The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৪, ১১ মাঘ ১৪২০, ২২ রবিউল আওয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিশ্ব ইজতেমা শুরু, তুরাগ তীরে মুসল্লিদের ঢল | ইজতেমা প্রাঙ্গণে ২ মুসল্লির মৃত‌্যু | বিএনপিকে নাকে খত দিতে হবে : আমু | দশম জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ হলেন আ স ম ফিরোজ | দখলকারী শক্তি পরাভূত হবেই: খালেদা জিয়া

তারপরও আইপিএলই সেরা

সাকিব আল হাসান

বিগ ব্যাশে খেলে ফেরার ভেতর দিয়ে একটা বৃত্ত পূরণ করে ফেললেন বলা যায়—বিশ্বের নামকরা প্রায় সব টি-টোয়েন্টি লিগেই খেলা হয়ে গেল সাকিব আল হাসানের!

তবে বিগ-ব্যাশে সংক্ষিপ্ত এই সফর শেষ করে এসেও বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব মনে করে, আইপিএলই এই ঘরানার এখনও সেরা আসর। এই কথা বলার ভেতর দিয়ে অবশ্য বিগ ব্যাশকে ছোট করছেন না। ক্রিকেটীয় মান, খেলার অস্ট্রেলিয়ার আতিথ্য নিয়ে সন্তোষই প্রকাশ করলেন তিনি। শুধু নিজের সন্তোষ-অসন্তোষ নয়, সামগ্রিকভাবে অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশ থেকে পাওয়া অভিজ্ঞতা তুলে ধরলেন সাকিব আল হাসান ইত্তেফাককে দেয়া সাক্ষাত্কারে।

সাক্ষাত্কার নিয়েছেন

দেবব্রত মুখোপাধ্যায়—

একটা লিগকে চেনার জন্য যতো সময় পাওয়া দরকার, তা ঠিক পাননি। তারপরও বিগ ব্যাশ কেমন লাগল?

ভালো। এক কথায় ভালো। এমনিতে এই পর্যায়ের বাকি সব টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের মতোই। তারপরও অনেক গোছানো আয়োজন, বেশ ভালো লেগেছে।

অনেকগুলো ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের অভিজ্ঞতা হল। বিগ ব্যাশের সঙ্গে বাকিদের কোনো পার্থক্য টের পেলেন?

না, খুব একটা পার্থক্য নেই। উপমহাদেশের টুর্নামেন্টগুলো বাদ দিলে বাকি সবগুলো প্রায় একইরকম হয়—বিগ ব্যাশ, সিপিএল বা ফ্রেন্ডস লাইফ।

উপমহাদেশের টুর্নামেন্টগুলোর সঙ্গে এদের পার্থক্যটা কোথায়?

মূলত কন্ডিশন আর দর্শক। কন্ডিশনের পার্থক্যটা তো থাকবেই। উপমহাদেশের মতো এই কন্ডিশন ওসব জায়গায় হবে না, এটাই স্বাভাবিক। দর্শকের ব্যাপারটাও খুব ভিন্ন। আমাদের এখানে আইপিএল বা বিপিএলে যেরকম মাঠ ভর্তি দর্শক থাকে, বাইরের এসব টুর্নামেন্টে সেরকম থাকে না। এটাই যা পার্থক্য।

টি-টোয়েন্টির ক্রিকেট মান নিয়ে নানান সমালোচনা আছে। এর মধ্যেও বলা হয়, বিগ ব্যাশে বেস্ট ক্রিকেটটা খেলা হয়। এই সময়ে তাই মনে হল?

বেস্ট বলবো না। খুব ভালো ক্রিকেট হয় বলেই মনে হল। যদিও এই অল্প সময়ে বোঝা কঠিন। তারপরও আমার কাছে এখনও আইপিএলেই সেরা ক্রিকেট হয় বলে মনে হয়। আইপিএলে তো বিশ্বের সেরা মোটামুটি সব খেলোয়াড়ই থাকে। ফলে ক্রিকেটটাও অনেক উঁচু মানের হয়।

আপনার নিজের শুরুটা তো অসাধারণ হল। ব্যাটে-বলে অমন পারফরম্যান্সে কী নিজেই একটু সারপ্রাইজড হয়েছিলেন?

ঠিক সারপ্রাইজড হয়েছিলাম, তা বলা যাবে না। কারণ ভালো পারফরম্যান্স তো আশা করিই। কিন্তু ওই পারফরম্যান্স করতে পেরে খুব ভালো লেগেছে। কারণ কাজটা সোজা ছিল না। লম্বা জার্নি করে গেছি। তারপর আপনারা জানেন, একেবারে ভিন্ন কন্ডিশন, অপরিচিত প্রতিপক্ষ। ফলে ওরকম একটা পারফরম্যান্স দিয়ে শুরু করাটা খুবই কঠিন ছিল এবং ভালো লেগেছে সেটা করতে পেরে।

যাওয়ার আগেও বলেছেন। আরেকবার বলুন, আপনার কাছে এই বিগ ব্যাশে খেলে আসার অর্থটা কী?

আরেকটা প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ক্রিকেট টুর্নামেন্টে খেলা। বিশ্বের বড় সবগুলো টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট খেলে ফেলা।

এমসিজিতে প্রথম খেললেন এখানে গিয়ে। এটা নিয়ে আলাদা কোনো আবেগ ছিল?

আবেগ...। না, ঠিক ওইরকম না। তবে এতো নামকরা একটা ভেন্যু এই মেলবোর্ন। সেখানে আগে খেলা হয়নি। এবার খেললাম। একটু তো অন্যরকম লাগেই। অনেক নাম শুনেছি। এবার নিজে সেখানে খেলে এলাম।

এডিলেডের সতীর্থরা কিভাবে নিয়েছিল আপনাকে?

ভালোভাবেই নিয়েছিল। এই পর্যায়ে টিমগুলোতে বাইরের খেলোয়াড়দের খুব ভালোভাবে নেয়া হয়। তবে সেভাবে মেশার সুযোগ হয়নি। মাত্র অল্প কটা দিন ছিলাম তো। আরও কিছুদিন থাকলে হয়তো ভালো ঘনিষ্ঠটা তৈরি হতো।

এমনিতো তো বিগ ব্যাশে বিদেশি কম। তারওপর অল্প দিনের জন্য খেলতে গেলেন। একটু আউটসাইডার মনে হয়েছে নাকি নিজেকে?

হুম...। কখনো কখনো। অল্প সময়ের জন্য গেছি বলে এমন মনে হয়েছে হয়তো।

আপনি বিগ ব্যাশে যাওয়ায় বাংলাদেশি দর্শকরা রাতারাতি এডিলেট স্ট্রাইকার্সের সমর্থক হয়ে গিয়েছিল। অস্ট্রেলিয়ার প্রবাসী বাংলাদেশিরাও ফেসবুকে দেখা গেছে খুব উচ্ছ্বসিত। আপনি টের পেয়েছেন?

খুব। অনেকেই তো দেখা করতে এসেছেন, আপ্যায়ন করেছেন। মাঠেও টের পাওয়া যেত। আসলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা সব জায়গার মতোই দারুণ সাপোর্ট করেছেন এখানেও।

এই যে একা একা ফ্রেন্ডস লাইফ, সিপিএল, আইপিএল, বিগ ব্যাশ খেলতে চলে যান। নিঃসঙ্গ লাগে না কখনো?

নাহ। এবার তো অল্প সময় ছিলাম, তেমন অনুভূতি তৈরি হওয়ার সময়ই হয়নি। তবে নিঃসঙ্গ না লাগলেও টিম মেটদের খুব মিস করেছি; সবসময়ই করি। এবারও মনে হয়েছে, বিগ ব্যাশে আমাদের আরও কিছু খেলোয়াড় থাকলে ভালো হত। এটা দেশের ক্রিকেটের জন্যও ভালো হত।

আপনি এটা ওখানে বসেও বলেছেন, দেশের আরও ক্রিকেটার বিগ ব্যাশে যাক, সেটা চান। কী মনে হল, সেটা হবে?

আমার পক্ষে তো বলা মুশকিল। তবে আমি তাই আশা করি। এরকম যতো বেশি হবে, আমাদের জন্য ততোই ভালো।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, 'এই সরকারের আয়ু এক বছরও হবে না।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
3 + 7 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুলাই - ১৭
ফজর৩:৫৫
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৩
সূর্যোদয় - ৫:২১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :