The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ৫ ফাল্গুন ১৪২০, ১৬ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ১৩ রানে হারল বাংলাদেশ | নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১০৬ জন | আল-কায়েদার ভিডিও বার্তার সঙ্গে বিএনপির যোগসূত্র নেই: মির্জা ফখরুল | চট্টগ্রামের অপহৃত স্বর্ণ ব্যবসায়ী উদ্ধার

এইচএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি ২০১৪

সমাজবিজ্ঞান দ্বিতীয়পত্র

মোহাম্মদ হেদায়েত উল্যাহ , প্রভাষক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, এনায়েতবাজারস্থ মহিলা কলেজ চট্টগ্রাম

সৃজনশীল

প্রিয় শিক্ষার্থীরা আজ তোমাদের জন্য সমাজবিজ্ঞান দ্বিতীয়পত্রের ৩য় অধ্যায় থেকে আলোচনা করা হলো। এই অধ্যায় বুঝে পড়ার সাথে সাথে বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানসমূহে আবিষ্কৃত নিদর্শনগুলোর বর্ণনা ভালোভাবে জেনে রাখতে হবে। বিভিন্ন বিহার, প্রাসাদ ও মন্দিরের আয়তন,কক্ষের সংখ্যা প্রভৃতি জানার সাথে সাথে অবস্থান ও নামকরণ অবশ্যই ভালোভাবে মনে রাখতে হবে।

উদ্দীপকটি পড়ে নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও

বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানসমূহের মধ্যে একটি বিখ্যাত স্থান উত্তরবঙ্গে অবস্থিত। উক্ত স্থানে খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দী থেকে ষোড়শ শতাব্দী পর্যন্ত মৌর্য, গুপ্ত, পালসহ বিভিন্ন সামন্ত রাজবংশের প্রাদেশিক রাজধানী ছিল। উক্ত স্থানে রাজা পরশুরামের প্রাসাদ রয়েছে। স্থানটি বাংলাদেশের সমাজ ইতিহাসে অতীব গুরুত্বপূর্ণ।

ক। সাঁওতালরা কয়টি গোত্রে বিভক্ত?

খ। স্মৃতিস্তম্ভ ও অট্টালিকা কেন সামাজিক ইতিহাসের উপাদান?

গ। উদ্দীপকে নির্দেশিত প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটি সম্পর্কে লিখ।

ঘ। উক্ত স্থানটির সমাজ ঐতিহাসিক গুরুত্ব আলোচনা কর।

উত্তর:

ক। সাঁওতালরা সাত গোত্রে বিভক্ত।

খ। স্মৃতিস্তম্ভ ও অট্টালিকা আর্থ-সামাজিক এবং ধর্মীয় সাংস্কৃতিক পরিচয় বহন করে।একই সাথে স্থাপত্য শিল্পের মান অনুধাবনে সাহায্য করে।ভারতীয় সমাজ, সভ্যতা ও ইতিহাসের উত্স উপাদান খুঁজতে এর গুরুত্ব দেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রাপ্ত প্রাচীন মঠ,মন্দির,মসজিদ ও স্মৃতিস্তম্ভ তত্কালীন সমাজ ও সভ্যতা সম্পর্কে জানতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। তাই বাংলাদেশসহ যে কোন সমাজে স্মৃতিস্তম্ভ ও অট্টালিকা সামাজিক ইতিহাস রচনায় গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

গ। উদ্দীপকে নির্দেশিত প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটি হল মহাস্থানগড়।

বাংলাদেশের বর্তমান বগুড়া জেলা শহর থেকে ৮ কি:মি উত্তরে স্থানটি অবস্থিত। দেশের অন্যতম প্রাচীন নগরী মহাস্থানগড়ের দৈর্ঘ্য ৫০০০ ফুট এবং প্রস্থ ৪৫০০ ফুট। করতোয়া নদীর তীরে অবস্থিত এই স্থানটি সমতল ভূমি থেকে ১৫ ফুট উঁচুতে। অনেকের মতে মহাস্নান থেকে এর নামকরণ হয়েছে।এখানেই মৌর্য,গুপ্ত,পালসহ কতিপয় হিন্দু সামন্ত রাজবংশের রাজধানী ছিল। এখানে মহাস্থানের সর্বশেষ রাজা পরশুরামের প্রাসাদ রয়েছে। প্রাসাদটি আয়তন ২০০ ফুট । এখানে রাজা পরশুরামের রাজসভা পরিচালিত হত।

উপরোক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে উদ্দীপকে নির্দেশিত প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটি মহাস্থানগড়।

ঘ। মহাস্থানগড়ের সমাজ ঐতিহাসিক গুরুত্ব রয়েছে। স্থানটির ধ্বংসাবশেষ বাংলাদেশের সমাজ ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হতে পারে তাতে সন্দেহ নেই। এক্ষেত্রে সমস্যা হল স্থানটি পরিকল্পিতভাবে খনন কাজ পরিচালিত হয়নি। একই সাথে উদ্ধারকৃত ধ্বংসাবশেষের সবগুলোর সঠিক এবং বিস্তারিত পাঠ উদ্ধার এখনও সম্ভব হয়নি। প্রায়ই অনুমান বা লোক কাহিনীর সাহায্যে এসবের ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। এ সমস্যা স্বত্বেও মহাস্থানগড়ের যে বর্ণনা পাওয়া যায় তাতে মনে হয়-

১। ঐ এলাকায় বৌদ্ধ ও হিন্দু সমাজ ও সংস্কৃতির প্রভাব ছিল।কেননা সেখানে অনেক হিন্দু ও বৌদ্ধ মন্দিরের সন্ধান পাওয়া যায়।

২। স্থানটি পরবর্তীতে এ অঞ্চলে আগত মুসলমানদের দখলে চলে যায় এবং মুসলিম সংস্কৃতির গোড়াপত্তন হয়। কথিত আছে এখানকার সর্বশেষ হিন্দু নৃপতি রাজা পরশুরাম শাহ সুলতান মহিসাওয়ার নামক এক মুসলিম দরবেশ দ্বারা পরাজিত হন। মহাস্থানগড়ে ঐ বিজেতা দরবেশের মাজারের সন্ধান পাওয়া গেছে।মুসলিম বিজেতার মাধ্যমে সেখানে মুসলিম সমাজ ও সংস্কৃতির প্রসার ঘটে বলে অনুমান করা যায়।

তবে এছাড়াও মহাস্থানগড়ের সভ্যতা পতনের অন্য কোন কারণ আছে কিনা তা সুস্পষ্টভাবে বলা মুসকিল।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান বলেছেন, 'আল-কায়েদার সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের কোন সম্পর্ক নেই'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
4 + 1 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুলাই - ১৮
ফজর৩:৫৬
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৩
সূর্যোদয় - ৫:২১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :