The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৪, ১১ মাঘ ১৪২০, ২২ রবিউল আওয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিশ্ব ইজতেমা শুরু, তুরাগ তীরে মুসল্লিদের ঢল | ইজতেমা প্রাঙ্গণে ২ মুসল্লির মৃত‌্যু | বিএনপিকে নাকে খত দিতে হবে : আমু | দশম জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ হলেন আ স ম ফিরোজ | দখলকারী শক্তি পরাভূত হবেই: খালেদা জিয়া

পদে থেকে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন স্থানীয় প্রতিনিধিরা

উপজেলা নির্বাচনেও সৈন্য মোতায়েন

সাইদুর রহমান

উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের জন-প্রতিনিধিরা পদে থেকেই উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ গতকাল বলেন, তবে তারা সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিয়ে প্রচারণা চালাতে পারবেন না। তাছাড়া এবারের নির্বাচনে সৈন্য মোতায়েন করারও সিদ্ধান্ত

হয়েছে।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর এবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও সেনা মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। দ্বিতীয় ধাপের ১১৭টি উপজেলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে বৃহস্পতিবার কমিশন নির্বাচনে সেনা মোতায়নের সিদ্ধান্ত নেয়। ভোটগ্রহণের আগে এবং পরে মোট পাঁচ দিন সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন রাখা হচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় উপজেলা পর্যায়ে অবস্থান করে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদ বলেন, 'গতবারের মতো এবারও সেনাবাহিনী উপজেলা নির্বাচনে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দ্বিতীয় ধাপের ১১৭টি উপজেলায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে ২৭ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়ন জমার শেষদিন ২ ফেব্রুয়ারি, যাচাই ৪ ফেব্রুয়ারি ও প্রত্যাহারের শেষ দিন ১১ ফেব্রুয়ারি। এবার পদে থেকে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন।'

ইসি সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা নির্বাচনে সহিংসতার কোন আশঙ্কা করছে না গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। তারা বলেছেন বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিতে পারে, এ কারণে সহিংসতা কম হতে পারে। বৃহস্পতিবার সকালে কমিশনের সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বৈঠকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা এ তথ্য দেন। সহিংসতার আশঙ্কা না থাকলেও তারা মাঠে কঠোর অবস্থানে থাকবেন বলেও বৈঠকে উপস্থিত ইসির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

বৈঠকে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, বাংলাদেশে অনুষ্ঠেয় টি- টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ক্রিকেট, একুশে ফেব্রুয়ারি, বইমেলাসহ অন্যান্য দায়িত্বের কারণে নির্বাচনে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা সম্ভব নাও হতে পারে। তবে কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করবে পুলিশ। আর সশস্ত্র বাহিনী প্রতিনিধি জানান, কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুসারে তাঁরা ব্যবস্থা নেবেন। কমিশন থেকে বলা হয়, ভোট গ্রহণের আগে ও পরে মোট পাঁচ দিনের জন্য (যাতায়াত সময় ছাড়া) সশস্ত্র বাহিনীর (সেনা ও নৌ) সদস্য মোতায়েন করার প্রস্তাব করা হয়। বৈঠকে সশস্ত্র বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব,পুলিশের মহাপরিদর্শক, বিজিবির মহাপরিচালক, র্যাব, আনসার-ভিডিপি, কোস্টগার্ড, এনএসআই, এসবি ও ডিজিএফআইয়ের শীর্ষ প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। কমিশনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন সিইসি ছাড়াও চার নির্বাচন কমিশনার, ইসি সচিবালয়ের সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক শেষে বিকালে কমিশন নির্বাচনে সেনা মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নেন।

নির্বাচন কর্মকর্তারা জানান, ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পাঁচ দিনের জন্য সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছিল। ২০০৯ সালে একযোগে সব উপজেলায় নির্বাচন হয়েছিল। এবার ছয় ধাপে ৪৮৭ উপজেলায় নির্বাচন হচ্ছে। নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে মোতায়েন করা হবে অতিরিক্ত পুলিশ, অঙ্গীভূত আনসার ও গ্রাম পুলিশ। সাধারণ ভোট কেন্দ্রে ১৪ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৫ জন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হবে। এছাড়াও উপকূলবর্তী জেলা এবং বিশেষ এলাকাগুলোতে (পার্বত্য এলাকা, দ্বীপাঞ্চল ও হাওর) সাধারণ কেন্দ্রে পুলিশ, অঙ্গীভূত আনসার ও চৌকিদার-দফাদারসহ ১৭ জন ফোর্স দায়িত্ব পালন করবেন।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কার্যপত্র অনুযায়ী উপজেলার নির্বাচনে সশস্ত্র বাহিনীর পাশাপাশি বিজিবি, কোস্টগার্ড, র্যাব-পুলিশ সদস্যদের মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোতায়েন করবে কমিশন। নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র্যাব), পুলিশ, আনসার ভিডিপি, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ান ও কোস্টগার্ড। এসব বাহিনীর সমন্বয়ে মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স নির্বাচনের দুই দিন আগে থেকে ভোটগ্রহণের পরের দিন পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় টহল দেবে।

দ্বিতীয় ধাপে ১১৭ উপজেলার

ভোট ২৭ ফেব্রুয়ারি

দ্বিতীয় ধাপে এবার ১১৭টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ করা হবে ২৭ ফেব্রুয়ারি। এর আগে প্রথম ধাপে ১০২টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করেছিল ইসি। ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রথম ধাপের ভোট গ্রহণ করার কথা রয়েছে। তবে সীমানা নির্ধারণ নিয়ে জটিলতার কারণে রংপুরের ৪ উপজেলার নির্বাচন গতকাল স্থগিত করা হয়। ফলে প্রথম ধাপে ৯৮টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

গতকাল ঘোষিত দ্বিতীয় ধাপের তফসিল অনুযায়ী চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মনোনয়পত্র দাখিল করতে হবে ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে। মনোনয়নপত্র বাছাই করা হবে ৪ ফেব্রুয়ারি। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১১ ফেব্রুয়ারি। চূড়ান্ত প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হবে ১২ ফেব্রুয়ারি।

গতকাল ইসি কার্যালয়ের মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ তফসিল ঘোষণা করেন। এসময় তার সঙ্গে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ ছাড়াও ইসি সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

দেশের ৪৮৭টি উপজেলা পরিষদের মধ্যে বাকিগুলোর তফসিল আরো চার ধাপে ঘোষণা করা হবে। এর মধ্যে তৃতীয় ধাপে ১৫ মার্চ, চতুর্থ ধাপে ২৫ মার্চ, পঞ্চম ধাপে ৩১ মার্চ এবং ষষ্ঠ ধাপে ৩ মে উপজেলা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করা হবে।

দেড় যুগ পর ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি একদিনে তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হয়। এর আগে ১৯৮৫ সালে প্রথম এবং ১৯৯০ সালে দ্বিতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

পদে থেকে নির্বাচন

স্থানীয় সরকারের উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা এ নির্বাচনে পদে থেকে নির্বাচন করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। তিনি বলেন, এ নির্বাচনে স্থানীয় সরকারের সকল প্রতিনিধি পদে থেকে অংশ নিতে পারবে। তবে স্থানীয় প্রশাসনের কোন ধরনের সহযোগিতা নিতে পারবে না। এমনি কি সরকারি সুবিধা নিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারবেন না। উপজেলা নির্বাচনের আচরণ বিধিতে এ বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

যে ১১৭টি উপজেলায় নির্বাচন

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া, ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাংগী, রাণীশংকাইল, দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট, চিরিরবন্দর, বিরামপুর, বীরগঞ্জ, নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ, লালমনিরহাটের পাটগ্রাম, হাতিবান্দা ও সদর, রংপুরের বদরগঞ্জ, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী, রাজারহাট, রাজিবপুর, গাইবান্ধার পলাশবাড়ী, জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল, কালাই, সদর, বগুড়ার কাহালু, শিবগঞ্জ, আদমদিঘী, শাজাহানপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর, নওগাঁর আত্রাই, বদলগাছি, নিয়ামতপুর, পত্নীতলা, সাপাহার ও সদর, রাজশাহীর বাঘা, নাটোরের সদর, বাগাতিপাড়া, গুরুদাসপুর, লালপুর, সিরাজগঞ্জের তাড়াশ, পাবনার চাটমোহর, ভাংগুড়া, মেহেরপুরের গাংনী, মুজিবনগর, কুষ্টিয়ার কুমারখালী, খোকসা, মিরপুর, ঝিনাইদহের মহেশপুর, যশোরের চৌগাছা, ঝিকরগাছা, বাঘারপাড়া, শার্শা, মাগুরার মোহাম্মদপুর, শালিখা, বাগেরহাটের কচুয়া, ফকিরহাট, খুলনার ডুমুরিয়া, সাতক্ষীরার শ্যামনগর, ভোলার চরফ্যাশন, বোরহানউদ্দিন, বরিশালের সদর, পিরোজপুরের কাউখালী, নাজিরপুর, টাঙ্গাইলের সখিপুর, জামালপুর ইসলামপুর, বকশিগঞ্জ, মেলান্দহ, শেরপুরের ঝিনাইগাতি, ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ, ভালুকা, সদর, নেত্রকোনার কলমাকান্দা, খালিয়াজুরী, পূর্বধলা, বারহাট্টা, মানিকগঞ্জের সদর, হরিরামপুর, মুন্সীগঞ্জের সদর, শ্রীনগর, ঢাকার কেরানীগঞ্জ, সাভার, নরসিংদীর শিবপুর, ফরিদপুরের নগরকান্দা, বোয়ালমারী, সালথা, গোপালগঞ্জের সদর, কোটালিপাড়া, মাদারীপুরের রাজৈর, শিবচর, সুনামগঞ্জের সুনামগঞ্জ সদর, দিরাই, সিলেটের বালাগঞ্জ, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট, ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার সরাইল, কুমিল্লার দেবীদ্বার, মনোহরগঞ্জ, লাকসাম, চাঁদপুরের সদর, ফরিদগঞ্জ, হাইমচর, মতলব (দক্ষিণ), মতলব (উত্তর), ফেনীর পরশুরাম, সদর, নোয়াখালীর কবিরহাট, কোম্পানীগঞ্জ, চাটখিল, সদর, সোনাইমুড়ি, চট্টগ্রামের পটিয়া, লোহাগাড়া, কক্সবাজারের পেকুয়া, মহেশখালী, চকরিয়া, খাগড়াছড়ির লক্ষ্মীছড়ি, রাঙ্গামাটির কাপ্তাই, নানিয়ারচর, বান্দরবানের থানছি, রুমা রোয়াংছড়ি ও লামা।

চার উপজেলায় ভোট স্থগিত

সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে রংপুরের চারটি উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আপত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নিচ্ছে কমিশন। স্থগিত উপজেলাগুলো হলো-রংপুর সদর, কাউনিয়া, গঙ্গাচরা ও পীরগাছা উপজেলা। সিইসি বলেন, সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ৪ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, 'এই সরকারের আয়ু এক বছরও হবে না।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
9 + 6 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুন - ২৭
ফজর৩:৪৫
যোহর১২:০২
আসর৪:৪২
মাগরিব৬:৫২
এশা৮:১৭
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৪৭
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :