The Daily Ittefaq
ঢাকা, রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০১৪, ১৩ মাঘ ১৪২০, ২৪ রবিউল আওয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ নাদালের স্বপ্ন ভেঙে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন ওয়ারিঙ্কা | তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরীকে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা নিয়োগ | শাবিতে শিবির-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ, ভাংচুর | সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিচার বিশেষ ক্ষমতা আইনেই: আইনমন্ত্রী | যুক্তরাষ্ট্রের শপিং মলে হামলা, নিহত ৩ | মওদুদসহ বিএনপির ৪ নেতার জামিন

রাজনৈতিক কর্মসূচি হইতে হইবে নিয়মতান্ত্রিক

কয়েকদিন আগে মেট্রোপলিটান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এমসিসিআই) নেতৃবৃন্দ অর্থমন্ত্রীর সহিত সাক্ষাত্ করেন। এইসময় তাহারা আত্মঘাতী ও ধ্বংসাত্মক রাজনৈতিক সংস্কৃতি হইতে বাহির হইয়া আসিয়া ব্যবসা-বাণিজ্যকে সকল রাজনৈতিক কর্মসূচির বাহিরে রাখিবার আহ্বান জানান। তাহারা কেবল সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনে অনুমোদন দেওয়ার প্রস্তাব করেন। সংবাদপত্রের খবর অনুযায়ী অর্থমন্ত্রী তাহা বিবেচনার আশ্বাস দিয়াছেন। যদিও ছুটির দিন রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের এই প্রস্তাবের বাস্তবায়ন কঠিন। ইহার আগে ব্যবসায়ীদের কেহ কেহ আইন করিয়া হরতাল-অবরোধ নিষিদ্ধের দাবি তুলিয়াছেন। কিন্তু তাহাও শেষপর্যন্ত হালে পানি পায় নাই। তবে ব্যবসায়ী সমাজের উদ্বেগ ও উত্কণ্ঠা কাহারও বুঝিতে অসুবিধা হয় না। সামপ্রতিককালে দিনের পর দিন যেইভাবে হরতাল-অবরোধ ডাকিয়া সহিংসতার পরাকাষ্ঠা দেখানো হইয়াছে, স্মরণাতীতকালের ইতিহাসে এমন দুর্বিষহ পরিস্থিতি আমাদের জাতীয় জীবনে আর কখনই দেখা যায় নাই। ইহাতে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের অপূরণীয় ক্ষতি হইয়াছে। সামগ্রিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হইয়াছে বেসরকারি খাত। তাই স্বাভাবিক কারণেই ব্যবসায়ীগণ এই ব্যাপারে ত্যক্ত-বিরক্ত। অথচ নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে এমনটি ঘটিবার কথা নহে। উন্নত গণতান্ত্রিক দেশে এভাবে এক মুহূর্তের জন্য জীবনযাত্রা ও অর্থনীতির চাকা ব্যাহত হইবে, তাহা কল্পনা করা কষ্টসাধ্য।

নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক দেশে যে কোন সরকারের পরিবর্তন হয় জাতীয় সংসদে আস্থা হারাইলে কিংবা মধ্যবর্তী বা মেয়াদান্তে নির্বাচনের মাধ্যমে। সরকার পরিবর্তনের ইহাই শান্তিপূর্ণ পথ। কিন্তু সহিংসতার মাধ্যমে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করিয়া সরকার ফেলিয়া দেওয়ার চিন্তা-ফিকির করেন বাম উগ্রপন্থীরা। ইহা তাহাদের অপকৌশল । হরতাল, ধর্মঘট ও অবরোধের ন্যায় জ্বালাও-পোড়াও ও ক্ষতিকর কর্মসূচি গণতন্ত্রীদের কাজ হইতে পারে না। এই অস্ত্র চরমপন্থীদের যাহারা মনে করে, জনগণের জান-মাল ক্ষতি করিয়া হইলেও আন্দোলন চালাইয়া যাইতে হইবে যাহাতে এক সময় জনগণই বিরক্ত হইয়া তাহাদের কর্মসূচিকে সমর্থন দিবে। তৃতীয় বিশ্ব তথা উন্নয়নশীল দেশগুলিতে বুর্জোয়া দলগুলির মধ্যে বামপন্থী চিন্তাভাবনার অনুপ্রবেশ ঘটিয়াছে। কোন কোন ক্ষেত্রে বামপন্থীরা তাহাদের উপর ভালমতই সওয়ার হইয়াছে। ফলে ব্যবসায়ীরা রাজনীতির যে খারাপ সংস্কৃতির কথা বলিয়াছেন, আমরা তাহা হইতে সহসা বাহির হইয়া আসিতে পারিতেছি না।

পুঁজিবাদের উত্থান ঠেকাইতে কল-কারখানায় যখন-তখন স্ট্রাইক বা ধর্মঘট দেওয়ার সংস্কৃতি গড়িয়া তোলে বামপন্থীরা। ইউরোপের ট্রেড ইউনিয়নগুলির অনুকরণে এই উপমহাদেশেও এই সংস্কৃতির আমদানি হয় পরিবর্তিত নামে। ১৮৭৩ সালে জমিদারদের বিরুদ্ধে পাবনার বিখ্যাত কৃষক বিদ্রোহে প্রথম 'ধর্মঘট' শব্দটির চল হয়। ট্রেড ইউনিয়ন ও শ্রমিকদের এই মুখ্য অস্ত্রই একসময় রাজনীতিতেও ব্যবহূত হইতে থাকে। ১৯২০ ও ৩০ দশকে মহাত্মা গান্ধী ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে হরতালের ডাক দেন। তিনি ছিলেন গুজরাটি এবং এই কারণে ধর্মঘটের জায়গায় গুজরাটি 'হরতাল' শব্দটি ব্যবহূত হয়। গত শতাব্দীর ষাট দশকে এতদঞ্চলে এই শব্দটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। আশির দশকে হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের (১৯৮২-১৯৯০) পতন এবং বেগম খালেদা জিয়া (১৯৯১-১৯৯৬ এবং ২০০১-২০০৬) ও শেখ হাসিনা (১৯৯৬-২০০১) সরকারের উপর চাপ সৃষ্টিতে তত্কালীন বিরোধী দলগুলি এই হরতাল অস্ত্র ব্যবহার করে। কিন্তু শেখ হাসিনা সরকারের গত মেয়াদে (২০০৯-২০১৪) এই অস্ত্র ভোঁতা হইয়া পড়ে বলিলেই চলে। এমনকি অবরোধের ন্যায় আরেকটা তুলনামূলক নূতন অস্ত্র ব্যবহার করিয়াও তাহারা কুল-কিনারা করিতে পারেন নাই।

বাম উগ্রপন্থার রাজনৈতিক নীতি-কৌশল উদার গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলগুলিও গ্রহণ করিয়া চলিয়াছে। ইহাতে হতাশাবোধ না করিয়া পারা যায় না। এমতাবস্থায় দেশে সুস্থ ও নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির ধারাটিকে আরও বেগবান করিয়া নৈরাজ্যবাদী অপরাজনৈতিক সংস্কৃতিকে রুখিয়া দিতে হইবে। নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির চর্চার পথ প্রশস্ত হইলে রাজনৈতিক কর্মসূচি ছুটির দিনে কী কর্মদিবসে পালিত হইতেছে, তাহা লইয়া মাথা ঘামাইবার কোনো প্রয়োজন পড়িবে না।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
সিপিডির ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন না হলে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা কাটবে না। এতে অর্থনীতি দীর্ঘ মেয়াদি সংকটে পড়বে।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
2 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ২৫
ফজর৩:৪৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪১
এশা৮:০৩
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৩৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :