The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ২ ফাল্গুন ১৪২০, ১৩ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ গোপালগঞ্জে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৫, আটক ১১ | ২-০ তে সিরিজ জিতল লঙ্কানরা | লন্ডনে বাংলাদেশি নারী খুন, ছেলে গ্রেফতার | যশোরের অভয়নগরে চৈতন্য হত্যার আসামি 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত

মহান ভাষার মাসে জেলাভিত্তিক বিশেষ আয়োজন

আমাদের শহীদ মিনার : কিশোরগঞ্জ জেলা

সুবীর বসাক, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

১৯৪৮ সালে জিন্নাহর রাষ্ট্র ভাষা হিসাবে উর্দুকে বাঙালির ঘাড়ে চাপিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ঢাকার রাজপথ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। সেই উত্তাপের ঢেউ এসে কিশোরগঞ্জেও আছড়ে পড়ে। সে সময়কার তুখোড় ছাত্রনেতা আবু তাহের খান পাঠানের নেতৃত্বে ছাত্র-জনতা সংগঠিত হতে থাকে। উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কিশোরগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গন। ছোট-বড় অসংখ্য মিছিলের পদভারে কেঁপে উঠে ছোট্ট মফস্বল শহরের অলি-গলি। ১৯৫১ সালের নভেম্বর মাসে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে সর্বপ্রথম কিশোরগঞ্জে সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয়। গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদের তত্কালীন জিএস মহিউদ্দিন আহমদকে (মুক্তিযুদ্ধে শহীদ) সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক নির্বাচিত করা হয়। রাজপথের আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন ছাত্র সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু তাহের খান পাঠান। তাছাড়াও আশরাফউদ্দিন মাস্টার, আমিনুল হক, আবদুল হামিদ বিএসসি এবং সুন্দর আলীসহ আরো অনেক ছাত্র-যুবক মহকুমা সদরে ভাষা আন্দোলনকে বেগবান করতে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছিলেন। তাদের সাথে অন্য যে সকল তরুণ যোগ দিয়েছিলেন তাদের মধ্যে হেদায়েত হোসেন, ফুলে হোসেন, আব্দুস সোবহান, মুহাম্মদ আবু সিদ্দীক, মাহফুজুল হাকিম সিতু, নজরুল ইসলাম, হোসাইন আহম্মদ, আব্দুস সাত্তার প্রমুখ অন্যতম। গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদের তত্কালীন ভিপি ফজলুল হক এবং এজিএস আ.ফ.ম শামছুল হুদা, খুরশিদউদ্দিন, শহীদুল হক, মাসুদুল আমেন খান, আবদুল মতিন, আবু নাঈম, শফিকুল হোসেন খান, আনিছুর রহমান ছাড়াও মোহাম্ম্দ আলী, কুতুবউদ্দিন এবং স্কুলছাত্র আ. মান্নান, আবু খালেদ পাঠান, মিছিরউদ্দিন আহমেদের ভূমিকাও অগ্রগণ্য। এসভি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী বেগম রাজিয়া হোসাইন, হেনা বেগম ও সুনীতি দেবীও ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন।

১৯৫৩ সালে প্রধানমন্ত্রী নূরুল আমিন মুসলিম লীগের এক নির্বাচনী সভায় যোগদানের জন্য কিশোরগঞ্জ শহরে এলে আবু তাহের খান পাঠানের নেতৃত্বে তাকে কালো পতাকা প্রদর্শন করা হয়। 'রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই' আন্দোলনকে দমানোর জন্য একদিকে নূরুল আমিনের পুলিশবাহিনী, অন্যদিকে মুসলিম লীগ কর্মী এবং ন্যাশনাল গার্ড নামধারী স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর গুণ্ডাদের অনেক নিপীড়ন আন্দোলনকারীদের ভোগ করতে হয়েছে। গ্রেফতার হয়ে কারান্তরীণ হতে হয়েছে আশরাফউদ্দিন মাস্টার, এ কে খোরশেদ আহমদ(পাকুন্দিয়া), গোলাম মোস্তফা চৌধুরী(ভৈরব), আবু লায়েছ, গঙ্গেশ সরকার, ডা. সফিউদ্দিন(দেওয়ানগঞ্জ, করিমগঞ্জ) ও মিছিরউদ্দিন আহমেদসহ অনেক নেতা-কর্মীকে। সে সময় শামসুল ইসলাম হায়দার নামে এক শিল্পী ভরাট গলায় রাজপথে সংগীত পরিবেশন করে আন্দোলনে অংশগ্রহণকারীদের উজ্জীবিত করে রাখতেন।

১৯৬৩ সালে কিশোরগঞ্জ শহরে প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপিত হয়। সে বছরই আবু তাহের খান পাঠানের নেতৃত্বে বের করা হয় প্রভাত ফেরি। প্রভাত ফেরিতে বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী নারায়ণ সরকারের লেখা ও অশ্বিনী রায়ের সুর করা কয়েকটি সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। সেদিন সুরের মূর্ছনায় শহরে একটি শোকবিহ্বল পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছিল। প্রভাত ফেরিটি কিশোরগঞ্জ স্টেডিয়ামে নির্মিত একটি প্রতীকী শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মধ্যদিয়ে শেষ হয়েছিল। সেখানে সমবেত হয়েছিল হাজার হাজার লোক। সেই থেকে কিশোরগঞ্জে প্রভাত ফেরির যাত্রা শুরু।

কিশোরগঞ্জ শহরে প্রথম শহীদ মিনার নির্মিত হয় গুরুদয়াল কলেজ মাঠে ১৯৬৬ সালে। এই শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য সে সময় গুরুদয়াল কলেজের ফান্ড থেকে মোট ৭শ' টাকা ব্যয় করা হয়েছিল। নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন সর্বজনশ্রদ্ধেয় অধ্যক্ষ মো:ওয়াসিমুদ্দিন। শহীদ মিনার নির্মাণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন তত্কালীন ছাত্র সংসদের ভিপি এবং বর্তমান রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট মো.আবদুল হামিদ। সেই শহীদ মিনারে সাদা মার্বেল পাথরে খোদাই করে একটি কবিতাও উত্কীর্ণ করা হয়েছিল। সেই কবিতাটি ঢাকার আবদুর রউফ নামক জনৈক ছাত্রনেতার লেখা। মো. আবদুল হামিদ শ্বেতপাথরে খোদাই করে নবনির্মিত শহীদ মিনারে সেই কবিতাটি স্থাপন করেছিলেন। একাত্তর সালে পাকবাহিনী সেই শহীদ মিনারটি গুঁড়িয়ে দিয়েছিল। স্বাধীনতার পর ছাত্র সংসদের ভিপি নূরুল ইসলাম নূরুর নেতৃত্বে শহীদ মিনারটি পুনঃনির্মিত হয়। সেই থেকে প্রতিবছর একুশের প্রথম প্রহর থেকে জনতার ঢল নামে এবং শহীদ ভাষা সৈনিকদের স্মরণে সকলের মস্তক শ্রদ্ধায় অবনত হয়।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, 'উপজেলা নির্বাচনেও ভাগ বাটোয়ারার ষড়যন্ত্র করছে আওয়ামী লীগ।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
9 + 5 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
অক্টোবর - ২২
ফজর৪:৪৪
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫০
মাগরিব৫:৩০
এশা৬:৪৩
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৫
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :