন্দুকযুদ্ধে' ২ চরমপন্থি নিহত

ঈদ ভাবনা: আনন্দ ও শঙ্কার দোলাচলে

আহমেদ সুমন

বিএনপি বিগত ৬ মাস ধরে সরকারের বিরুদ্ধে হুমকি ধমকি দিয়েও কোনো কুল-কিনারা করতে পারেনি। এতদসত্ত্বেও বিএনপি ঈদের পর নবোদ্যমে আবারও আন্দোলন করার হুমকি দিয়েছে। সবাই জানেন যে, বিএনপি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে দশম সংসদ নির্বাচন চেয়েছিলো। তারা তা আদায় করতে পারেনি। এখন অবিলম্বে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন করে সংসদ নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছে। পক্ষান্তরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এই দাবি আমলেই নিচ্ছে না। এমতাবস্থায় বিএনপি ঈদের পর তুমুল আন্দোলন করে সরকারকে ফেলে দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছে। কিন্তু সরকারি দলের নেতা-কর্মীরা এতে ডর-ভয় পাচ্ছে না। সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের ভাষ্য অনুযায়ী বিএনপি কাগুজে বাঘ। কাগুজে বাঘের মুখ ও নখদন্তে কেউ আক্রান্ত হয় না। সুতরাং বিএনপিও এখানে কিছু করতে পারবে না। এমনতরো পরিবেশ পরিস্থিতিতে সরকারি দলের নেতা-কর্মীরা নির্ভাবনায় থাকলেও সাধারণ মানুষ স্বস্তি পাচ্ছে না। ঈদে বাড়ি গিয়ে ঠিক মতো ফিরতে পারবে কী না তা নিয়ে শংকিত।

মুসলিমদের বৃহত্ ধর্মীয় উত্সব মূলত দু'টি। ঈদুল ফিতর অর্থাত্ রোজার ঈদ এবং ঈদুল আযহা বা কোরবানির ঈদ। এই দুইটি ঈদ দুই মাস দশ দিনের ব্যবধানে উদযাপিত হয়। এরমধ্যে রোজার ঈদ আসে প্রায় দশ মাস পর। অনেক দিন প্রতীক্ষার পর যা পাওয়া যায়, তাতে অনেক আনন্দ থাকে। রোজার ঈদের এই বেশি আনন্দ পরিবারের সকলের সাথে উপভোগের জন্য শহরের লোকজন গ্রামে ছুটে। গ্রামে বছরের পুরো সময় কাজ না থাকায় বিগত দুই দশকে শহরমুখী মানুষের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। এ কারণে নগরায়নেরও সম্প্রসারণ ঘটেছে। এ কারণে রোজার ঈদে খেটে খাওয়া একজন শ্রমজীবী থেকে শুরু করে সমাজে উচ্চ শ্রেণিতে অবস্থানকারী লোকজনও গ্রামে ছুটেন। অনেকেরই মা, বাবা, ভাই-বোন গ্রামে থাকেন। তাদের সবার সঙ্গে রোজার ঈদে দেখা হয়। পুনর্মিলনীর এই উত্সবটা তৈরি হয় রোজার ঈদে। মানুষের এই স্বহজাত আনন্দে বাগড়া বসিয়েছে ঈদের পরে বিএনপির তুমুল আন্দোলনের হুমকি। নিরাপদে নিশ্চিন্তে শহরে নিজ নিজ কর্মস্থলে ফিরতে পারা, না পারার এক দ্বন্দ্ব চলছে মনের ভেতর।

রোজার ঈদের পর বিএনপি সরকারবিরোধী অল আউট আন্দোলনে যাবার পরিকল্পনা করছে। সংবাদপত্রগুলোর খবর অনুযায়ী বিএনপি লন্ডনে বসবাসকারী দলের দ্বিতীয় শীর্ষ নেতার ছক অনুযায়ী আন্দোলন সংগ্রাম শুরু করতে যাচ্ছে। জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এমনই ঘোষণা দিয়েছেন । বিএনপির পক্ষ থেকে মধ্যবর্তী নির্বাচনের জন্য দ্রুত সংলাপ আয়োজনে বিভিন্ন দাতা সংস্থার প্রতিনিধি, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের দিয়ে সরকারের ওপর সংলাপে বসার একটা চাপ দেয়ার চেষ্টা চলছে। গত ০৫ জুলাই ষষ্ঠ রোজার দিনে কূটনীতিকদের সম্মানে আয়োজিত ইফতার পার্টিতে বিএনপির পক্ষ থেকে এমন আলোচনাই করা হয়েছে। বিএনপি একদিকে আন্দোলন অন্যদিকে সরকারকে সংলাপের মাধ্যমে আলোচনার টেবিলে আনতে অত্যন্ত কৌশলে কাজ করছে। বাংলাদেশ সফরে আসা বিভিন্ন দেশের সরকার বা রাষ্ট্র্রপ্রধানের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক ও রাষ্ট্রীয় অতিথির সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের ব্যবস্থা করতে দলের শীর্ষ পর্যায়ের কয়েকজন নেতা সক্রিয় রয়েছেন।

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের ধারণা, আন্দোলনের মাধ্যমেই কেবল সরকারকে বাগে আনা সম্ভব। ঈদের পর আন্দোলন গড়ে তুলতে বিএনপি দল গোছানোর প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে সেখানে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। আন্দোলনের আগে বর্তমানে কূটনৈতিক লবিং জোরদার করা হয়েছে। সমপ্রতি ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ার বৈঠকের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন নিয়ে বৈধতার প্রশ্ন তুলে নির্বাচনে অনিয়মের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। বিএনপি আশা করছে, ভারতে নবগঠিত নরেন্দ্র মোদী সরকার বিএনপির সরকার বিরোধী আন্দোলন যৌক্তিকভাবে গ্রহণ করবে এবং তাদের দাবি মেনে নিতে আওয়ামী লীগকে চাপ দিবে। সুষমা স্বরাজ অবশ্য বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় এদেশের জনগণের ওপর ছেড়ে দিয়েছেন। এখন বিএনপির নিষ্ক্রিয় নেতাকর্মীদের সক্রিয় হয়ে মাঠে নামার জন্য প্রস্তুত থাকতে বিএনপির পক্ষ থেকে নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। বিএনপি যে কোনো মূল্যে রোজার পর জোরদার ও কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে একটা ধাক্কা দিতে চাচ্ছে। রোজার পর বিএনপি লাগাতার হরতাল, ঢাকার মুক্তাঙ্গনের পাশাপাশি মহাসমাবেশ, রেলপথ, রাজপথ ও নৌপথে লাগাতার অবরোধ, সচিবালয় ঘেরাও, নির্বাচন কমিশন ঘেরাওসহ বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে সরকারকে চাপে ফেলতে চাচ্ছে। অপরদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও রোজার পর বিএনপির যে কোনো আন্দোলন কর্মসূচি রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে। বিএনপি যেন কোনোভাবেই বড় ধরনের আন্দোলনে যেতে না পারে, এজন্য পুরো রমজান মাসই ইফতার পার্টির আড়ালে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড- চালাচ্ছে আওয়ামী লীগ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন।

শেষ পর্যন্ত কী ঘটবে তা অবশ্য নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না। নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা নিয়ে সরকার এবং বিরোধী দলের মধ্যে অনড় অবস্থান দেশবাসীকে বেকায়দায় ফেলছে। বিএনপির শীর্ষ নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন আলোচনা ও ইফতার পার্টিতে বক্তৃতাকালে জোর দিয়েই বলছেন যে, তারা তত্ত্বাবধায়ক বা নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা আদায় করতে ঈদের পর ধাপে ধাপে সব কিছু অচল করে দেয়ার কথা বলছেন। ঢাকা অবরোধ, রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেয়ার মধ্যদিয়ে তারা গণঅভ্যুত্থানে সরকারের পতন ঘটাবেন।

এখন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজনৈতিক কর্মসূচি থেকে মানবিকতা উবে যাচ্ছে। প্রতিহিংসার জায়গাগুলো আরো বেশি তীব্র হয়েছে। রাজনৈতিক কর্মসূচিগুলোর ধরন-ধারণগুলোতে অগ্নিনির্ভরতা বাড়ছে। রাজনীতি এখন যে বিভত্স রূপ ধারণ করেছে, সে কারণে ঈদের পরে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি কোন্ দিকে মোড় নেয়, তা নিয়ে কারো কোনো ধারণা নেই। নেই কোনো উত্তরও। ঈদ আসছে আনন্দের বারতা নিয়ে, এটা সত্য। কিন্তু পাছে রাজনৈতিক যে ভয়, শঙ্কা উঁকি দিচ্ছে তা থেকে পরিত্রাণের উপায় কী? সুতরাং ঈদ আনন্দ এবং রাজনৈতিক ভয়, শঙ্কার দোলাচলে পরিণতি কী হয়, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

লেখক:গবেষক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক

email : [email protected]

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সভায় ঈদের আগে ৩ দিন এবং পরে ২ দিন মহাসড়কে পণ্যবাহী ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আপনি এই সিদ্ধান্ত সমর্থন করেন কি?
6 + 2 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
ফেব্রুয়ারী - ১৯
ফজর৫:১৩
যোহর১২:১৩
আসর৪:২০
মাগরিব৫:৫৯
এশা৭:১২
সূর্যোদয় - ৬:২৯সূর্যাস্ত - ০৫:৫৪
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :