The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ২ ফাল্গুন ১৪২০, ১৩ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ গোপালগঞ্জে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৫, আটক ১১ | ২-০ তে সিরিজ জিতল লঙ্কানরা | লন্ডনে বাংলাদেশি নারী খুন, ছেলে গ্রেফতার | যশোরের অভয়নগরে চৈতন্য হত্যার আসামি 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত

অনিশ্চিত যাত্রা

গন্তব্যের কোনো ঠিকঠিকানা নাই। নাই নিরাপত্তা, আশ্রয় কিংবা কাজের ন্যূনতম নিশ্চয়তা। সর্বোপরি, পদে পদে ওত পেতে আছে মৃত্যুর হাতছানি। ভাগ্যক্রমে মৃত্যুর হাত ফসকাইয়া বাঁচিয়া গেলেও নিস্তার নাই। আছে দালালদের নির্মম নির্যাতন। আছে ভিনদেশি পুলিশ-প্রশাসনের আইনের কঠিন বেড়াজাল। মধ্যসমুদ্রে বিকল ট্রলারে দিনের পর দিন ভাসিতে ভাসিতে অনাহারে মৃত্যুর ভয়ঙ্কর খবর প্রায়শ ছাপা হইতেছে সংবাদপত্রের পাতায়। তৃষ্ণা নিবারণের জন্য সামান্য পানিটুকুও জুটিতেছে না অনেকের ভাগ্যে। কিন্তু কোনো কিছুই গ্রাহ্য করিতেছেন না তাহারা। ভিটেমাটি জমিজমা বিক্রয় করিয়া পরিবার-পরিজন ছাড়িয়া অবৈধ পথে দলে দলে পাড়ি জমাইতেছেন অনিশ্চিত গন্তব্যে। জীবন হাতের মুঠোয় লইয়া কেন এই অনিশ্চিত যাত্রা? উত্তর সকলেরই জানা। প্রথমত তাহারা কাজ চায়; দ্বিতীয়ত, নিজের ও পরিবারের ভাগ্য পরিবর্তন করিতে চায় এবং সর্বোপরি, মুক্তি পাইতে চায় বংশানুক্রমিক দারিদ্র্যের শৃঙ্খল হইতে। আর এই লক্ষ্য হাসিলের জন্য যে-কোনো ত্যাগ স্বীকারেও যে তাহারা প্রস্তুত— তাহার অসংখ্য দৃষ্টান্ত তো আমাদের চোখের সম্মুখেই রহিয়াছে। সেই সাথে নানা প্রলোভন-প্ররোচনা তো আছেই।

বেপরোয়া এই অভিযাত্রীদের প্রায় সকলেই তরুণ। ভালো কর্মসংস্থানের আশায় আমাদের তরুণদের বহির্গমন নূতন নহে। বর্তমানে অর্ধকোটিরও অধিক মানুষ ছড়াইয়া-ছিটাইয়া আছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। আমাদের অর্থনীতিতে তাহাদের অবদানও অসামান্য। কিন্তু যতো তরুণ বৈধপথে বিদেশে যাইতেছেন বা যাওয়ার সুযোগ পাইতেছেন তাহার কয়েকগুণ যাওয়ার জন্য ছটফট করিতেছেন। ভুলিয়া গেলে চলিবে না যে দারিদ্র্য বিমোচনে বিস্ময়কর সাফল্য সত্ত্বেও আমাদের জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষের বসবাস এখনও দারিদ্র্যসীমার নীচে। তন্মধ্যে কর্মক্ষম বেকার তরুণের সংখ্যাও প্রায় তিনকোটি। অথচ দেশে চাহিদা অনুযায়ী কাজের সুযোগ নাই। অন্যদিকে, তাহাদের সম্মুখে রহিয়াছে বিদেশে ভালো বেতনে কর্মসংস্থানের লোভনীয় হাতছানি। গত বুধবার ইত্তেফাকে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, প্রতি বত্সর সমুদ্রপথে শুধু মালয়েশিয়ার উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাইতেছেন প্রায় দুই লক্ষ বাংলাদেশি। তন্মধ্যে অনেকের সলিলসমাধি হইতেছে। অবৈধ অভিবাসী হিসাবে বিদেশবিভূঁইয়ে কারাভোগ কিংবা দুঃসহ জীবনযাপনে বাধ্য হইতেছেন— এমন হতভাগ্য মানুষের সংখ্যাও কম নহে। তবে ইহাই যে সম্পূর্ণ চিত্র নহে— তাহাও বলার অপেক্ষা রাখে না। ইউরোপের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাইয়া ভূমধ্যসাগরে অসহায়ভাবে ডুবিয়া মরার কিংবা দুর্গম মরুতে-অরণ্যে পথ হারাইয়া মর্মান্তিক মৃত্যুর উদাহরণও কম নহে।

অভিবাসন অস্বাভাবিক কিছু নহে। সভ্যতার সূচনালগ্ন হইতে এই প্রক্রিয়া চলিয়া আসিতেছে। আদিমানব খাদ্য ও নিরাপত্তার সন্ধানে নিরন্তর স্থান পরিবর্তন করিয়াছেন। কালের পরিক্রমায় তাহার রূপ বদল হইয়াছে মাত্র। জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে এখনও সেই অভিযাত্রা অব্যাহত আছে। অপেক্ষাকৃত দরিদ্র অঞ্চলের মানুষ ছুটিয়া যাইতেছে উন্নত অঞ্চলের দিকে। নূতন বিশ্বব্যবস্থায় রাষ্ট্রীয় বিধিনিষেধ এই ক্ষেত্রে গুরুতর বাধা হইয়া দাঁড়াইলেও মানুষের এই অভিযাত্রা যে অপ্রতিরোধ্য তাহার উদাহরণ ভূরি ভূরি। দুইদুইটি বিশ্বযুদ্ধের প্রলয়ঙ্করী অভিঘাত ইহাতে যে নূতন মাত্রাটি যোগ করিয়াছে তাহা হইল নিরাপত্তার সংকট। বিশ্বব্যাপী নানা উছিলায় অত্যাচার-নিপীড়নের সেই সংকটও দিনদিন বাড়িয়া চলিয়াছে। অতএব, জীবন-জীবিকা ও নিরাপত্তার ত্রিমুখী সংকটের তীব্র চাপে অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থেই হউক কিংবা উন্নত জীবনের প্রত্যাশায়ই হউক বিপন্ন মানুষ একদেশ হইতে অন্যদেশে ছুটিয়া যাইবেই। এই বাস্তবতা শুধু বাংলাদেশের একার নহে। তবে অবৈধ অভিবাসন যেমন সমর্থনযোগ্য নহে, তেমনি এই কারণে প্রাণহানিসহ যেইসব মর্মস্পর্শী ঘটনা ঘটিয়া চলিয়াছে তাহাতেও উদ্বিগ্ন না হইয়া উপায় নাই। ইহার সহজ কোনো সমাধান আছে বলিয়া মনে হয় না। তবে দেশে নূতন নূতন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সামগ্রিক জীবনমান উন্নয়ন এবং বৈধপথে বিদেশগমনের সুযোগ সমপ্রসারণের মাধ্যমে এই আত্মঘাতী প্রবণতার লাগাম কিছুটা হইলেও টানিয়া ধরা সম্ভব বলিয়া আমরা মনে করি। পাশাপাশি, মানবপাচারকারীদের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই আরও কঠোর হইতে হইবে।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, 'উপজেলা নির্বাচনেও ভাগ বাটোয়ারার ষড়যন্ত্র করছে আওয়ামী লীগ।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
5 + 5 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
সেপ্টেম্বর - ১৮
ফজর৪:২৯
যোহর১১:৫৩
আসর৪:১৭
মাগরিব৬:০৩
এশা৭:১৬
সূর্যোদয় - ৫:৪৫সূর্যাস্ত - ০৫:৫৮
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :