The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৪, ১১ মাঘ ১৪২০, ২২ রবিউল আওয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিশ্ব ইজতেমা শুরু, তুরাগ তীরে মুসল্লিদের ঢল | ইজতেমা প্রাঙ্গণে ২ মুসল্লির মৃত‌্যু | বিএনপিকে নাকে খত দিতে হবে : আমু | দশম জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ হলেন আ স ম ফিরোজ | দখলকারী শক্তি পরাভূত হবেই: খালেদা জিয়া

যে কোন মূল্যে নির্বাচনী ব্যবস্থা অব্যাহত রাখাই হল আমাদের রাজনীতি

............. আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

নাসিম আলী ও রবিউল হাসান রবিন, কাউখালী (পিরোজপুর) থেকে

জাতীয় পার্টির (জেপি) চেয়ারম্যান এবং পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, আমরা মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার রাজনীতি করি। আমাদের লক্ষ্য দেশে সেবাধর্মী এমন একটি ব্যবস্থা চালু রাখা যার মধ্য দিয়ে মানুষ তার চাহিদা ও প্রয়োজন চিহ্নিত করে তার নিজের উন্নয়নকে অর্জন করতে পারে। এই উদ্দেশ্যে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কাউখালী উপজেলা জাতীয় পার্টি (জেপি) ও অঙ্গ সংগঠনসমূহ আয়োজিত এক জনসমাবেশে উপস্থিত বিপুল সংখ্যক মানুষের উদ্দেশে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি (জেপি) আর আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যের মধ্যে পার্থক্য নেই। যখনই আওয়ামী লীগের প্রয়োজন হয়েছে তখনই জাতীয় পার্টি (জেপি) তাদের পাশে ক্ষুদ্র শক্তি নিয়ে হলেও সাহায্যে এগিয়ে গেছে। ১৯৯৬ সালে আমাদের সমর্থনে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করেছিল। তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজের যোগ্যতা, মেধা, দূরদর্শীতা ও অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন করে আমাদের তার মন্ত্রী সভায় অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। সে সময় তার সেই বিশ্বাস ও আস্থার সম্মান আমরা রক্ষা করতে সচেষ্ট ছিলাম। দক্ষিণাঞ্চলসহ সারা দেশের যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে আমাদের জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে একটি আধুনিক বাংলাদেশ গড়া তথা স্বাধীনতার স্বাদ মানুষের মাঝে পৌঁছে দেওয়ার জন্য আমরা অবদান রেখেছি। সম্প্রতি নির্বাচন নিয়ে যখন দেশব্যাপী এক ধরনের নিশ্চয়তার অভাব ও শঙ্কা বিরাজমান ছিল এবং অনেকেই ঢাকায় বসে নির্বাচনের পক্ষে কথা বলতে ভয় পাচ্ছিলেন তখন আমরা বলেছিলাম কেউ নির্বাচনে না গেলেও জাতীয় পাটি (জেপি) নির্বাচনে যাবে। কারণ, আমাদের রাজনীতি হচ্ছে যে কোন মূল্যে ভোটের রাজনীতি, নির্বাচনী ব্যবস্থা তথা সাংবিধানিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখা। দেশে যদি এর বিপরীত ধারা রাজনীতিতে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে তাহলে জনগণ অধিকারহীন হয়ে পড়ে। মানুষ যদি তার নিজের পছন্দমত চাহিদা পূরণের কথা বলতে না পারে তাহলে স্বাধীনতার মূল্য অর্থহীন হয়ে পড়বে।

আনোয়ার হোসেন বলেন, যারা রাজনীতি করেন তাদের অবশ্যই ক্ষমতাসীন হওয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকতে হবে। জনগণের ভোটে ক্ষমতায় না গিয়ে বন্দুকের নল ব্যবহার করে এখন আর সরকার গঠন সম্ভব নয়। যারা ক্ষমতায় যেতে চান তাদের প্রথম কাজ হচ্ছে ব্যক্তিগত, সামাজিক এবং সকলের স্বার্থানুকূল কাজের জন্য নিজেদেরকে তৈরি করা। আমি অনৈক্যের মাঝে বা নিজেকে বিতর্কিত করে কোন কাজের সাথে অতীতেও সম্পৃক্ত করিনি, আগামীতেও এ ধরনের কাজে জড়িত থাকতে চাই না। এলাকার উন্নয়নে ঐক্যবদ্ধভাবে নিজেদের চাহিদার কথা তুলে ধরতে পারলে তা অর্জনের জন্য আমি সব সময় মানুষের পাশে থাকতে চাই। অতীতেও বলেছি সরকার যে অর্থ বরাদ্দ দেয়, একটা বড় অংশ আসে জনগণের ট্যাক্স থেকে। এই অর্থের অর্ধেকেরও যদি কাজ হতো তাহলে দেশে অনেক উন্নয়ন হতো। বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ, আমাদের যে অর্থের অভাব ও ঘাটতি থাকে তার জন্য বিদেশিদের উপরে নির্ভরশীল হই। বিদেশি টাকার অভাব নেই। আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি বা হত্যা সংঘাত হানাহানির রাজনীতি পরিহার করে চলি তাহলে অর্থের অভাব হয় না। কিন্তু ঢাকায় বসে একদল মানুষ নানা উন্নয়ন প্রকল্পের নামে বরাদ্দকৃত অর্থের বড় অংশ লুটপাট করে। স্থানীয় পর্যায়ে যে নির্মাণ কাজ হয় তা অল্প দিনের মধ্যেই বিনষ্ট হওয়ার পেছনে এই লুটপাটকারীদের আত্মসাত্ প্রবণতা মূলত: দায়ী। আবার বিদেশিরা অবরোধের রাজনীতিতে অখুশি হয়। অবরোধ দিলে সরকার নয় দেশের ব্যবসা বাণিজ্য ও অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যারা গণতন্ত্রের রাজনীতির কথা বলেন আবার অবরোধ দেন সেই সব জোট যখন ক্ষমতায় আসবে তখন এই অবস্থার খেসারত তাদেরকেও দিতে হবে। জনগণের কল্যাণের জন্য দেশ পরিচালনায় সব রাজনৈতিক দলের সাধারণ ঐক্যমত থাকা দরকার। আমাদের মনে রাখতে হবে। দেশ স্বাধীন করেছি মানুষের গরীব থাকার প্রবণতার বিরুদ্ধে বিকল্প ধারার রাজনীতি প্রচলনের জন্য। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিত্সা এই মৌলিক চাহিদা পূরণের জন্য যেমন দেশ স্বাধীন হয়েছে তেমনি এই স্বাধীনতার সুফল প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সকলকে একত্রে কাজ করতে হবে। তিনি জনগণের উদ্দেশে বলেন, আসুন আমরা দেশকে সকলে মিলে ভালো করি। এককভাবে কারও পক্ষে দেশ পরিচালনা বা জনগণের কল্যাণ সম্ভব নয়। আর তা অর্জন করতে হলে নিজেদের যোগ্যতা, সুশিক্ষা তথা মোটামুটি সততার সাথে কাজ করা প্রয়োজন। দেশ পরিচালনার জন্য সহমর্মিতা তথা সহমত থাকা প্রয়োজন। আনোয়ার হোসেন কাউখালী তথা দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের উদ্দেশে বলেন, বিগত ত্রিশ বছর ধরে এলাকার মানুষ ঐক্যবদ্ধভাবে আমাকে যে সমর্থন সহযোগিতা যুগিয়েছেন তা যদি অতীতের মত অব্যাহত থাকে তাহলে আগের তুলনায় আরও বেশি উন্নয়ন এ অঞ্চলে করা সম্ভব। আমরা একটি অহিংস সমাজ গঠন করতে চাই। এ অঞ্চলের ভবিষ্যত্ প্রজন্ম যাতে সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে ওঠে তার জন্য অতীতের মতো আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

স্থানীয় সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ময়দানে জেপির কাউখালী উপজেলা সভাপতি মাহবুবুর রহমান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মাহিবুল হোসেন মাহিম, যুব সংহতির কেন্দ্রীয় সভাপতি এম,এ, কাইউম, জেপির কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক সম্পাদক হুমায়ূন কবির রাজু, কাউখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিলু তালুকদার, টুঙ্গীপাড়া আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক হাফিজুর রশিদ, কাউখালী উপজেলা জেপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম তালুকদার, আওয়ামী যুবলীগের উপজেলা সভাপতি অলোক কর্মকার, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের উপজেলা সভাপতি কামরুজ্জামান মিঠু, জেপির উপজেলা যুগ্ম সম্পাদক খান মোঃ বাচ্চু, যুব সমাজের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান মিল্টন, ছাত্রসমাজের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হাসান জুয়েল প্রমুখ। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা এডভোকেট নূরুল হক, জেপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন রেনু, যুগ্ম মহাসচিব খলিলুর রহমান খলিল, যুব বিষয়ক সম্পাদক ও যুব সংহতির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক এনামুল ইসলাম রুবেল, বঙ্গবন্ধু পরিষদের উপজেলা সভাপতি এ,বি,এম শাহজাহান, আওয়ামী লীগের উপজেলা যুগ্ম সম্পাদক শাহ মোঃ কাইউম, সাংগঠনিক সম্পাদক সুনীল কুন্ডু,

উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি জাকির হোসেন নসু প্রমুখ। জনসমাবেশে কাউখালীর বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষক সংগঠন ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে ফুলের তোড়া দিয়ে সংবর্ধিত করা হয়। কাউখালী উপজেলা পরিষদে এক মতবিনিময় সভায় বন ও পরিবেশ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বক্তব্য রাখেন। উপজেলা চেয়ারম্যান এস,এম আহসান কবীরের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন ইউএনও মোঃ হাসান হাবীব, ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান পল্টন, ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রশীদ মিল্টন, কৃষ্ণ লাল গুহ, আবু সাঈদ মিয়া মনু, দেলোয়ার হোসেন সিকদার, নজরুল ইসলাম বাদশা, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ খান খোকন প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পিরোজপুর জেলা প্রশাসক এ,কে,এম শামীমুল ইসলাম সিদ্দিকী, পুলিশ সুপার এস,এম, আক্তারুজ্জামান, বন অধিদপ্তরের যশোর অঞ্চলের বন সংরক্ষক মোঃ ফারুক হোসেন, বাগেরহাটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, পিরোজপুরের সহকারী বন সংরক্ষক হারুন অর রশিদ মজুমদার সহ কাউখালীর উপজেলা পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা বৃন্দ।

এর আগে রাতে মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন আমড়াজুড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে মাগুরা গ্রাম পর্যন্ত পল্লী বিদ্যুত্ লাইনের উদ্বোধন করেন। এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পিরোজপুর পল্লী বিদ্যুত্ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার রবীন্দ্র নাথ দাস, এলাকা পরিচালক শাহ আলম নসু, ইউপি চেয়ারম্যান কৃষ্ণ লাল গুহ, প্রমুখ।

সন্ধ্যার পর আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর উপস্থিতিতে কাউখালী মানিক মিয়া কিন্ডারগার্টেন প্রাঙ্গণে সুবিধাবঞ্চিত-শীতার্ত নারী ও পুরুষের মাঝে দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে কম্বল বিতরণ করা হয়।

রাতে মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু ভান্ডারিয়া উপজেলার ভিটাবাড়ীয়া ইউনিয়ন শৈলেন মেম্বারের বাড়ি থেকে ৯নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভায়া গুচ্ছগ্রাম সড়কের কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মাহিবুল হোসেন মাহিম, ভিটাবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মৃধা প্রমুখ।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, 'এই সরকারের আয়ু এক বছরও হবে না।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
5 + 5 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
অক্টোবর - ২৩
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৯
মাগরিব৫:২৯
এশা৬:৪২
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৪
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :