The Daily Ittefaq
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৩, ১৭ পৌষ ১৪২০, ২৭ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা | ৩ জানুয়ারি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

[ আ ন্ত র্জা তি ক ]

ভারত নিজের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন

অপর্ণা পাণ্ডে

যুক্তরাষ্ট্র কি ভারতের সাথে কৌশলগত অংশীদারিত্বের ধারণা পরিত্যাগ করেছে? সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও কেন্দ্রীয় এশিয়া বিষয়ক নতুন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা বিসওয়াল ওয়াশিংটন ডিসিতে বিদেশি সাংবাদিকদের যা শোনালেন তাতে এমনটিই মনে হলো। তিনি বলেন, 'আমি ক্যাপিটল হিল, ইউএসএইড এবং জনহিকর ও ডেভেলপমেন্ট কমিউনিটির সাথে দীর্ঘদিন কাজ করার অভিজ্ঞতা নিয়ে এখানে এসেছি। দক্ষিণ এবং মধ্য এশিয়া অঞ্চলে এই গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে কিভাবে সেটি প্রয়োগ করব, আমার পূর্ব অভিজ্ঞতা আমাকে সেই বিবেচনাবোধ প্রদান করেছে। রাজনৈতিক ক্রান্তিকালে ওই অঞ্চলজুড়ে আমরা প্রতিষ্ঠিত এবং নবীন গণতান্ত্রিক সরকারগুলো এবং সুশীল সমাজের সাথে কাজ করে চলেছি। আমরা সামগ্রিক এবং অংশগ্রহণমূলক রাজনৈতিক প্রক্রিয়াকে সমর্থন জানিয়ে যেতে চাই। এসব দেশের জাতিগত এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর অধিকারের প্রতি সমর্থন জানিয়ে যেতে চাই।

জাতীয় নিরাপত্তা পরিকল্পনাবিদ, কূটনীতিক এবং সামরিক নেতৃত্বদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ বন্ধনের উপর একটি কৌশলগত অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠিত হতে পারে। সুশীল সমাজ যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমন গুরুত্বপূর্ণ সংস্কৃতি বিনিময়। কিন্তু মিসেস বিসওয়াল যদি মনে করেন কেবল ভারতের সুশীল সমাজের প্রতি সমর্থনের ভিত্তিতে দুই দেশের কৌশলগত অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠিত হতে পারে তবে তিনি ভুল করছেন।

এটা উল্লেখ্য যে, ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার সম্পর্ক নির্দিষ্ট বিরতিতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ইস্যুতে অবনতি হয়েছে। আমাদের মনে হয় আবারো তেমন পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে ভারতের পররাষ্ট্রনীতি উল্লেখযোগ্যভাবে স্থিতিশীল। অপরদিকে, মার্কিনীরা প্রতিটি নির্বাচনের পর কিংবা সিনিয়র অফিসার বদলের পর নীতি পরিবর্তন করে থাকে।

গত বছর মিসেস বিসওয়ালের পূর্বসূরি রবার্ট ব্লেক ভারতের সম্ভাবনাকে গুরুত্ব দিতে শুরু করেন। কারণ, ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার সমন্বয়কারী কর্মকর্তারা এশিয়া মহাদেশে চীনকে মোকাবিলায় ভারতের ভূমিকার গুরুত্ব যুক্তরাষ্ট্রকে বোঝাতে সক্ষম হন। এগুলো অবশ্যই কৌশলগত ইস্যু। ১৯৯০ এর দশক থেকে অর্থনীতি কিংবা নিরাপত্তা থেকে শুরু করে প্রতিটি ইস্যুতে ভারত-মার্কিন সম্পর্ক দৃঢ় হয়েছে। যৌথ গণতান্ত্রিক স্বার্থ সেগুলোকে আরো জোরালো করেছে। দেশ দুইটির দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যিক অংশীদারিত্ব এখন ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি এবং এটা দিন দিন আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা, প্রতিসন্ত্রাস এবং সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে সহযোগিতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। দুই দেশ সংস্কৃতি, গণতন্ত্র এবং বহুমতের রাজনীতির সমর্থক।

যদিও ভারতের বর্তমান অর্থনীতি কিছুটা মন্থরগতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তবুও এর ভবিষ্যত্ সম্ভাবনা বিশাল। ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি থেকে মার্কিন কোম্পানিগুলো লাভবান হতে চায়। গ্রীন এনার্জির ক্ষেত্রে যৌথ বিনিয়োগ দুই দেশের বন্ধন শক্তিশালী হবার আরেকটি ক্ষেত্র। এছাড়া কৃষির উত্পাদনশীলতা, জলবায়ু, শস্য গবেষণা নিয়ে মার্কিন বিনিয়োগও ভারতের সাথে বন্ধন সুদৃঢ় করেছে। কয়েক দশক ধরে ভারতের নীতিনির্ধারকরা মার্কিন নীতিকে নজরদারি করে আসছে, বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়াতে ভারতের একক আধিপত্যের ভারসাম্য হিসেবে ওয়াশিংটনের পাকিস্তানকে সমর্থন করার নীতির প্রতি বিশেষ নজর রাখছে। বুশ প্রশাসন থেকে শুরু করে অপরাপর মার্কিন কর্মকর্তারা মন্তব্য করেছেন যে, ভারত উদীয়মান বিশ্বশক্তি।

দুই দেশের সেনা থেকে সেনা বন্ধন আছে, যার মাধ্যমে অস্ত্র ক্রয়-বিক্রয়, সাইবার এবং মহাকাশ প্রতিরক্ষার মতো যৌথ স্বার্থ সংরক্ষিত হয়। ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্র উভয়ই স্থিতিশীল আফগানিস্তান দেখতে চায় এবং উভয় দেশ তালেবান, আল-কায়েদা, লস্কর ই তাইয়েবা এবং এজাতীয় সব ইসলামী জঙ্গি সংগঠনের ভয়ে ভীত। ভারত সব সময় বলে আসছে যে, সে স্থিতিশীল এবং গণতান্ত্রিক পাকিস্তান দেখতে চায় এবং এই অঞ্চলের শান্তি আনা ভারতের অন্যতম লক্ষ্য। এছাড়া, ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্র উভয়ই বৈশ্বিক নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে উদ্বিগ্ন। ক্লিনটন এবং বুশ প্রশাসনের সময়কার উষ্ণ সম্পর্কের পর সম্প্রতি দিল্লিতে এমন ধারণা জোরালো হয়েছে যে, ভারতের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রহ কমে গেছে। তবে কৌশলগত অংশীদারিত্ব এবং সংলাপের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং এবং প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার দ্বিপাক্ষিক সফর আগের ছন্দ কিছুটা ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে।

ভারত সন্ত্রাসী হামলার ঝুঁকিতে থাকা একটি দেশ। তাছাড়া এটি চীনের ক্রমাগত উত্থান নিয়েও উদ্বিগ্ন। আফগানিস্তান এবং পাকিস্তানও দিল্লি উদ্বেগের কারণ। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দিল্লি ওয়াশিংটনকে মিত্র হিসেবে দেখেছে তার সব চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করার সহায়ক শক্তি হিসেবে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত এবং বিবৃতিগুলো ভারতীয়দের যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কে নেহেরুর সেই ধারণাকে সামনে নিয়ে আসছে যে, যুক্তরাষ্ট্র পরিবর্তনশীল মনোভাবাপন্ন এবং অনির্ভরযোগ্য একটি রাষ্ট্র।

ভারতের কৌশলনির্ধারক এবং নীতিনির্ধারক আফগানিস্তানের সেনা আনার ঘটনায় উদ্বিগ্ন; বিশেষ করে 'জিরো অপশনের' সম্ভাবনার ব্যাপারে। পূর্ব এশিয়াতে চীনের আকাশ প্রতিরক্ষা জোনের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের নামকাওয়াস্তে সাড়াপ্রদান দিল্লিকে চিন্তায় ফেলে দিয়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লি এটা ভেবে শঙ্কিত হবে যে, এখন ভারত-মার্কিন সম্পর্ক কৌশলগত থেকে নাগরিক সমাজ এবং উন্নয়নের দিকে সরে গেছে। বিশেষ করে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরে ভারতীয় বংশোদ্ভূত একজনকে নিয়োগ দেয়ার পর। সহজ শক্তি এবং মানুষ থেকে মানুষের বন্ধন দেশগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ, তবে এই বন্ধনে সরকারের চেয়ে জনগণের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। এটা এমন একটা সময় যখন ভারত তার নিজের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং দেশটি এমন একটি অঞ্চলে অবস্থিত যেটি ক্ষণে ক্ষণে উত্তাল হয়ে ওঠে। ভারত-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক হওয়া উচিত কৌশলগত (নিরাপত্তা এবং অর্থনীতি), উন্নয়নভিত্তিক নয়।

ভাষান্তর : প্রতাপ চন্দ্র

লেখক:রিচার্স ফেলো অ্যান্ড ডিরেক্টর,

হাডসন ইনস্টিটিউট'স ইনিশিয়েটিভ অন ফিউচার অব ইন্ডিয়া অ্যান্ড সাউথ এশিয়া

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'বিরোধীদল সরকারের বিরুদ্ধে নয়, জনগণের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
8 + 1 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
এপ্রিল - ৩
ফজর৪:৩২
যোহর১২:০২
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৮
এশা৭:৩২
সূর্যোদয় - ৫:৪৯সূর্যাস্ত - ০৬:১৩
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :