The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৪, ০৯ মাঘ ১৪২০, ২০ রবিউল আওয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ চাঁপাইনবাবগঞ্জে নারী ইউপি সদস্যের রগ কর্তন | জাহাঙ্গীরনগরের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য এম এ মতিন | ৭ মন্ত্রী-এমপির সম্পদ তদন্তে দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা নিয়োগ | ট্রাফিক ব্যারাকে লাশ, পুলিশ কন্সটেবল গ্রেফতার

রাষ্ট্র ও ধর্ম এবং সাম্প্রদায়িকতা

সমীর ভৌমিক

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ও পরে দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ওপর আক্রমণ হয়েছে। তাদের বাড়িঘর ভাঙচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, মন্দির ভাংচুর করাই শুধু নয়, ধর্ষণ করা হয়েছে অন্তত দুজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী নারীকে। নির্বাচন এলেই হামলা ও নির্যাতনের মূল লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয় হিন্দুু সম্প্রদায়। ২০০১ সালের ১ অক্টোবর নির্বাচনের আগে ও পরে এ নির্যাতন মারাত্মক আকার ধারণ করে।

হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা-নির্যাতন কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। জাতি হিসেবে আমাদের বড় ব্যর্থতা হচ্ছে এত ত্যাগের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জিত হলেও আমরা বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রে পরিণত করতে পারিনি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জনক বঙ্গবন্ধুকে নৃশংসভাবে হত্যার পর স্বাধীন দেশের সংবিধান যা পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ সংবিধান হিসেবে বিবেচিত ছিল তার ওপর নগ্নভাবে হস্তক্ষেপ করা হয়। বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রকাঠামো ভেঙে ফেলে ধর্মনিরপেক্ষতা বাদ দেওয়া হয় সংবিধান থেকে। ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোকে রাজনীতি করার ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়। সামরিক শাসকদের সময় ৫ম ও ৮ম সংশোধনীর মাধ্যমে দেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করার অপচেষ্টা চলে। এভাবে রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার পুনপ্রতিষ্ঠা লাভ করে। ধর্মের এ রাজনৈতিক ব্যবহার শুধু সামরিক শাসনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। ১৯৯০ উত্তর ক্ষমতার লড়াইয়েও রাজনৈতিক দলগুলো ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার বন্ধ করেনি বরং সংবিধানের ধর্মীয় ধারাগুলো বহাল রাখে। এসব ঘটনার মধ্য দিয়ে দেশে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি ও রাজনৈতিক দল যে ভিত্তি পেয়েছে, তা আজ বিষবৃক্ষে পরিণত হয়েছে।

ধর্ম যখন রাজনীতির বাহন হয় তখন পরিণতি কী হতে পারে সেটা বুঝতে আমরা পাকিস্তানের দিকে দৃষ্টি দিতে পারি। রাজনীতি যদি ধর্মভিত্তিক হয়, রাষ্ট্র যদি বিশেষ কোনো ধর্মের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করে এবং রাষ্ট্রের যদি একটি ধর্ম থাকে তাহলে সেই রাষ্ট্রে সাম্প্রদায়িকতা থাকবে এবং এটা নির্মূল করাও দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে। গণতন্ত্রে সাম্প্রদায়িকতার কোনো স্থান নেই। গণতন্ত্রে ধর্ম রাষ্ট্র থেকে পৃথক থাকবে। সেখানে ধর্ম হলো যার যার কিন্তু রাষ্ট্র হলো সবার। রাষ্ট্র যখন কোনো ধর্মের প্রতি পক্ষপাত দেখায়, তখন সেই রাষ্ট্র আইনের চোখে নাগরিকের সমতার ধারণাকে পরিত্যাগ করে।

আমাদের সামনে এখন একটি পথই খোলা আছে। আর তা হলো ধর্মকে রাষ্ট্র ও রাজনীতি থেকে পৃথক করা। ধর্মের রাজনৈতিক অপব্যবহার বন্ধ করা। যারা ধর্মকে ব্যবসা ও রাজনীতির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে তাদেরকে গণতান্ত্রিক দেশে রাজনৈতিক দল হিসেবে কাজ করতে দেওয়া যাবে না। মনে রাখতে হবে ধর্মব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোটা ধর্মের কাজ। ধর্মীয় ভিত্তিতে রাষ্ট্র পরিচালনা এবং অর্থনৈতিক বৈষম্য তৈরি করা যাবে না। জাতি-ধর্ম-বর্ণ ভিত্তিক যে কোনো রকম বৈষম্য রোধ করতে হবে। নাগরিকদের মধ্যে এ মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠিত করতে হবে এবং তখনই রাষ্ট্র আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হবে।

পরিশেষে বলতে চাই—হিন্দু জনগোষ্ঠীর ওপর এই যে নির্বাচনকেন্দ্রিক সংঘবদ্ধ আক্রমণ তার বিচার না হওয়াতে যে বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে তা থেকে আমাদেরকে বের হতে হবে। আসুন ধর্ম-বর্ণ-দল-মত-জাতি নির্বিশেষে আমরা সাম্প্রদায়িকতাকে রুখে দাঁড়াই, সাম্প্রদায়িক রাজনীতিকে না বলি এবং রাষ্ট্রকে একাত্তরের আকাঙ্ক্ষায় সব নাগরিকের জন্য বৈষম্যহীন, শোষণহীন রাষ্ট্রে পরিণত করি যে কাঙ্ক্ষিত রাষ্ট্র ছাড়া স্বাধীনতা অর্থহীন।

ঢাকা

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, 'সাতক্ষীরায় যৌথ বাহিনীর অভিযান নিয়ে খালেদা জিয়া যা বলেছেন, তা দেশের জন্য অপমানজনক। এ জন্য জনগণের কাছে তার মাফ চাইতে হবে।' আপনি কি তার সাথে একমত?
8 + 2 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ৭
ফজর৫:০৭
যোহর১১:৫০
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:২৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :