The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, ৫ ফাল্গুন ১৪২০, ১৬ রবিউস সানী ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ১৩ রানে হারল বাংলাদেশ | নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১০৬ জন | আল-কায়েদার ভিডিও বার্তার সঙ্গে বিএনপির যোগসূত্র নেই: মির্জা ফখরুল | চট্টগ্রামের অপহৃত স্বর্ণ ব্যবসায়ী উদ্ধার

তেলেঙ্গানা নিয়ে তুলকালাম

তালেব রানা

ভারতের ২৯তম রাজ্য হওয়ার অপেক্ষায় তেলেঙ্গানা। দেশটির অন্ধ্র প্রদেশ রাজ্যের এই অঞ্চল আগে নিজাম-শাসিত হায়দ্রাবাদ রাজ্যের (মেদক ও ওয়ারাঙ্গাল বিভাগ) অঙ্গ ছিল। অন্ধ্রপ্রদেশের তিনটি অঞ্চলের প্রধানতম হলো তেলেঙ্গানা। বাকি দুটি অঞ্চল উপকূলীয় অঞ্চল ও রায়ালসীমা যা সীমান্ধ্র নামেও পরিচিত। তেলেঙ্গানা অঞ্চলের আয়তন ১ লাখ ১৪ হাজার ৮৪০ বর্গকিলোমিটার এবং জনসংখ্যা অন্ধ্র প্রদেশের মোট জনসংখ্যার ৪১.৬ শতাংশ। ২০১৩ সালের ৩ অক্টোবর, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা অন্ধ্র প্রদেশ ভেঙে পৃথক তেলেঙ্গানা রাজ্য গঠনের ব্যাপারে সম্মতি জানিয়েছিলো। কিন্তু পার্লামেন্টে বিল আকারে উত্থাপিত হতে সময় লেগে যায়। নতুন রাজ্য গঠন করতে হলে এখন প্রয়োজন এই প্রস্তাবে ভারতীয় সংসদ ও রাষ্ট্রপতির অনুমোদন।

গত সপ্তাহে তেলেঙ্গানা রাজ্য বিলটি উত্থাপনের চেষ্টা চালায় কংগ্রেস। যা নিয়ে বিগত কয়েকদিন ধরেই উত্তেজনা বিরাজ করছিলো। তেলেঙ্গানা রাজ্য গঠনের বিরোধীরা লোকসভায় বিলটি উত্থাপন ঠেকানোর লক্ষ্যে সর্বোচ্চ আদালতে একটি আবেদন করেছিলো। গত ৭ ফেব্রুয়ারি দেশটির সুপ্রিম কোর্ট তেলেঙ্গানা রাজ্য নিয়ে বিল উত্থাপন স্থগিত করতে অস্বীকৃতি জানান। সর্বোচ্চ আদালত অস্বীকৃতি জানানোর পর গত ১২ ফেব্রুয়ারি বুধবার অন্ধ্র প্রদেশকে অখণ্ড রাখতে ভারতের সংসদে তুমুল হট্টগোল হয়। ক্ষুব্ধ সংসদ সদস্যরা ওয়েলে নেমে এসে প্লাকার্ড-পোস্টার নিয়ে স্লোগান দেন এমনকি সংসদ সদস্যদের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কি হয়। আর বিল ঠেকাতে কয়েকজন আত্মহত্যারও হুমকি দেন। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার এ বিল ঠেকানো নিয়ে ভারতের পার্লামেন্টে তুলকালাম হয়। এ ঘটনায় অবাক হয়েছে ভারতসহ গণতান্ত্রিক বিশ্ব। নজিরবিহীন গন্ডগোল, বিশৃঙ্খলা এমন কী মারামারির ঘটনাও ঘটেছে। তেলেঙ্গানা-বিরোধী একজন এমপি সভার ভেতর মরিচের গুঁড়ো ছড়িয়ে দেয়ার পর সদস্যরা শ্বাসকষ্টে ভুগতে শুরু করেন, অনেককে হাসপাতালে পাঠাতে হয়। লোকসভার ভেতর একজন এমপি ছুরিও বের করেছিলেন বলে অভিযোগ উঠে।

দিনটাকে চরম কলঙ্কের মন্তব্য করে লোকসভার স্পিকার মীরা কুমার বলেছেন, ভারতের সংসদীয় গণতন্ত্রকে সারা বিশ্ব সম্মান করে, কিন্তু তাতে কালির ছিটে লেগে গেল। দোষীদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া যায় তা নিয়ে সবার সঙ্গে আলোচনা করবেন বলে জানান। এ ঘটনার পর ১৮ সংসদ সদস্যকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তবে মারধরের মধ্যেই বিল পেশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কংগ্রেস। এ ঘটনায় ভারতের গণমাধ্যমগুলো কঠোর সমালোচনা করেছে। এভাবে লজ্জাজনক ঘটনা ঘটতে থাকলে পার্লামেন্টের মতো গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান দুর্বল হয়ে পড়বে বলে তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। এ ঘটনাকে টাইমস অব ইন্ডিয়া বলেছে, 'মরিচের গুঁড়ায় ভারতের গণতন্ত্রের কান্না। কেউ কেউ বলেছে, এ ঘটনা ভারতের গণতন্ত্রের জন্য বিপজ্জনক।

কেন হঠাত্ করে তেলেঙ্গানার আগুন জ্বলে উঠলো? এ অঞ্চল অবশ্যই ঝাড়খন্ড, ছত্তিশগড় বা উত্তরখন্ডের থেকে ভিন্ন। নতুন রাজ্য হিসেবে এর জন্ম হলেও মূল রাজ্য অন্ধ্র প্রদেশ ম্লান হয়ে যাবে। দেখা যাবে, এরই ধারাবাহিকতায় অন্য অংশ সীমান্ধ্রের জন্ম হবে। আর অন্ধ্র প্রদেশ তখন তেলেঙ্গানা নামে মিলিয়ে যাবে। ১৯৫৬ সালে যেভাবে তেলেঙ্গানা অন্ধ্রের নামে মিলিয়ে গিয়েছিলো। তেলেঙ্গানা হলো অন্ধ্রের সবচেয়ে ধনী ও সম্পদশালী অঞ্চল। অন্ধ্রের সঙ্গে ৫৭ বছর আগে একীভূত হলেও এখনো অন্ধ্রের সঙ্গে বিভাজন রয়ে গেছে। এখন আলাদা হয়ে গেলে নিজের মতো করে চলতে পারবে তেলেঙ্গানা। তবে সে ধকল কাটিয়ে ওঠা কঠিন হবে অন্ধ্রের বাকি অঞ্চলের জন্য। তাই এ অবস্থায় তেলেঙ্গানা রাজ্য নয় বরং সীমান্ধ্র রাজ্য গঠন জরুরি বলে মনে করে অনেকে।

তেলেঙ্গানা শুধু পার্লামেন্টকে বিপর্যস্ত করেনি, বিপদ ডেকে এনেছে কংগ্রেসের জন্যও। কারণ, তেলেঙ্গানা হলো কংগ্রেসের নির্বাচনী ট্র্যাম্পকার্ড। অবিভক্ত অন্ধ্র প্রদেশ রাজ্যে লোকসভার আসন সংখ্যা ৪২। এর মধ্যে প্রস্তাবিত তেলেঙ্গানার ১০ জেলায় পড়ছে ১৭টি আসন। এত বছর ধরে টালবাহানার পর কংগ্রেস দলীয় সদস্যদের বাধার মুখে পৃথক তেলেঙ্গানার দাবি বাস্তবায়িত করতে না পারলে ভোটে তার প্রতিফলন দেখা যেতে পারে।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান বলেছেন, 'আল-কায়েদার সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের কোন সম্পর্ক নেই'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
8 + 9 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুলাই - ১৮
ফজর৩:৫৬
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৩
সূর্যোদয় - ৫:২১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :