The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৩, ০২ পৌষ ১৪২০, ১২ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ সাতক্ষীরায় যৌথ বাহিনীর অভিযানে নিহত ৫ | পেট্রোল বোমায় আহত অটোরিকশা চালকের মৃত্যু | আলোচনার মাধ্যমে সংবিধানের মধ্যে থেকে নির্বাচন : হানিফ | গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলনে জনগণের বিজয় হবে : ফখরুল | পরাজিত শক্তি জাতিকে বিভক্ত করতে তত্পর : তোফায়েল | আবার ৭২ ঘণ্টার অবরোধ | সিরিরায় বিমান হামলায় নিহত ২২ | চীনের জিনজিংয়াংয়ে সংঘর্ষে ২ পুলিশসহ নিহত ১৬

উন্নয়নশীল বিশ্ব ও গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা

ন তু ন প্র জ ন্মে র ভা ব না

গণতান্ত্রিক অধিকার বিলিয়ে

দিতে পারলেই বজায় থাকবে

গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা

শব্দগত অর্থ গণতন্ত্র হলো জনগণের শাসন। অর্থাত্ গণতন্ত্র এমন এক শাসন ব্যবস্থা যেখানে জনগণের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে শাসনকার্যে অংশগ্রহণ করে। জনগণের সম্মতির ভিত্তিতে গণতান্ত্রিক সরকার গঠিত ও পরিচালিত হয়। এতে প্রত্যেক নাগরিকের স্বাধীন মতামত প্রকাশের অধিকার স্বীকৃত এবং এতে আইনের শাসন ও ব্যক্তি স্বাধীনতার প্রাধান্য দেয়া হয়। আমাদের এই উন্নয়নশীল দেশের গণতন্ত্রের চর্চা খুবই আবশ্যক হয়ে পড়েছে। অর্থাত্ আমরা যে গণতন্ত্রের কথা বলছি তা সম্পর্কে সমগ্র ধারণা থাকা প্রয়োজন। আমরা যে শাসন ব্যবস্থার মধ্যে পরিচালিত হতে যাচ্ছি তা সত্যিকার অর্থে গণতন্ত্র নয়, এটাকে আমরা সর্বাত্মকবাদী শাসন ব্যবস্থা বলতে পারি। আমাদের দেশের রাজনীতিবিদরা কতটা গণতন্ত্রবাদী, কতটা গণতান্ত্রিক, কতটা গণতন্ত্রপটু, আমরা জনগণ তা যে জনগণ সকল ক্ষমতার উত্স, সেই জনগণ আজ জিম্মি হয়ে আছে আমাদের কিছু রাজনৈতিক দলের কাছে। আজ আমরা চাই সেই গণতন্ত্র, যে গণতন্ত্রে আসবে দেশপ্রেমী, মানবপ্রেমী, কল্যাণপ্রেমী, সামপ্রদায়িকতাহীন মানুষ, যাকে আমরা সত্যিকার অর্থে "রাজনীতিবিদ বা রাষ্ট্রনায়ক" বলতে পারি। যারা আমাদের নিয়ে যাবে উন্নতির শীর্ষে, পরিচয় করিয়ে দিবে আমাদের দেশটাকে উন্নত বিশ্বের সাথে। প্রচলিত হোক ভাল রাষ্ট্রনায়কের ভালো রাষ্ট্রনীতি। আবির্ভাব ঘটুক একদল ভালো ও জ্ঞানী মানুষের। "গণতন্ত্র" শব্দটি শুধুমাত্র ব্যবহার না করে গণতান্ত্রিক অধিকারটি বিলিয়ে দিবে আমাদের মাঝে আর বজায় রাখবে গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা।

রফিকুল ইসলাম রাসেল

বিএসএস (স্নাতক)

আবুজর গিফারী কলেজ, ঢাকা।

উন্নয়নশীল বিশ্ব ও আমাদের সমসাময়িক গণতন্ত্র

দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য কোনো দরদ নেই। সবাই যার যার আখের গুছাতে ব্যস্ত। হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য বিসর্জন দিচ্ছেন নিজেদের স্বকীয়তা, আত্মসম্মান। ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে গোটা জাতির আত্মমর্যাদা-আত্মসম্মান। ক্ষুণ্ন হছে বহির্বিশ্বের কাছে আমাদের দেশের ভাবমূর্তি। নিজের 'মাকে' নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রূপ কিংবা উপহাস-পরিহাস করবে এটা কেউ কি প্রত্যাশা করে? অথচ আমাদের দেশের তথাকথিত রাজনীতিবিদরা প্রতিনিয়ত নিজের মাতৃভূমিকে অন্যের কাছে পরিহাসের পাত্র বানিয়ে যাচ্ছেন! কী ফায়দা এই রাজনীতির-রাজনীতিবিদদের? ধিক্কার জানাই সেই রাজনীতিকে, যে রাজনীতিতে জনকল্যাণ নেই, গণমানুষের কথা নেই, দেশের সম্পদের প্রতি মায়া নেই এবং সর্বোপরি শ্রদ্ধা-ভালবাসা নেই দেশ-মাতৃকার প্রতিটি ধূলিকণার জন্য। তাই দেশ ও জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে আমাদের দেশের তথাকথিত রাজনীতিবিদদেরকে তাঁদের ক্ষুদ্র স্বার্থ বিসর্জন দিতে অনুরোধ করছি। সাথে সাথে সবার কাছে উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি, আসুন দেশটাকে নিজের পরিবার মনে করি। পরিবারের কোনো সদস্যের ব্যথায় যেমন আমরা ব্যথিত হই, তেমনি আনন্দে উল্লসিতও হই। আসুন কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে গড়ি আমাদের সোনার বাংলা। ভবিষ্যত্ প্রজন্মের জন্য সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ রেখে যাই।

মো. ইয়ামিন মাসুম

বিবিএ (সম্মান), ৪র্থ বর্ষ

ব্যবস্থাপনা বিভাগ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা

বজায় রাখতে গণতান্ত্রিক

মনোভাব গড়ে তুলতে হবে

আজ গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য উদগ্রিব সাধারণ মানুষ। তারা রাজপথে রক্ত ঢালছে। রক্ত কখনো শান্তি আনতে পারে না। জনগণকে ভালবাসতে শিখতে হবে। জনগণের স্বার্থকে গুরুত্ব দিতে হবে। গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা করতে সর্বাগ্রে নিজেদের মধ্যে গণতান্ত্রিক মনোভাব গড়ে তুলতে হবে। রাজনীতিবিদদের প্রধান হাতিয়ার হচ্ছে সমালোচনা। এটা একজন রাজনীতিবিদের নীতি হতে পারে না। অন্যে কি ভুল করে সেটা জনসমক্ষে প্রচার না করে আমি কি পারি সেটা বলাই উত্তম। আব্রাহাম লিঙ্কন বলেন— 'কারো সমালোচনা করো না, তাহলে নিজেও সমালোচিত হবে। সমালোচনা, নিন্দা আর অপবাদ সবচেয়ে সহজ কাজ তা যেকোন মূর্খই পারে। অপরকে বুঝতে পারা আর ক্ষমাশীলতা পেতে গেলে দরকার চারিত্র্যিক দৃঢ়তা আর আত্মসংযম যা রাজনীতিবিদের মধ্যে নেই। যতদিন বাংলাদেশ থেকে সমালোচনা আর কুত্সা রটনার রাজনীতি দূর না হবে ততদিন এ দেশে শান্তি আসবে না।

শরীয়তুল্লাহ

সরকারি হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল, কলেজ

মিরপুর-১৪, ঢাকা।

দেশের উন্নয়নের জন্য গণতন্ত্র রক্ষা করা অপরিহার্য

যে কোন দেশের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে যে বর্তমান সময়ে গণতন্ত্র হারাতে বসেছে। যার ফলে কমবেশি প্রতিটি দেশে অশান্তির আগুন জ্বলে ওঠে। রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের একগুঁয়েমির কারণে এ ক্ষমতার সিংহাসনে যাওয়ার জন্য গণতন্ত্রকে অনেক রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীরা গলা টিপে হত্যা করেছে। যার ফলে দেশের উন্নয়নের পরিবর্তে ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে। গণতন্ত্র হচ্ছে জনগণের কল্যাণের জন্য কিন্তু গণতন্ত্র দ্বারা দেশের মানুষের তেমন উন্নয়ন লক্ষ্য করা যায় না। কারণ রাজনৈতিক নেতারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বলেও তারা নিজেদের ক্ষমতা প্রয়োগ করে থাকে। যার ফলে সাধারণ মানুষের স্বপ্ন ধূলিসাত্ হয়ে যায়। উন্নয়নের পথে বাধা সৃষ্টি হয়। মানুষের জীবনকে বলি দিতে হয়। অর্থনৈতিক সমস্যা জর্জরিত হয়ে সংসার জীবনে দুঃখের কালো ছায়া নেমে আসে। তাই আমরা প্রত্যাশা করি, জনগণের কল্যাণের জন্য গণতন্ত্রকে রক্ষা করা প্রতিটি রাজনৈতিক দলের উচিত। তাহলে দেশের উন্নয়ন হবে। দেশের সাধারণ মানুষ রাজনীতিকে সম্মানের চোখে দেখবে।

মো. আব্দুর রহমান সুমন

সরকারি তোলারাম কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়

নারায়ণগঞ্জ B.S.S.

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. নাসিম বলেছেন, 'বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হওয়া সুখবর না হলেও সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে নির্বাচন করতে হচ্ছে'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
6 + 1 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
অক্টোবর - ১৮
ফজর৪:৪১
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫২
মাগরিব৫:৩৪
এশা৬:৪৫
সূর্যোদয় - ৫:৫৭সূর্যাস্ত - ০৫:২৯
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :