The Daily Ittefaq
ঢাকা, শনিবার, ০৮ মার্চ ২০১৪, ২৪ ফাল্গুন ১৪২০, ০৬ জমা. আউয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ২৩৯ যাত্রী-ক্রুসহ মালয়েশীয় নিখোঁজ বিমানটি ভিয়েতনাম সাগরে বিধ্বস্ত | বগুড়ার আদমদিঘীতে সুড়ঙ্গ খুঁড়ে সোনালী ব্যাংকের ৩০ লাখ টাকা লুট | এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কা অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন | নিজেরাই অধিকার আদায় করুন : নারীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী

চা আমদানিতে ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক পুনর্বহালের দাবি

ইত্তেফাক রিপোর্ট

দেশিয় চা শিল্পের অস্তিত্ব রক্ষায় চা আমদানির ওপর পূর্বের আরোপিত ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক পুনর্বহালের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ চা সংসদ। সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে সাক্ষাত্ করে চা সংসদের নেতারা এ দাবি জানান।

বাংলাদেশ চা সংসদের চেয়ারম্যান মো. সাফওয়ান চৌধুরী জানিয়েছেন, চা শিল্পের অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে আমদানির ওপর ইতিপূর্বে আরোপিত ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করায় নিম্নমানের সস্তা চা আমদানি অব্যাহত আছে। অবাধ আমদানি বৃদ্ধির ফলে চলতি নিলাম মৌসুমে (২০১৩-১৪) আশঙ্কাজনকভাবে চায়ের দরপতন হচ্ছে। বাংলাদেশের চা শিল্প অসম প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হচ্ছে। জানা গেছে, প্রতিবেশী দেশ ভারত পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্ চা উত্পাদনকারী দেশ। সেখানে চা শিল্পের স্বার্থ রক্ষার্থে চা আমদানির ওপর মোট ১১০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় আমাদের দেশের চা শিল্প রক্ষার্থেও শুল্ক আরোপের দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

প্রসঙ্গত, চা সংসদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অর্থ মন্ত্রণালয় ২০১১ সালে চা আমদানির ওপর ২৫ শতাংশ রেগুলেটরি শুল্ক আরোপ করে। পরবর্তীতে সরকার রেগুলেটরি ডিউটি ৫ শতাংশ কমিয়ে ২০ শতাংশ করে, যা ২০১৩ সালে প্রস্তাবিত অর্থ আইনেও বহাল ছিল। কিন্তু ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বাজেট পাশের ঠিক আগে আকস্মিভাবে ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক অর্থ আইন ২০১৩ থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। এতে দেশিয় উত্পাদনকারীরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন।

তথ্যমতে, ২০১০ সালে চা আমদানি হয়েছে ৪ দশমিক ১৩ মিলিয়ন কেজি। আর ২০১১ সালে হয়েছে ৪ দশমিক ৯৮ মিলিয়ন কেজি। আর ২০১২ সালে সম্পূরক শুল্ক থাকায় আমদানি হরাস পেয়ে ১ দশমিক ৯২ মিলিয়ন কেজিতে দাঁড়ায়। কিন্তু ২০১৩ সালে এ শুল্ক প্রত্যাহার করায় আমদানি কয়েকগুণ বেড়ে ১০ দশমিক ৬২ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে।

জানা গেছে, অবাধ আমদানি বৃদ্ধির কারণে চলতি নিলাম মৌসুমে (৩০-০৪-২০১৩) অনুষ্ঠিত ১ম সেলে যেখানে গড় নিলাম মূল্য ছিল প্রতিকেজি ২৭৪ দশমিক ৯৮ টাকা। সেখানে গত (১৮-০২-২০১৪) অনুষ্ঠিত ৩৯তম সেলে দর পতনের কারণে গড় নিলাম মূল্য দাঁড়ায় ১৪৩ দশমিক ১২ টাকা। তদুপরি প্রতি সেলে ৫০ শতাংশ থেকে ৬০ শতাংশ চা অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে বিক্রয় মূল্য উত্পাদন ব্যয়ের অনেক নিচে যাবে এবং চা শিল্পে মারাত্মক ক্ষতি হবে।

সর্বশেষ আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, 'উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিএনপি সরকারকে স্বীকৃতি দিয়েছে।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
3 + 1 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ২১
ফজর৪:৫৮
যোহর১১:৪৫
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :