The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ৫ ফাল্গুন ১৪২০, ১৬ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ১৩ রানে হারল বাংলাদেশ | নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১০৬ জন | আল-কায়েদার ভিডিও বার্তার সঙ্গে বিএনপির যোগসূত্র নেই: মির্জা ফখরুল | চট্টগ্রামের অপহৃত স্বর্ণ ব্যবসায়ী উদ্ধার

আলোকপাত

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগুন

ফজলে আহমেদ

সক্রেটিস বলেছেন, নিজের কাজ বা দায়িত্ব সঠিক ও সুন্দরভাবে পালন করাকেই দেশপ্রেম বলে। সাধারণ মানুষের চেয়ে রাজনীতিবিদরাই দেশপ্রেমের কথাটা বেশি বেশি বলে থাকেন। এর পেছনে যে বিরাট স্বার্থ জড়িত আছে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। কারণ সাধারণ মানুষ দেশপ্রেমিক ও দেশদরদী নেতাদেরকে একটু বেশি পছন্দ করে। তবে নেতাদের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাসটা যেন দিন দিন কমে যাচ্ছে। তবে যে দলটি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকে তাদেরকে কাজ করার সুযোগ দেয়া উচিত। কারণ জনগণ তাদেরকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে। তাদের রায়ে দলটি ক্ষমতার মসনদে বসে। দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করে। তাদের থাকে সীমাহীন দায়িত্ব। তাদের কখনো নমনীয়, কখনো উদার, কখনো কঠোর হতে হয়। তাদের পাশাপাশি বিরোধী দলেরও অনেক দায়িত্ব আছে। যা সঠিকভাবে পালন করা উচিত। তারা সঠিকভাবে সমালোচনা করতে পারে। প্রতিবাদ করতে পারে কিন্তু ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপে লিপ্ত হতে পারে না। যা দেশ ও জাতির জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

গত কয়েক মাস ধরে টানা হরতাল ও অবরোধের কারণে স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে যায়। মানে বন্ধ থাকতে বাধ্য হয়। স্কুলে যাওয়ার মতো শুদ্ধ চর্চা বোধ করি পৃথিবীতে দ্বিতীয়টি নেই। ক্রমাগত সহিংসতায় শিক্ষা ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়লে এক সময় একটা দাবি উঠছিল। শিক্ষাকে রাজনীতির বাইরে রাখুন। দাবিটা আগেও উঠেছে কিন্তু এবার এর পেছনে বিরাট একটা শঙ্কাও ছিল। কিন্তু জানুয়ারির শুরুতে স্কুলে স্কুলে যখন নতুন বইয়ের উত্সব শুরু হলো তখন শঙ্কাটা অনেক কমে গেল সত্য কিন্তু নির্বাচনের আগে আগে যে রাজনৈতিক সহিংসতা ও তাণ্ডব শুরু হলো, তার ধকল গোটা জাতি কিভাবে সয়ে নিলো, তা ভাবলে অবাক হতে হয়। কারণ জাতি হিসাবে আমরা তো নির্বোধ নই।

নতুন বছরে কচি মনের শিশুরা নতুন বইয়ের ঘ্রাণ নিয়ে নতুন ক্লাশে যাওয়ার কথা ছিল। কোনো কোনো স্কুলে নতুন বইগুলো হাতে পেয়ে আনন্দে তারা উল্লাস করছিল। মাঠ জুড়ে সেকি ছোটাছুটি। আর কোনো কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামায়াত শিবিরের সহিংসতার শিকার হয়। তারা কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিয়েছে।

মনে পড়ে যায়। সত্যজিত্ রায়ের 'হীরক রাজা' ছবিটির কথা। হীরকের রাজা অত্যাচারী ছিলেন। রাজ্যের কেউ যাতে কোনো অবস্থাতেই মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে সেদিকে সদা সতর্ক ছিলেন। কেউ প্রতিবাদী হলেই, তাকে ধরে এনে যন্তর মন্তর ঘরে ঢুকিয়ে দিয়ে মগজ ধোলাই করতেন। যাকে একবার মগজ ধোলাই করে দিতেন, তিনি হীরকের রাজা ছাড়া কিছুই বুঝতেন না। দমে দমে হীরকের রাজার নাম নিতেন। উচ্চস্বরে একজন উন্মাদের মতো বলতেন, যাই যদি যাক প্রাণ হীরকের রাজা ভগবান।

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড, শিক্ষাই জাতির উন্নয়নের সোপান। তাই জাতি যাতে শিক্ষা লাভ করতে না পারে, সচেতন হতে না পারে, জাতিসত্তা বিকাশের কথা ভাবতে না পারে। স্বাধীনতার কথা ভাবতে না পারে, সেদিকে হীরকের রাজার ছিল কঠিন দৃষ্টি। বিপ্লবী শিক্ষকের স্কুলটায় রাজার লোকজন কেমন করে আগুন ধরিয়ে দিল। দাউ দাউ করে জ্বলতে জ্বলতে এক সময় ছাই-এ পরিণত হয়ে গেল। বই নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের সে কি দৌড়াদৌড়ি। অন্যদিকে মাস্টারও দৌড়াচ্ছে। দৃশ্যটা জাতির বিবেককে ব্যাপক নাড়া দিয়েছিল কিন্তু বাংলাদেশে এমন কি ঘটেছিল? এমন কি ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়ে ছিল, যার প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে স্কুলগুলো পুড়িয়ে দিয়েছিল। তার মানে শিক্ষাকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল। জাতির মেরুদণ্ড ভেঙে দিতে চেয়েছিল। যারা এমন জঘন্য কাজ করতে পারে, তারা দেশ ও জাতির চিরশত্রু, তাদেরকে কোনো অবস্থাতেই ক্ষমা করা যায় না। এ দেশে রাজনীতি করার কোনো অধিকার দেয়া যায় না। তাদেরকে কঠোর হস্তে দমন করা সরকারের প্রধান কাজ বলে আমরা মনে করি। সরকারকে আরো অনেক কঠোর হতে হবে। শাস্তির বিধান আরো কঠিন করতে হবে। যতবেশি এইসব বাস্তবায়িত করতে পারবে সরকারের ভাবমূর্তি ততো উজ্জ্বল হবে।

লেখক :শিশু সাহিত্যিক

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান বলেছেন, 'আল-কায়েদার সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের কোন সম্পর্ক নেই'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
2 + 6 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুলাই - ১৮
ফজর৩:৫৬
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৩
সূর্যোদয় - ৫:২১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :