The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ৫ ফাল্গুন ১৪২০, ১৬ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ১৩ রানে হারল বাংলাদেশ | নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১০৬ জন | আল-কায়েদার ভিডিও বার্তার সঙ্গে বিএনপির যোগসূত্র নেই: মির্জা ফখরুল | চট্টগ্রামের অপহৃত স্বর্ণ ব্যবসায়ী উদ্ধার

এ টি এম গো লা ম মা হ বু ব

'পথের পাঁচালী'র অপুর মতোই তার শৈশব-কৈশোর কেটেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের বাগানে বাগানে, মহানন্দার তীরে মাইলের পর মাইল ছুটে বা কখনও রেল লাইন ধরে ছুটে চলা ছিল গোলাম মাহবুবের দৈনন্দিনের কর্ম। তবে যৌবনের শুরুটা কেটেছে গণআন্দোলনে আপামর জনতার উত্তাল আন্দোলনের ঢেউয়ের মাঝে। সে সময় মনের অজান্তেই রাজপথে হেঁটেছেন, স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করেছেন চারদিক। নির্যাতন, শোষণ আর অবেহেলার উত্তাপ তখন প্রজন্মকে উত্তপ্ত করে দ্রোহী করেছে। সে থেকেই সাহিত্যের ভেতর ঢুকে পড়া, উঁকি দেওয়া শুরু এ টি এম গোলাম মাহবুবের। আর লেখালেখির ক্ষেত্রে গোলাম মাহবুবের অনুপ্রেরণা হয়েছেন 'পথের পাঁচালী', 'লালসালু', 'পদ্মা নদীর মাঝি'র মহান স্রষ্টারা। যারা অপু-কুবেরদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন তার সঙ্গে। নব্বইয়ে যখন একদিন পত্রিকার পাতায় দেখলেন 'অপু'রই বয়সের একজনের লাশ সুটকেসের ভেতর ডাস্টবিনে পড়ে রয়েছে সে সময়েই প্রথম লিখেন 'বর্ষোপল'। তবে লেখকের মতে, সেটি ঠিক উপন্যাস হয়ে উঠেনি, কিন্তু প্রথম লেখার যে কি আনন্দ তখন বুঝেছিলেন, বুকে চেপে ঘুরে বেরিয়েছেন এখানে সেখানে। গোলাম মাহবুব তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। একদিন নিজের প্রথম লেখা নিয়ে সাহস করে চলে গেলেন ফজলুল হক হলের হাউস টিউটর লেখক হুমায়ূন আহমেদের বাসায়। তিনি লেখাটি দেখলেন। তারপর বললেন, 'লিখতে থাকো। বেশি বেশি পড়।' এরপর লেখাটি প্রকাশের জন্য ছোটাছুটি শুরু করলেন। ১৯৯৩-এ ছাপার অক্ষরে হাতে পেলেন 'বর্ষোপল'। সে ছাপা তেমন কিছুই নয়, তবু অন্যরকম এক ভালোলাগা তৈরি করেছিল।

গোলাম মাহবুবের বড় গল্প ও উপন্যাস লিখতে বরাবরই ভালো লাগে। লিখে আনন্দ পান। কেন যেন, মানুষের যাপিত জীবনকে শব্দ দিয়ে, বাক্য দিয়ে চিত্রায়িত করতে, চরিত্রগুলোকে কাহিনীর শাখা-প্রশাখায় ছড়িয়ে দিয়ে আনন্দ পান। তার লেখা 'হূদয়ের জলরং' প্রকাশিত হয় ১৯৯৪ সালে। আর তার লেখা 'অন্তর গৃহ' উপন্যাসটি একবারেই অন্দরের, অন্তরের গল্প। বলা যায় কাব্যিক ক্যানভাসে জীবনের অনুরাগ। এবারের বইমেলায় তার একটি উপন্যাস এসেছে—'নোনা জলের কাব্য'।

আপনি লেখার মাধ্যমে কি সমাজ, রাষ্ট্র আর ব্যক্তি ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার স্বপ্ন লালন করেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে গোলাম মাহবুব বলেন, 'ব্যক্তি মর্যাদা, সমাজ আর রাষ্ট্র যেভাবে লালন করি নিজের সত্তায়; তেমনই ব্যক্তি, সমাজ আর রাষ্ট্র খুঁজি আমার লেখার ভাঁজে ভাঁজে। পরিবর্তনের স্বপ্নই আঁকি, আঁকছি।' একজন লেখকের সৃষ্টি সফল ও সার্থক হয়ে ওঠা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'যে আলো দেখবার জন্য শব্দের পর শব্দ দিয়ে বাক্য গেঁথে হূদয়ের স্পন্দন তৈরি করি, সে আলোয় যখন আমাদের জীবন যাপন আলোকিত হয়ে ওঠে তখনই একজন লেখকের সৃষ্টি সফল ও সার্থক হয়ে ওঠে।'

বর্তমান প্রজন্ম সম্পর্কে মূল্যায়নে তিনি বলেন, 'এই প্রজন্মের পাঠক যুগ চেতনায় সমৃদ্ধ। গতিশীল মননশীলতায় উদ্ভাসিত। এক আলোকিত প্রজন্ম।'

তার বর্তমান পাঠ তালিকায় রয়েছে 'পদ্মা নদীর মাঝি' ও 'যুদ্ধ ও শান্তি' (ওয়ার অ্যান্ড পিস)। তার প্রিয় লেখকরা হচ্ছেন মানিক বন্দোপাধ্যায়, লিও টলস্টয়, বুদ্ধদেব গুহ, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় ও হুমায়ূন আহমেদ।

সবশেষে তার ভবিষ্যত্ স্বপ্নের কথা জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, 'আমি জানি যে, মানুষ ফ্যাক্টরিতে উত্পাদিত পণ্য বা যন্ত্র নয়, যে সবাই সবদিক দিয়ে একই ছাঁচের বা ফর্মার হবে। তবে আমরা মানুষ হব—এই স্বপ্নই লালন করি।'

এক নজরে

এ টি এম গোলাম মাহবুব

ডাকনাম :এ্যারন

জন্মতারিখ ও স্থান :২৭ ডিসেম্বর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)

মায়ের নাম :মোতিয়ারা বেগম

বাবার নাম :মো. সেরাজুল হক

প্রথম স্কুল :চাঁপাইনবাবগঞ্জ মডেল স্কুল

প্রিয় মানুষ :বাবা-মা

প্রিয় উক্তি :'যা কিছু ঘটে তা ধৈর্য ও সময়ই ঘটায়।' (লিও টলস্টয়)

প্রিয় পোশাক :প্যান্ট শার্ট

অবসর কাটে যেভাবে :বই পড়ে, গান শুনে

সাফল্যের সংজ্ঞা :সুন্দর সংকল্পের সুচারু বাস্তবায়নই সাফল্য।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান বলেছেন, 'আল-কায়েদার সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের কোন সম্পর্ক নেই'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
8 + 4 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
সেপ্টেম্বর - ২৬
ফজর৪:৩৪
যোহর১১:৫১
আসর৪:১১
মাগরিব৫:৫৪
এশা৭:০৭
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৪৯
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :