The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ৫ ফাল্গুন ১৪২০, ১৬ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ১৩ রানে হারল বাংলাদেশ | নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১০৬ জন | আল-কায়েদার ভিডিও বার্তার সঙ্গে বিএনপির যোগসূত্র নেই: মির্জা ফখরুল | চট্টগ্রামের অপহৃত স্বর্ণ ব্যবসায়ী উদ্ধার

প্রথম ধাপে ৯৭ উপজেলা নির্বাচন

বুধবার ভোট উত্সব, প্রস্তুত ইসি

সাইদুর রহমান

চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট যুদ্ধ শুরু হচ্ছে আগামী বুধবার। প্রথম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচন ঘিরে সহিংসতার আশঙ্কা না থাকলেও পর্যাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োগ করা হয়েছে।

আগামী বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দেশের ৪০ জেলার ৯৭ উপজেলায় ভোট উত্সব শুরু হবে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় উপজেলা পর্যায়ে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী। পর্যাপ্ত র্যাব, বিজিবি, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যও নামানো হয়েছে। আজ মধ্যরাতেই শেষ হয়েছে মিছিল-মিটিংসহ সব ধরনের প্রচার-প্রচারণা। একই সঙ্গে বন্ধ হচ্ছে সব ধরনের যান্ত্রিক যান-চলাচল। তবে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচির ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। অন্য দিকে, দ্বিতীয় পর্যায়ের ২৭ ফেব্রুয়ারি ১১৬ উপজেলায় ভোটগ্রহণের আগে এখন চলছে জমজমাট প্রচারণা।

স্থানীয় সরকারের উপজেলা নির্বাচন দলীয় ব্যানারে না হলেও সব এলাকাতেই দলীয় প্রভাব রয়েছে। নির্বাচনে প্রধান দুই রাজনৈতিক শক্তি আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের পছন্দমতো প্রার্থী দিয়েছে। একই সঙ্গে বড় দল দুটির অসংখ্য বিদ্রোহী প্রার্থীও ভোটযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। অন্য দিকে, বিএনপি অংশ নেয়ায় এ নির্বাচন নিয়ে নানা কারণে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে ব্যাপক উত্সাহ রয়েছে। এ সব উপজেলাতে ভোটগ্রহণ উপলক্ষে সাধারণ ছুটি থাকছে।

ইসি-সংশ্লিষ্টরা জানান—গত ১৯ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশন প্রথম ধাপের ১০২টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করলেও বুধবার ভোট হবে ৪০ জেলার ৯৭টি উপজেলায়। সীমানা নির্ধারণ নিয়ে জটিলতার কারণে রংপুরের চারটি উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত রয়েছে। এগুলো হলো রংপুর সদর, কাউনিয়া, গঙ্গাচরা ও পীরগাছা। এই ধাপের পীরগঞ্জ উপজেলার ভোট হবে ২৪ ফেব্রুয়ারি। এবার পীরগঞ্জসহ ৯৮টি উপজেলায় মোট ১ হাজার ২৭৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নিয়েছেন। এদের মধ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন ৪৩২ জন। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৫১৩ জন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৩২৯ জন। মোট ভোটার ১ কোটি ৬৪ লাখ ৭৮ হাজার ১৭২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮১ লাখ ৯১ হাজার ৫৩৭ জন, মহিলা ভোটার ৮২ লাখ ৮৬ হাজার ৬৩৫ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৬ হাজার ৯৯৫টি, ভোটকক্ষ ৪৩ হাজার ২৯০টি। প্রিসাইডিং অফিসার প্রতি ভোট কেন্দ্রে একজন করে মোট ৬ হাজার ৯৯৫ জন। সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার প্রতি ভোটকক্ষের জন্য একজন করে মোট ৪৩ হাজার ২৯০ জন এবং পোলিং অফিসার ৮৬ হাজার ৫৮০ জন দায়িত্ব পালন করবেন।

ভোটারদের নিরাপত্তা জোরদার:

নির্বাচন ঘিরে ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে ইসি। এ ছাড়া সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দেয়ার জন্য আলাদা নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণভাবে প্রথম ধাপের নির্বাচন করতে সোমবার থেকে এ সব উপজেলায় সেনাবাহিনী নামানো হয়েছে। নির্বাচন-পরবর্তী দুই দিন পর্যন্ত তারা দায়িত্ব পালন করবে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে তাদের নামানো হয়েছে। প্রতি উপজেলায় ১ প্লাটুন করে সেনাবাহিনীর সদস্য টহল দিচ্ছেন। বড় উপজেলায় এ সংখ্যা প্রয়োজন হলে আরো বাড়বে ইসি। পাশাপাশি প্রতি উপজেলায় সেনাবাহিনীর দুই থেকে তিনটি গাড়ি রয়েছে। সঙ্গে সেনাবাহিনীর কমান্ডিং অফিসার এবং একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট রয়েছেন। মোবাইল ফোর্স হিসেবে পর্যাপ্ত র্যাব, বিজিবি, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছেন। এ ছাড়া প্রতি কেন্দ্রে একজন পুলিশ, অঙ্গীভূত আনসার একজন, অঙ্গীভূত আনসার ১০ জন (মহিলা-৪, পুরুষ-৬) এবং আনসার একজন ও গ্রামপুুলিশ একজন করে আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্বে রয়েছেন। পার্বত্য এলাকা, দ্বীপাঞ্চল ও হাওর এলাকায় এটা শুধু পুলিশের ক্ষেত্রে দুজন হবে। এ ছাড়া, ভোটের দিনের জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় ৩৮৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং ৯৭ জন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে।

নির্বাচনে নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সন্দেহ:

ইসি কর্মকর্তারা জানান—উপজেলা নির্বাচনে যে হারে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে তাতে কার্যত এই নির্বাচনের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে ইসি। চার ধাপের ৫৫ জেলাতেই রিটার্নিং অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এডিসি) এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা (ইউএনও)। অন্য দিকে, ৯টি জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা করা হয়েছে কমিশনের সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে। জেলা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তারা সরকারি কর্মকর্তাদের নির্বাচনী কাজে সহায়তা করছে মাত্র।

কেন্দ্রীয় মনিটরিং কাল শুরু:

অবশেষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা এবং ইসি কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেল গঠন করেছে ইসি। আজ ইসির উপসচিব মিহির সারওয়ার স্বাক্ষরিত চিঠি সংশ্লিষ্ট সব বিভাগে পাঠানো হয়েছে। আগামীকাল থেকে বৃহষ্পতিবার পর্যন্ত টানা তিন দিন এই সেল কাজ করবে। নির্বাচন-পূর্ব, নির্বাচনের দিন ও নির্বাচন-পরবর্তী অনিয়ম নিয়ে কাজ করবে এই সেল। এ ছাড়া, এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর যোগাযোগ নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হবে।

দায়িত্বে অবহেলা করলেই ব্যবস্থা:

নির্বাচনী দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা দায়িত্বে অবহেলা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে নিবার্চন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ। আজ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, 'নির্বাচন-সংক্রান্ত দায়িত্ব প্রাপ্তদের বিরুদ্ধে যদি কোনো ধরনের অনিয়মে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া যায়, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। গোয়েন্দাদের তথ্য অনুযায়ী—এখন পর্যন্ত সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকায় বিশেষ নজর রাখতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট কেন্দ্রে আসতে পারেন এবং ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন, সে ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি রাখা হয়েছে।

নির্বাচনী এলাকায় সাধারণ ছুটি:

নির্বাচনে ভোটগ্রহণের জন্য সংশি¬ষ্ট এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। আজ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব এ এস এম মুস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়—সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকায় সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/প্রতিষ্ঠান/সংস্থায় কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারীগণ এবং সরকারি, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা তাদের নিজ নিজ ভোটাধিকার প্রয়োগের সুবিধার্থে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হলো। ঘোষিত ছুটির দিনগুলো হলো প্রথম পর্যায়ে ১৯ ফেব্রুয়ারি বুধবার ৯৭টি ও ২৪ ফেব্রুয়ারি রংপুর জেলার পীরগঞ্জ এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ২৭ ফেব্রুয়ারি বৃহষ্পতিবার ১১৭টি উপজেলা, ১ মার্চ শনিবার কক্সবাজার জেলার মহেশখালী ও তৃতীয় পর্যায়ে ৮৩টি উপজেলায় ১৫ মার্চ শনিবার।

নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকছে:

প্রথম ধাপের ১৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ৯৭টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আজ মধ্যরাত থেকে আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি দিবাগত মধ্যরাত পর্যন্ত কোনো ব্যক্তি নির্বাচনী এলাকায় কোনো জনসভা আহ্বান, অনুষ্ঠান বা তাতে যোগদান করতে এবং কোনো মিছিল বা শোভাযাত্রা সংঘটিত করতে বা তাতে যোগদান করতে পারবে না। তবে ২১ ফেব্রুয়ারি মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচির ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। আজ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের জনসংযোগ পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়—এ ছাড়া, উল্লিখিত সময়ের মধ্যে কোনো ব্যক্তি কোনো আক্রমনাত্মক কাজ বা বিশৃঙ্খলামূলক আচরণ করতে পারবেন না, ভোটার বা নির্বাচনী কাজকর্মে নিয়োজিত বা দায়িত্ব পালনরত কোনো ব্যক্তিকে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করতে পারবে না, কোনো অস্ত্র বা শক্তি প্রদর্শন বা ব্যবহার করতে পারবে না। কোনো ব্যক্তি উল্লিখিত কার্যকলাপের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হলে সে অন্যূন ৬ (ছয়) মাস এবং অনধিক ৫ বছর কারাদণ্ডে বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবে।

উল্লেখ্য, ৪৮৭টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন ছয় ধাপে করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে ইসি। এর মধ্যে প্রথম ধাপের ৯৭ উপজেলার ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী—মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল গত ২৫ জানুয়ারি, তা যাচাই-বাছাই হয় ২৭ জানুয়ারি এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল ৩ ফেব্রুয়ারি। এ ছাড়া, দ্বিতীয় ধাপে ১১৬ উপজেলায় ২৭ ফেব্রুয়ারি, তৃতীয় ধাপে ৮৩ উপজেলায় ১৫ মার্চ এবং চতুর্থ ধাপে ৪২ জেলায় ৯২টি উপজেলায় ভোট হবে ২৩ মার্চ। চলতি সপ্তাহে পঞ্চম ধাপের তফসিল ঘোষণার কথা রয়েছে।

সর্বশেষ আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান বলেছেন, 'আল-কায়েদার সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের কোন সম্পর্ক নেই'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
8 + 1 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুলাই - ১৮
ফজর৩:৫৬
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৩
সূর্যোদয় - ৫:২১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :