The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার ২৮ জুলাই ২০১৪, ১৩ শ্রাবণ ১৪২১, ২৯ রমজান ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ তোবায় আটকা শ্রমিক, বেতন দিচ্ছে বিজিএমইএ

মিডিয়া

বাঘের ওপর টাগ

প্রভাষ আমিন

সাদা চোখে দেখলে মনে হবে, গণমাধ্যমই সবচেয়ে শক্তিশালী, গণমাধ্যমই বুঝি সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করে। প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে লিখছে, মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে লিখছে, গডফাদারদের বিরুদ্ধে লিখছে, র্যাবের বিরুদ্ধে লিখছে, পুলিশের বিরুদ্ধে লিখছে। মহাপরাক্রমশালী। এরকমটাই হওয়ার কথা, এরকমটাই হওয়া উচিত। গণমাধ্যম যা সত্য তা-ই তুলে ধরবে। সকল অন্যায়, অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকবে। কিন্তু সবসময় কি এটা করা যায়? আমরা যারা ভেতর থেকে দেখি, তারা জানি, আসলে যায় না। প্রকাশিত অনেক সংবাদের পেছনেই অনেক অন্ধকার কার্যকারণ থাকে। অনেক স্বার্থ জড়িয়ে থাকে। স্বার্থের কারণে যেমন অনেক সংবাদ প্রকাশিত হয়, তেমনি আবার অনেক সংবাদ গিলেও ফেলা হয় এমন স্বার্থের কারণেই।
গণমাধ্যম যেমন অনেক কিছু নিয়ন্ত্রণ করে। তেমনি গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রিতও হয়। আমি সরকার বা এজেন্সির নিয়ন্ত্রণের কথা বলছি না। এই বিবেচনায় বাংলাদেশের গণমাধ্যম এখন যথেষ্ট স্বাধীনতা উপভোগ করছে। কিন্তু গণমাধ্যমেরও অনেক নিয়ন্ত্রক আছে। প্লিজ অবিশ্বাসে চমকে উঠবেন না। সাথেই থাকুন, আজ সেই বাঘের ওপর টাগের গল্প শোনাব আপনাদের।
গণমাধ্যমের নিয়ন্ত্রক এক-দুজন নয়, অনেক। মূল নিয়ন্ত্রণ বিজ্ঞাপনদাতাদের হাতে। এছাড়া প্রিন্ট মিডিয়া জিম্মি এজেন্ট আর হকারদের হাতে। আর ইলেকট্রনিক মিডিয়া জিম্মি ক্যাবল অপারেটর আর টিআরপি প্রণেতাদের হাতে।
বিজ্ঞাপনের ওপর গণমাধ্যমের নির্ভরতাটা বোধগম্য। প্রিন্ট মিডিয়ায় তবু পত্রিকা বিক্রি করে কিছু টাকা আসে। কিন্তু ইলেকট্রনিক মিডিয়ার আয়ের একমাত্র উত্স বিজ্ঞাপন। তবে পত্রিকা বিক্রি করে যে টাকা আসে তা দিয়ে টিকে থাকা সম্ভব নয়। কারণ ১০ টাকা দামের একটি পত্রিকা বিক্রি করে কমিশন বাদ দিয়ে নানা হাত ঘুরে শেষ পর্যন্ত কর্তৃপক্ষের হাতে আসে ৫/৬ টাকা, তাও ঢাকার বাইরের অনেক জায়গার টাকা কখনো পাওয়াই যায় না। অথচ এখন একটি পূর্ণাঙ্গ দৈনিকের প্রতি কপির উত্পাদন খরচ ১৫ টাকার ওপরে। তারমানে প্রতি কপি পত্রিকা বিক্রি হলেই অন্তত ১০ টাকা লস। তাই যত বেশি পত্রিকা বিক্রি হবে, তত বেশি লস হবে। এ কারণেই অনেক পত্রিকা লস কমাতে চাহিদার চেয়ে অনেক কম ছাপে। এই লস পোষানোর একমাত্র উপায় বিজ্ঞাপন। তাই যে কোনো পত্রিকাকে টিকে থাকতে হলে বিজ্ঞাপনের ওপর নির্ভর করতেই হয়। ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ক্ষেত্রে এই নির্ভরতা ষোলোআনা। কারণ দর্শকরা টিভি দেখতে পান বিনা পয়সায়। তাই পুরো খরচ তুলতে হয় বিজ্ঞাপন থেকে। আগে গণমাধ্যমের সাথে বিজ্ঞাপনদাতাদের পারস্পরিক সম্পর্কটা ছিল দ্বি-পাক্ষিক ও ভদ্রজনোচিত। কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেড়ে যাওয়ায় বিজ্ঞাপনদাতারা এখন গণমাধ্যমের ঘাড়ে সিন্দাবাদের ভূতের মতো চেপে বসেছে। আগে বিজ্ঞাপনের ডিজাইন হতো পত্রিকার চাহিদা অনুযায়ী, মাপ হতো কলাম-ইঞ্চিতে। এখন পুরো বিষয়টি উল্টে গেছে। এখন পত্রিকার মেকআপ হয় বিজ্ঞাপনের ডিজাইন অনুযায়ী। কখনো কখনো পত্রিকার প্রথম পাতার একটা বড় অংশ চলে যায় বিজ্ঞাপনের দখলে। মাঝে মাঝে এমনও হয়, পত্রিকার প্রথম পাতায় কোনো সাবানের সুন্দরী মডেলের ছবি ছাপা হয়। আর সেই সুন্দরীর চুলের ভাঁজে দুই লাইন, কানের আড়ালে চার লাইন, ঘাড়ের ফাঁকে পাঁচ লাইন নিউজ চলে যায়। সুন্দরী মডেলের শরীরের ভাঁজে ভাঁজে পাঠককে পড়তে হয়, মর্মান্তিক লঞ্চ দুর্ঘটনার নিউজ। এছাড়া এল সেপ, আই সেপ, বাঁকা-ত্যাঁড়া নানা ডিজাইনের বিজ্ঞাপনের অত্যাচার পাঠককে সইতে হয়। বছরখানেক আগে দেশের একটি জনপ্রিয় দৈনিক পাঠকের হাতে যায় জ্যাকেটবন্দী অবস্থায়। প্রথম ও শেষ পাতায় লোগোর নিচে পুরোটাই বিজ্ঞাপন। পাঠক নিউজ পেয়েছে তিনের পাতায় গিয়ে। বিস্ময়কর ও অভিনব এই বিজ্ঞাপনের অত্যাচার দেখে আমি হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম। এ নিয়ে কয়েকজন সিনিয়র সাংবাদিকের সাথে কথাও বলেছি। তারা বলেছেন, এমন উদাহরণ উন্নত বিশ্বেও আছে। তাদের এই যুক্তিতেও একজন পাঠক হিসেবে আমি সন্তুষ্ট হতে পারিনি। উন্নত বিশ্বে অনেককিছুই আছে, সবকিছুই কি আমাদের অন্ধের মতো অনুসরণ করতে হবে। আর উন্নত বিশ্ব একটি বাজে উদাহরণ তৈরি করলে তা আমাদের মেনে নিতে হবে কেন? যেই পত্রিকাটি নিজেদের অমন বিজ্ঞাপনবন্দী করে ফেলেছিল, অন্যদের কথা জানি না, অন্তত তাদের আর্থিক সামর্থ্য ছিল সেই বিজ্ঞাপনটি ফিরিয়ে দেওয়ার। কিন্তু সর্বগ্রাসী লোভ আমাদের ভালোমন্দের বোধটাই নষ্ট করে দিয়েছে। ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বিজ্ঞাপনের এই অত্যাচার আরো বেশি। মানুষ এখন অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকে বিজ্ঞাপন দেখে না, বিজ্ঞাপনের ফাঁকে ফাঁকে নাটক দেখে। বিশেষ বিশেষ উত্সবে বিজ্ঞাপনের অত্যাচার এত বেড়ে যায় যে নাটক বা অনুষ্ঠানের ধারাবাহিকতাই ভুলে যাওয়ার দশা হয়। নাটক, সিনেমা বা অনুষ্ঠান যত ভালো; বিজ্ঞাপনের অত্যাচার তত বেশি। একটি অনুষ্ঠানের মাঝে সর্বোচ্চ কত মিনিট বিজ্ঞাপন বিরতি থাকবে, তার কোনো মানদণ্ড নেই। হয়তো আছে, আমি জানি না। থাকলেও তা ফলো করা হয় না। বিজ্ঞাপন না পেলে বিরতি ৪ মিনিট, পেলে ১৫ মিনিট পর্যন্ত হয়ে যায়। এরপরও যে দর্শকরা আমাদের টিভি দেখেন, তাতেই আমাদের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। এখন যেহেতু অনেক চ্যানেল, দর্শকের হাতে আছে রিমোট কন্ট্রোল, তাই অনেক চালাক দর্শক বিজ্ঞাপন শুরু হলেই চ্যানেল বদলে ফেলেন। আকর্ষণীয় অনুষ্ঠান হলে কয়েক মিনিট পর আবার ফিরে আসেন, নইলে অন্য চ্যানেলে ভালো অনুষ্ঠান খোঁজেন। দর্শকদের চেয়ে বিজ্ঞাপনদাতারা আরো চালাক। তারা এখন শুধু বিরতিতে নয়, অনুষ্ঠানের ওপরই বিজ্ঞাপন চাপিয়ে দেন। ইদানীং হঠাত্ই টিভির পর্দা ছোট হয়ে যায়, এল সেপে ভেসে ওঠে বিজ্ঞাপন। এছাড়া পর্দার কোনায় কোনায় থাকে নানা বিজ্ঞাপন, সারাক্ষণই ঘুরতে থাকে বিজ্ঞাপনের গ্রাফিক্স। টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ বা বিজ্ঞাপনদাতারা দর্শকদের চোখের প্রশান্তির বিষয়টি মাথায়ই রাখেন না। টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ অনুষ্ঠান তৈরি করেন দর্শকদের কথা মাথায় রেখে নয়, বিজ্ঞাপনদাতাদের কথা মাথায় রেখে। প্রথম কথা হলো, অনুষ্ঠানটি বিক্রি হতে হবে। অনুষ্ঠান যতই ভালো হোক, বিক্রি না হলে তার কোনো দাম নেই। এখন অতি চালাক বিজ্ঞাপনদাতারা আবার নাটক বা সিনেমার মাঝে তার পণ্য ঢুকিয়ে দেন। যেমন নাটক বা সিনেমায় ক্লান্ত নায়ক হয়তো কোনো এনার্জি ড্রিঙ্কে চুমুক দিচ্ছেন। সেই ড্রিঙ্কসটি হবে পূর্বনির্ধারিত, বিজ্ঞাপনদাতার পছন্দের। তার মানে বিজ্ঞাপন আপনাকে দেখতেই হবে। এই প্রসঙ্গে একটা গল্প মনে পড়ে গেল। এক ছেলে কিছুতেই ওষুধ খেতে চায় না। তবে মিষ্টি তার খুব পছন্দ। তো সেই ছেলের মা রসগোল্লার ভেতরে ট্যাবলেটটি ঢুকিয়ে দিলেন, যাতে ছেলে মিষ্টির লোভে হলেও ট্যাবলেটটি খেয়ে ফেলে। পরে মা ছেলেকে জিজ্ঞেস করলেন, বাবা মিষ্টি খেয়েছ? ছেলে বলল, জ্বি মা খেয়েছি। তবে মিষ্টির বিচিটা ফেলে দিয়েছি। কিন্তু চালাক বিজ্ঞাপনদাতারা এমনভাবে অনুষ্ঠানে তার পণ্যের প্রচারণা ঢুকিয়ে দেন যে আমরা চাইলেও মিষ্টির বিচিটা আলাদা করতে পারি না।
তবে সবচেয়ে বিপজ্জনক হলো নিউজ বিক্রি করে দেওয়া। প্রায় সব টিভির সংবাদ শিরোনাম কোনো না কোনো ব্যাংক বা টেলিফোন কোম্পানির কাছে বিক্রি করা। এখন বিপদটা হলো, সেই বুলেটিনে স্পন্সর ব্যাংক বা কোম্পানির বিপক্ষে যদি কোনো নিউজ থাকে তাহলে কী হবে? এ ধরনের স্বার্থের সংঘাত ঘটছে অহরহই। গত বছর গণজাগরণ মঞ্চ ইসলামী ব্যাংকের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অবস্থান নিয়েছিল। এখন যেসব টিভির সংবাদ শিরোনাম ইসলামী ব্যাংকের কাছে বিক্রি করা তারা সেই নিউজটি প্রচার করতে গিয়ে নিশ্চয়ই বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন। সাধারণত এসব ক্ষেত্রে স্পন্সর কোম্পানির বিরুদ্ধে কোনো নিউজ থাকলে তা ড্রপ করা হয়। আর নিতান্তই ড্রপ করা সম্ভব না হলে লো ট্রিটমেন্ট দেওয়া হয়। শুধু সংবাদ শিরোনাম নয়, নিউজ বুলেটিনে নানা সেগমেন্ট তৈরি করা হয় বিজ্ঞাপনদাতাদের চাহিদা অনুযায়ী। কত বেশি বিক্রিযোগ্য পণ্য আপনি তৈরি করতে পারবেন, তাতেই ব্যস্ত থাকে সব সৃজনশীলতা। কোনো কোনো টিভির একটি বুলেটিনে অন্তত ৮/১০টি স্পন্সরড সেগমেন্ট থাকে। একটি টেলিভিশনেই ব্যবসার সংবাদ, বাণিজ্য সংবাদ, অর্থনীতির খবর, শেয়ারবাজারের খবর—এমন বাহারি সব সেগমেন্ট থাকে। ঘুরেফিরে সব একই। কিন্তু শুধু বিক্রি করার জন্যই আলাদা আলাদা নাম। এই অতি বিজ্ঞাপন নির্ভরতার কারণে প্রায়শই সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা ক্ষুণ্ন হয়, সত্যি কথা বলা যায় না।
শুরুতেই একটি পত্রিকার জ্যাকেটবন্দী হয়ে প্রকাশিত হওয়ার কথা বলেছি। কয়েকদিন পর সেই একই পত্রিকার তৃতীয় পৃষ্ঠার অর্ধেকজুড়ে একটি বিজ্ঞাপন ছাপা হয়। তাতে দুবাইয়ে আকর্ষণীয় মূল্যে প্লট-ফ্ল্যাট কেনার অফার ছিল। বলা ছিল, ঢাকার একটি হোটেলে এর মেলা বসবে। কিন্তু সেই মেলাটি হতে পারেনি। কারণ টাকা থাকলেও বাংলাদেশের কেউ বৈধভাবে দুবাইয়ে প্লট বা ফ্ল্যাট কিনতে পারবে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের আপত্তির কারণেই মেলাটি পণ্ড হয়ে যায়। এখন যে পত্রিকায় এত বড় একটি বিজ্ঞাপন ছাপা হলো, সেই পত্রিকা কি ওই বিজ্ঞাপনের বৈধতার দায়িত্ব নেবে? সাধারণত বাংলাদেশে বিজ্ঞাপনের কনটেন্টের দায়িত্ব পত্রিকা বা টিভি কর্তৃপক্ষ নেয় না। তার মানে বাংলাদেশে আপনি টাকা থাকলে যা ইচ্ছা তাই প্রচার করতে পারবেন। কিন্তু উন্নত বিশ্বে আপনার যত টাকাই থাকুক কোনো নির্দিষ্ট ড্রিঙ্কস খেলে টলার, স্ট্রংগার, শার্পার হয়ে যাবেন; এমন বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারবেন না, যদি সেটা সত্যি না হয়। কিন্তু বাংলাদেশে টাকা থাকলে যা ইচ্ছা তাই প্রচার করা যায়। কিন্তু এটা হওয়া উচিত নয়। আগে পত্রিকায় চিঠিপত্র কলামে লেখা থাকত ‘মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়’। এখন অনেক পত্রিকাতেই এটা লেখা থাকে না। তার মানে পত্রিকায় যা কিছু ছাপা হয় তার সবকিছুর দায়-দায়িত্ব সেই পত্রিকাকেই নিতে হবে। বাংলাদেশের সব পত্রিকায় অবৈজ্ঞানিক হারবালের বিজ্ঞাপন ছাপা হয় না। অনেক পত্রিকা বা টিভি ইসলামী ব্যাংকের বিজ্ঞাপন প্রচার করে না। তার মানে বিজ্ঞাপনের ব্যাপারে তাদের বিভিন্ন পত্রিকা বা টিভির নিজস্ব সম্পাদকীয় অবস্থান আছে। যেহেতু না ছাপার অধিকার তাদের আছে। তাই যা ছাপা হচ্ছে তার দায়িত্ব তাদের নিতে হবে। বাংলাদেশে বসে যে দুবাইয়ে ফ্ল্যাট কেনা যাবে না, সেটা ওই পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে জানতে হবে। আসলে বিজ্ঞাপনও এক ধরনের নিউজ। বিজ্ঞাপন থেকেও মানুষ তথ্য সংগ্রহ করে। একসময় ইত্তেফাকে বিজ্ঞাপন দেখে মানুষ সিনেমা দেখার সিদ্ধান্ত নিত। অনেক সাধারণ মানুষ বিজ্ঞাপন আর নিউজের পার্থক্যটা ধরতে পারে না। আমি অনেক মানুষকে তর্ক করতে দেখেছি, আমি অমুক পত্রিকায় এটা দেখেছি। কিন্তু সেই পত্রিকায় তিনি বিজ্ঞাপন দেখেছেন। অনেক বড় বড় পত্রিকায় নানা রকমের বিজ্ঞাপন ছেপে অনেকে সাধারণ মানুষকে প্রতারণা করেন। সাধারণ মানুষ বড় পত্রিকায় ছাপা দেখে নিশ্চিন্তে যোগাযোগ করে প্রতারিত হন। কিন্তু সেই পত্রিকা কিন্তু সেই বিজ্ঞাপনের দায়িত্ব নেয় না। তাই অন্তত বড় বড় পত্রিকাগুলোর উচিত বিজ্ঞাপন ছাপার আগে বিজ্ঞাপনদাতার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে নেওয়া।
তবে বিজ্ঞাপনের ব্যাপারে সবচেয়ে বিপজ্জনক দিক হলো, গণমাধ্যমের ওপর বিজ্ঞাপনদাতাদের খবরদারি বা নিয়ন্ত্রণ। যেই সাইজে বা যেভাবে দেওয়া হয় সেভাবে তো ছাপতে হয়ই, এমনকি পুরো পত্রিকা আড়াল করে হলেও। তারপরও বিজ্ঞাপনদাতারা যা বলে তা-ই শুনতে হয়। তাদের বিরুদ্ধে কোনো নিউজ ছাপা যায় না। বিজ্ঞাপনদাতারা যাই করে তা-ই নিউজ, তা-ই ছাপতে হয়। অনেক বড় বড় পত্রিকা বা টিভিতে এমন অনেক নিউজ ছাপা হয় বা প্রচার হয়, যার কোনো সংবাদমূল্য নেই। পঞ্চগড়ের কোন উপজেলায় কোন ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ওপেন হলো, তা নিয়ে পাঠকদের কোনো আগ্রহ নেই। কিন্তু সেই ব্যাংক যদি বিজ্ঞাপনদাতা হয়, তাহলে সেই সংবাদটি অবশ্যই ছাপতে বা প্রচার করতে হবে। যা ছাপা হয়, তারচেয়ে বিপজ্জনক যা ছাপা যায় না, তা। বিজ্ঞাপনদাতা কোম্পানিগুলো ভালো কিছু করলে অবশ্যই ছাপতে হবে, তার সংবাদমূল্য থাকুক আর নাই থাকুক। কিন্তু খারাপ কিছু করলে তা কোথাও ছাপা হয় না। মাঝে মাঝে অনেক বড় নিউজ হয়ে গেলেই শুধু তার ব্যতিক্রম ঘটে। তখন সেই কোম্পানি আরো বেশি বিজ্ঞাপন দিয়ে গণমাধ্যমের মুখ বন্ধ করে। বাংলাদেশের বাজারে ম্যাঙ্গো জুসের নামে যা বিক্রি হয়, তার বেশিরভাগেই যে আমের লেশমাত্র নেই, তা আমজনতা জানতেও পারে না। কারণ কোনো পত্রিকায় কখনো সেই নিউজ ছাপা হয় না। কারণ অধিকাংশ ম্যাঙ্গো জুস নির্মাতা বড় বিজ্ঞাপনদাতা। মোবাইল কোম্পানিগুলো বাংলাদেশের গণমাধ্যমের বড় বিজ্ঞাপনদাতা। তাই তারা দিনের পর দিন খারাপ সার্ভিস দিয়ে বেশি টাকা নিলেও কোনো পত্রিকায় তাদের বিরুদ্ধে এক লাইনও লেখা হয় না। রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীদের অনেক অনিয়মের খবর আপনারা ব্যক্তিগতভাবে জানেন, কিন্তু কোনো পত্রিকায় কখনো তেমন কোনো নিউজ দেখেছেন? বেশ কয়েকবছর আগে আমার এক সাবেক কর্মস্থলের কয়েকজন ভদ্রলোক আমার কাছে এলেন। তারা একটি নামী কোম্পানির কাছ থেকে ফ্ল্যাট কিনে প্রতারিত হয়েছেন। সেই কোম্পানি তাদের উত্তরার একটি প্রজেক্টের একেকটি ফ্ল্যাট ৬ জনের কাছে বিক্রি করেছে। জীবনের সর্বস্ব দিয়ে ফ্ল্যাট কিনে এখন তাদের পথে বসার জোগাড়। সাধারণত আমরা জমি-জমা সংক্রান্ত নিউজ করতে চাই না। তাতে অনেক ঝামেলা থাকে বলে। কিন্তু তাদের কথা শুনে মনে হলো, এ বিষয়টি নিয়ে নিউজ করা যায়। একজন রিপোর্টারকে অ্যাসাইনমেন্ট দিলাম। সে কয়েকদিন ঘুরে সবার সাথে কথা বলে রিপোর্ট করল। আমি তাকে বলেছিলাম, কোম্পানির মালিকের সাথে সবার শেষে কথা বলতে। আমার আশঙ্কা ছিল, মালিক জেনে গেলে রিপোর্টটি করা যাবে কিনা তা নিয়ে। যা ভেবেছি তাই। রিপোর্টার রিপোর্ট তৈরি করে দিল, শুধু অনএয়ারের অপেক্ষা। এমন সময় নির্দেশ এলো এই রিপোর্ট অনএয়ার করা যাবে না। এক লাইনের নির্দেশে এতদিনের সব পরিশ্রম মাটি। রিপোর্টার খুব কষ্ট পেলেও তাকে বোঝালাম। কিন্তু আমি নিজে খুব লজ্জা পেলাম। যারা আমার কাছে এসেছিলেন, তারা জানেন, রিপোর্টার কাজ করছে। রিপোর্টার তাদের সাথেও কথা বলেছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে কেন রিপোর্টটি অনএয়ার করা যায়নি, তা আমি তাদের কাছে ব্যাখ্যা করতে পারিনি। তারা যদি ভেবে বসেন, আমি কোম্পানি মালিকের কাছ থেকে টাকা খেয়ে রিপোর্ট কিল করেছি, তাহলে কি তাদের দোষ দেওয়া যাবে? তারা তো আমার কাছে ব্যাখ্যা চায়নি, আমিও দিইনি। এভাবে প্রতিদিন অনেক অসংবাদ পত্রিকায় ছাপা হয়। আবার অনেক সংবাদ হারিয়ে যায় অন্ধকার গহ্বরে। এভাবে বিজ্ঞাপনদাতারা এক ধরনের স্বেচ্ছাচারী ক্ষমতা ভোগ করেন। তারা যা ইচ্ছা তাই করতে পারেন, কোনো পত্রিকায় কোনো সংবাদ ছাপা হবে না। রাজনীতিবিদদের পান থেকে চুন খসলেই আমরা ঝাঁপিয়ে পড়ি। কিন্তু বিজ্ঞাপনদাতাদের অনেক অন্যায় মুখ বুজে সয়ে যাই। দেশে অনেক বড় বড় ব্যবসায়ী আছেন যারা চাইলেই একাধিক টিভি বা পত্রিকা প্রকাশ করতে পারেন। কিন্তু তারা বোঝেন, শত শত কোটি বিনিয়োগ করে একটি টিভি বা পত্রিকা প্রকাশ করার চেয়ে মাসে মাসে বিজ্ঞাপন দিলে তো বাংলাদেশের সব টিভি বা পত্রিকাই তার কথা বলবে। তাহলে একটি পত্রিকার মালিক হওয়ার মতো বোকামি তিনি কেন করবেন। পত্রিকা বা টিভির নিউজরুমের কাছে মালিকের নির্দেশ আর বিজ্ঞাপনদাতার অনুরোধ সমান গুরুত্বপূর্ণ। বিভিন্ন পত্রিকা এবং টিভিতে বিজ্ঞাপন দেয় এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা অন্তত এক শ। তার মানে বাংলাদেশে এমন এক শ কোম্পানি আছে, যার যা ইচ্ছা তা-ই করতে পারে। কারণ তারা জানে, তারা অন্যায় করলেও কোনো নিউজ হবে না। বরং গণমাধ্যম তাদের পক্ষে দাঁড়াবে। কী ভয়ঙ্কর!
গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় পণ্যের প্রচার এবং সেই প্রচারের মাধ্যমে প্রসারের জন্য। বাংলাদেশে অনেক কোম্পানির পণ্য আছে, যার যথেষ্ট প্রসার আছে, প্রসারের জন্য আর বিজ্ঞাপন দেওয়ার দরকার নেই। অনেক কোম্পানি আছে যাদের ভোক্তার চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহের সক্ষমতা নেই। তারপরও তারা দিনের পর দিন বিজ্ঞাপন দিয়ে যান। কেন? এই বিজ্ঞাপন পণ্যের প্রচারের জন্য নয়। এই বিজ্ঞাপন গণমাধ্যমের মুখ বন্ধ রাখার জন্য বা গণমাধ্যমকে হাতে রাখার জন্য। যাতে তাদের পণ্য নিয়ে কোনো নেতিবাচক রিপোর্ট ছাপা না হয়। আপনারা হয়তো এতক্ষণে বিভিন্ন উদাহরণ হাতে নিয়ে তৈরি হয়েছেন, আমার লেখা ভুল প্রমাণ করার জন্য। অমুক পত্রিকায় তো অমুক কোম্পানির বিরুদ্ধে নিউজ ছাপা হয়েছে। না, এগুলো একধরনের বিভ্রম। আমি আপনাদের নিশ্চিত করে বলছি, এমন রিপোর্ট দেখলে আপনাদের ধরে নিতে হবে, সেই পত্রিকার সাথে সেই কোম্পানির কোনো বিষয় নিয়ে ঝামেলা হয়েছে। হয়তো বিজ্ঞাপন কমে গেছে বা বিজ্ঞাপনের টাকা বাকি আছে। কয়েকদিন পরেই দেখবেন ঝামেলা মিটে গেছে। সেই পত্রিকায় সেই কোম্পানির বিজ্ঞাপন আবার ছাপা হচ্ছে। মধুরেন সমাপয়েত। এছাড়া প্রথম আলোতে বসুন্ধরার বিরুদ্ধে, কালের কণ্ঠে প্রথম আলো ও যমুনার বিরুদ্ধে, যুগান্তরে বসুন্ধরার বিরুদ্ধে নিউজ ছাপার সাথে বিজ্ঞাপনের কোনো সম্পর্ক নেই। এগুলো আরও ওপরের বিষয়। কোম্পানি টু কোম্পানি বিরোধ। রাজায় রাজায় যুদ্ধ।
এই তো গেল বিজ্ঞাপনের সমস্যা। চলুন এবার দেখি প্রিন্ট মিডিয়ার আরেক বস হকারদের দৌরাত্ম্য। আপনি যত ভালো পত্রিকাই প্রকাশ করুন না কেন, তা বিক্রি করার জন্য পুরোপুরি নির্ভর করতে হবে হকারদের ওপর। রোদ-বৃষ্টি-ঝড় যাই হোক, সকালে ঘুম থেকে উঠেই আমরা তাজা পত্রিকা পেয়ে যাই হকারদের কল্যাণে। একজন পাঠক হিসেবে হকাররা আমার অতি প্রিয়। কোনো কারণে সকালে ঘুম থেকে ওঠে পত্রিকা না পেলে আমার দিনটাই শুরু হতে চায় না। হকাররা রাত জেগে কাজ করে আমাদের দিনের শুরুটা আনন্দময় করে তোলার জন্য। কিন্তু এই হকারদের কাছেই জিম্মি পত্রিকার প্রকাশকরা। হকারদের ব্যবসার কোনো পুঁজি নেই। হকারদের চাহিদামত দেশের যে কোনো প্রান্তে নিজ খরচে তাদের হাতে পত্রিকা পৌঁছে দিতে হয়। বিক্রির পর হকাররা তাদের কমিশন রেখে বাকি টাকা এবং অবিক্রিত পত্রিকা ফেরত দেন। তবে ঢাকার বাইরের অনেক হকারের কাছ থেকে টাকা এবং অবিক্রিত পত্রিকা পেতে মাসের পর মাস অপেক্ষা করতে হয়। কখনো কখনো হকাররা শুধু বলে দেন, এত কপি বিক্রি হয়েছে। আসলেই কত কপি বিক্রি হয়েছে, তা জানার সুযোগ থাকে না, হকারদের কথার ওপর বিশ্বাস রাখতে হয়। বড় পত্রিকাগুলো হয়তো নিয়মিত ঢাকার বাইরের হকারদের কাছ থেকে টাকা পান। কিন্তু ছোট ছোট পত্রিকাকে টাকার জন্য দিনের পর দিন ধর্ণা দিতে হয়। অনেক সময় পাওয়াই যায় না। কোনো কারণে পত্রিকা বন্ধ হয়ে গেলে হকারদের লাভ ষোলো আনাই। নব্বই দশকের শুরুতে আমি একাধিক সাপ্তাহিক পত্রিকায় কাজ করেছি। যেগুলো পরে বন্ধ হয়ে গেছে। সেই পত্রিকার পাওনা টাকা আর কখনোই আদায় করা যায়নি। হকাররা চাইলে একটি পত্রিকাকে পুরোপুরি ভাসাতে না পারলেও ডুবাতে পারেন। কমিশন বেশি পেলেই হকাররা কম চালু পত্রিকাও সামনে রাখে এবং পাঠকদের সেই পত্রিকা কেনার জন্য অনুরোধ করে। আর কোনো কারণে পত্রিকা কর্তৃপক্ষের সাথে বনিবনা না হলে সেই পত্রিকাটি আড়ালে রাখা হয়। পাঠকরা কিনতে চাইলে বলে নেই বা শেষ হয়ে গেছে। আর দিন শেষে পত্রিকার প্রকাশকদের বলে, ধুর মিয়া কী পত্রিকা বাইর করছেন, চলে না। অনেকে অনেকবার হকারদের নেটওয়ার্কের বাইরে গিয়ে পত্রিকা বিক্রি চেষ্টা করেছেন এবং অবশ্যই ব্যর্থ হয়েছেন। জনকণ্ঠের যখন রমরমা অবস্থা, তখন একবার হকারদের সাথে ঝামেলা করে জনকণ্ঠ বিকল্প ব্যবস্থায় পত্রিকা বিক্রি শুরু করে। সেই থেকে জনকণ্ঠের পতন শুরু। এটা সবাই জানেন বলেই, পত্রিকা অফিসে হকাররা ভিআইপি মর্যাদা পান। হকারদের বড় নেতা অফিসে এলে স্বয়ং সম্পাদক তাকে আপ্যায়িত করেন। প্রায়শই পত্রিকা কর্তৃপক্ষ হকারদের নানা গিফট দেন। ঢাকায় এনে আপ্যায়ন করেন। টিভি এবং অনলাইনের এই দাপটের সময়েও ছাপার পত্রিকা বছরে ৩৬৫ দিন প্রকাশ করা যায় না হকারদের জন্য। নির্ধারিত ছুটির দিনে পত্রিকা প্রকাশ করা হলে হকাররা তা বিক্রি করবেন না। আর বিক্রি না হলে পত্রিকা প্রকাশ করে লাভ কি। তাই ছুটির দিনে অধিকাংশ পত্রিকার অনলাইন ভার্সন চালু থাকলেও, কর্তৃপক্ষের ইচ্ছা থাকলেও হকারদের আপত্তির কারণে পত্রিকা প্রকাশ করা যায় না। হকারদের যে কোনো অনুরোধ রাখে পত্রিকা কর্তৃপক্ষ।
প্রিন্ট মিডিয়ার যেমন হকার, ইলেকট্রনিক মিডিয়ার তেমনি ক্যাবল অপারেটর। হকারদের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী ক্যাবল অপারেটররা। হকাররা তবু পত্রিকা বিক্রি করে টাকা দেয়। কিন্তু ক্যাবল অপারেটররা গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিলেও টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকে কোনো টাকা দেন না। টাকা তো দেনই না, উল্টো গোপনে টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ ক্যাবল অপারেটরদের উেকাচ দেন। নিয়মিত গিফট, ঢাকায় ডেকে আপ্যায়ন, যেকোনো অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ—সবকিছুতেই অপারেটররা অগ্রাধিকার পান। পত্রিকা অফিসে হকাররা ভিআইপি, আর টিভি অফিসে ক্যাবল অপারেটরা ভিভিআইপি। নিয়মিত তাদের সন্তুষ্ট রাখতে হয়। মাঝে মাঝেই আবদার আসে অমুক জেলায় ক্যাবল অপারেটরদের অফিসে টেলিভিশন বা সোফা সেট কিনে দিতে হবে। এখন যেহেতু দেশে প্রায় ২৬টি টিভি। তাই দেশের যে কোনো প্রান্তে ক্যাবল অপারেটররা কিছু করলেই টিভি স্টেশনগুলো প্রতিযোগিতা করে তাদের পাশে দাঁড়ায়। ক্যাবল অপারেটররা সন্তুষ্ট থাকলেই টিভির উন্নতি। মোটামুটি মানের অনুষ্ঠান আর ক্যাবল অপারেটরদের বদৌলতে প্রাইম ব্যান্ড মানে ১ থেকে ১৫এর মধ্যে থাকতে পারলেই টিভির উন্নতি অবধারিত। কারণ পাঠক যদি গিয়ে কোনো একটি পত্রিকা কিনতে চায়, সামনে রাখুক আর পিছনে রাখুক হকারদের শেষ পর্যন্ত তা বিক্রি করতেই হয়। কিন্তু ক্যাবল অপারেটররা চাইলে একটি টিভি স্টেশনকে অনায়াসে ডুবিয়ে দিতে পারেন। কোনো টিভি স্টেশন টাকা না দিলে বা কোনো বিষয়ে বনিবনা না হলে ক্যাবল অপারেটররা সেই স্টেশনকে ৮৯ নম্বরে দিয়ে দেন। ব্যস, সেই টিভিকে ধ্বংস করার জন্য আর কিছুই লাগে না। টিভিতে যত ভালো অনুষ্ঠানই থাকুক কোনো দর্শকই ৮৯ নম্বরে খুঁজে তা দেখবে না। ৮৯ পর্যন্ত যেতে যেতে আরো অনেক ভালো অনুষ্ঠানে আটকে যান দর্শকরা। ঝামেলা বেশি হলে কখনো কখনো একেবারেই অফ করে দেন অপারেটররা। যার পণ্য বিক্রি করে আপনি ব্যবসা করছেন, তার কাছেই আপনার কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। কিন্তু আমাদের এখানে উল্টো।
টেলিভিশন মালিকদের নাকে দড়ি দিয়ে ঘোরানোর আরেকটি কায়দা আছে—টিআরপি। ‘সিরিয়াস’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে টেলিভিশন স্টেশনগুলোর দর্শকপ্রিয়তা যাচাই করে। প্রতি সপ্তাহে টেলিভিশন রেটিং পয়েন্ট-টিআরপি প্রকাশ করে। টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ এবং বিজ্ঞাপনদাতারা অনেক টাকা দিয়ে এই টিআরপির রিপোর্ট কেনে। কিন্তু সাধারণ দর্শকরা এই টিআরপি রিপোর্ট দেখার সুযোগ পান না। বিজ্ঞাপনদাতারা এই টিআরপি রিপোর্ট দেখেই বিজ্ঞাপন দেন। তাই এই টিআরপি রিপোর্ট টিভি স্টেশনগুলোর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এই মহাগুরুত্বপূর্ণ টিআরপি রিপোর্ট কিভাবে তৈরি হয় শুনলে আপনারা হাসতে হাসতে মরে যাবেন। ১৬ কোটি মানুষের এই দেশে মাত্র ২৬০টি বাসার দর্শকদের পছন্দ মনিটর করেই তৈরি হয় এই টিআরপি। তাও কোন ২৬০টি বাসা তা ‘সিরিয়াস’ ছাড়া আর কেউ জানে না। ভুতুরে সেই ২৬০ জন দর্শকই নির্ধারণ করেন টিভি স্টেশনের ভাগ্য। এবং এই ২৬০ জনের সবাই ঢাকার। তার মানে ঢাকার বাইরের মানুষ টিভি দেখল কি দেখল না তাতে টিভি স্টেশনের মালিকদের কিছুই যায় আসে না। হাস্যকর বললাম এই কারণে যে, প্রতি সপ্তাহেই টিআরপি রিপোর্ট দেখার সুযোগ হয় আমার। এমন অনেক টিভি টিআরপি এগিয়ে থাকে, যা আপনারা হয়তো কখনোই দেখেননি। অভিযোগ আছে সিরিয়াস প্রায়শই এই টিআরপি রিপোর্ট ম্যানিপুলেট করেন। সিরিয়াসকে সন্তুষ্ট করতে পারলে দর্শক দেখুন আর না দেখুক যে কোনো টিভি টিআরপিতে এগিয়ে থাকতে পারে।
প্রিয় পাঠক, এই হলো বাংলাদেশে স্বাধীন গণমাধ্যমের চিত্র। হা হা হা। হাত পা বেধে সাঁতার কাটা অনেক আনন্দের। আমরা গণমাধ্যম কর্মীরা সেই আনন্দ উপভোগ করছি প্রতিদিন। আর দিন গুণছি, কবে সত্যি সত্যি সত্যিকারের স্বাধীন গণমাধ্যম পাবো।

এই পাতার আরো খবর -
font
আজকের নামাজের সময়সূচী
আগষ্ট - ১৯
ফজর৪:১৬
যোহর১২:০৩
আসর৪:৩৭
মাগরিব৬:৩২
এশা৭:৪৮
সূর্যোদয় - ৫:৩৫সূর্যাস্ত - ০৬:২৭
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: ittefaq.adsection@yahoo.com, সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: ittefaqpressrelease@gmail.com
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :