The Daily Ittefaq
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মার্চ ২০১৪, ২৯ ফাল্গুন ১৪২০, ১১ জমা. আউয়াল ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে কাল বিএনপির বিক্ষোভ | টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বধোন করলেন প্রধানমন্ত্রী | ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫ | বিদ্যুতের দাম বাড়ল ৬.৬৯ শতাংশ, ১ মার্চ থেকে কার্যকর | রাজধানীতে ছয় তলা ভবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে | আদালত অবমাননা : প্রথম আলোর সম্পাদক-প্রকাশক খালাস | খন্দকার মোশাররফ সরকারের চক্রান্তের শিকার : রিজভী

তিন যুগ পর কাজ শুরু হলেও অগ্রগতি নেই

দর্শনা-মেহেরপুর-পোড়াদহ রেলপথ

মেহেরপুর প্রতিনিধি

মেহেরপুরের সাথে রেল যোগাযোগের প্রস্তাবিত দর্শনা —মেহেরপুর-পোড়াদহ রেলপথ প্রকল্প দীর্ঘ ৩৫ বছর ফাইলবন্দী থাকার পর ২০১১ সালের ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবসে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় কাজ শুরু হয়। কিন্তু কাজের মন্থর গতি দেখে অনেকে আবার হতাশা প্রকাশ করতে শুরু করেছেন।

মেহেরপুর জেলা সদর ব্যবসা-বাণিজ্য এবং অন্যান্য দিক দিয়ে অত্যন্ত গুরুত্ববহ। কিন্তু এ জেলা শহরের সাথে রেল যোগাযোগের কোন ব্যবস্থা নেই। নৌ-পথ ছিল, তাও বন্ধ হয়ে গেছে। মেহেরপুরের সাথে রেলযোগাযোগের প্রথম প্রস্তাবনা আসে বৃটিশ আমলে। এ সময় পোড়াদহ-মেহেরপুর-করিমপুর রেলপথ স্থাপনের পরিকল্পনা ছিল। এটি একটু পরিবর্তন করে চুয়াড়াঙ্গা-মেহেরপুর -দৌলতপুর রায়টা- ভেড়ামারা পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পরবর্তীতে এটি আর কার্যকর হয়নি । দেশ স্বাধীনের পর আবার প্রস্তাবিত রেলপথ নিয়ে কথাবার্তা শুরু হয়। ১৯৭৭ সালে প্রস্তাবিত রেলপথের আবার সংশোধন আনা হয়। সংশোধিত প্রস্তাবে দর্শনা- মেহেরপুর-পোড়াদহ পর্যন্ত রেলপথ স্থাপনের কথা বলা হয়। সে মতে ১৯৭৭ সালের ২৪ জানুয়ারি তত্কালীন মেহেরপুর মহকুমা প্রশাসন প্রকল্পে সুপারিশ করেন। চেষ্টা তদবিরের পর তত্কালীন রেলমন্ত্রীর নির্দেশে ৬ নভেম্বর ১৯৭৯ সালে প্রস্তাবিত রেলপথ স্থাপনে প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হয়।

১০ এপ্রিল ১৯৮২ সালে তত্কালীন প্রেসিডেন্ট এবং প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দেন। ১৮ এপ্রিল ১৯৮৩ সালে মেহেরপুর পৌরসভায় এক বৈঠকে প্রকল্পটি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। এরপর ১৪ মে ১৯৯৫ সালে মেহেরপুর জেলা প্রশাসক প্রস্তাবিত প্রকল্পটি খুলনা বিভাগীয় কমিশনের মাধ্যমে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো উদ্যোগ নেন। খুলনা বিভাগীয় কমিশনার বিষয়টি যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সচিব বরাবর পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

এদিকে গত ২০১১ সালের ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেহেরপুরের মুজিবনগরে রেল লাইন করার ঘোষণা দেয়ার পর রেল লাইন বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে ২০১১ সালের ২৪ এপ্রিল রেলওয়ের ডিজি'র নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল মেহেরপুর ও মুজিবনগর পরিদর্শন করেন। রেলওয়ের ডিজি টি এ চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলটি মেহেরপুরসহ মুজিবনগর এবং পার্শ্ববর্তী চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা ও দর্শনা এলাকা পরিদর্শন শেষে জানান, সম্প্রতি একনেকের বৈঠকে দর্শনা হয়ে মুজিবনগর পর্যন্ত ৪০ কিঃ মিঃ এবং মুজিবনগর থেকে মেহেরপুর পর্যন্ত ১৬ কিঃ মিঃ রেল লাইন স্থাপন করার বিষয়ে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। ৭শ' একর জমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে প্রায় ৭শ' কোটি টাকা ব্যয়ে দ্রুত রেল লাইন স্থাপনের কাজ শুরু করা হবে। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর রেল লাইন স্থাপনের কাজ দ্রুত শুরু করার লক্ষ্যে মেহেরপুর রেল লাইন বাস্তবায়ন কমিটির পক্ষ থেকে রেলওয়ের ডিজিকে স্মারক লিপি প্রদান করা হয়েছে। এরপরও কাজের দ্রুত অগ্রগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ বলেছেন, 'ইঁদুর স্বভাবের কিছু নেতার কারণে সংসদ নির্বাচন প্রতিহতের আন্দোলন ঢাকায় সফল হয়নি।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
6 + 9 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ২৬
ফজর৩:৪৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪১
এশা৮:০৪
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৩৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :