The Daily Ittefaq
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৩, ১২ চৈত্র ১৪১৯, ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ টাইগারদের টার্গেট ৩০৩ : প্রথম বাংলাদেশি বোলার হিসেবে আব্দুর রাজ্জাকের ২০০ উইকেট | আপিল করেছেন সাঈদী | আপিল করবেন না সঞ্জয় | মুন্সীগঞ্জে ১৪৫ মণ জাটকা আটক | সাতক্ষীরায় পুলিশের ওপর শিবিরকর্মীদের সশস্ত্র হামলা, গুলিবিদ্ধ ৪

পোশাকে দেশপ্রেম

দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর আমরা পেয়েছি আমাদের কাঙ্ক্ষিত লাল-সবুজের পতাকা। তাই লাল-সবুজকে বাঙালির চেতনার রং বলা যায়। বছর ঘুরে মার্চ মাস এলেই লাল আর সবুজের এক বিশাল ক্যানভাসের কথা আমাদের মনে পড়ে যায়। চেতনার গভীর থেকে তখন আমরা লাল সূর্যকে দেখি। পাশাপাশি সবুজ জমিনও আমাদের মনে প্রবলভাবে আলোড়ন তোলে। মহান স্বাধীনতা দিবসের চেতনাকে তুলে ধরতে আমাদের পোশাকেও যোগ হয় দেশপ্রেম। পোশাকে দেশপ্রেম নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন। লিখেছেন খালেদ আহমেদ

দেশপ্রেম প্রকাশের আয়োজন নানা মাধ্যমে হতে পারে। একজন বাঙালি হিসেবে হূদয়ে ধারণ করা দেশপ্রেমের চেতনার কিছুটা হলেও তুলে ধরা চাই পোশাকে, মননে। সেই ভাবনা থেকেই আমাদের ফ্যাশন হাউসগুলো এ প্রজন্মকে পোশাকের দিক থেকে করেছে স্বদেশমুখি। ফলে তাদের ডিজাইনের একটা বড় অংশজুড়ে রয়েছে দেশাত্মবোধের চেতনা। এবারের স্বাধীনতা দিবসে লাল-সবুজের প্রত্যয়ে আবারও সে চেষ্টাই চালিয়েছেন তারা। মূলত, ফ্যাশনের ধারাটা সময়কে ধারণ করে। স্টাইল, স্মার্টনেস, আউটলুকিংয়ের সামগ্রিক কনসেপ্টে বৈচিত্র্য এলেও স্বাধীনতা দিবসের ফ্যাশনে দেশাত্মবোধের ভাবধারাটা উন্মোচিত হয়। বাঙালির স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, বাংলা ভাষার প্রতি সশ্রদ্ধ মমতা এবং এক রক্তক্ষয়ী ইতিহাসের প্রবল অনুরণন—যে অনুরণনের প্রতিটি মুহূর্তে রয়েছে স্বাধীনচেতা বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্যের মহিমান্বিত গৌরব গাঁথা। দীর্ঘ আন্দোলন, সংগ্রাম, যুদ্ধ এবং পরিণতিতে স্বাধীনতা অর্জন। আর এই অর্জনের ভেতর দিয়েই অন্ধকার সরিয়ে-সরিয়ে বাঙালির পথচলা হচ্ছে সেই ৪২ বছর আগে পাওয়া রক্তোজ্জ্বল বিজয়ের আলোয়। ১৯৭১-এর ২৬ মার্চের স্বাধীনতা দিবস এখন ফ্যাশন স্টাইলের অনুষঙ্গ হিসেবে যোগ করেছে নতুন মাত্রা। এ ফ্যাশন-স্টাইলে উত্সবী আমেজ থাকলেও তার থেকে বেশি থাকে দেশাত্মবোধ তথা দেশপ্রেম। আর সে কারণেই স্বাধীনতা, বিজয় কিংবা ভাষা দিবসের ফ্যাশনের প্রথম চিত্রকল্প হিসেবে পোশাকে,

শোপিসে, পটে উঠে আসে মুক্তিযুদ্ধের স্থিরচিত্রের চিত্রকর্ম, বঙ্গবন্ধু, রবীন্দ্রনাথের মুখচ্ছবি। '৭১-এর আত্মত্যাগের বাঙালি ধরনটা যেমন হূদয় ছোঁয়া, মর্মস্পর্শী, আবেগঘন; তেমনি আনন্দময়তার রেশটাও কম নয়। ফলে দুটি রূপেরই প্রতিফলনে বিম্বিত হয় ২৬ মার্চ, ১৬ ডিসেম্বর এবং ২১ ফেব্রুয়ারির ফ্যাশন কনসেপ্টে। আর এই ফ্যাশন বোধের মর্মকথাটা চিত্রে ও কবিতার পঙক্তির মাধ্যমে পোশাকে উত্কীর্ণ করার সফল প্রয়াসটা প্রতি বছরের এই বিশেষ দিনগুলোতে করে থাকেন প্রতিষ্ঠিত আউটলেটগুলোর পক্ষে স্ব-স্ব ডিজাইনাররা। এবারের বিজয় দিবসও এর ব্যতিক্রম নয়। ইতোমধ্যে ঢাকার প্রতিষ্ঠিত ফ্যাশন হাউসগুলো বিভিন্ন প্রজন্মের ফ্যাশন সচেতনদের জন্য ডিসপ্লেতে সাজিয়েছে পোশাকের মনোহর পসরা। যেহেতু বিজয় দিবস তাই টি-শার্ট, ফতুয়া, পাঞ্জাবি, থ্রিপিস, শাড়িসহ নানা পোশাকে প্রাধান্য পেয়েছে লাল ও সবুজ রং। আমাদের জাতীয় পতাকার রঙকে তুলির আঁচড়ে নান্দনিকভাবে পোশাকের গায়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে নয়নাভিরাম আঙ্গিকে।

ফ্যাশন হাউস অঞ্জন'স স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে লাল-সবুজকে প্রাধান্য দিয়ে নতুন ডিজাইনের পোশাক এনেছে। পাশাপাশি ট্রেন্ডি এই আউটলাইনে থাকছে শাড়ি, কুর্তা, পাঞ্জাবি, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, টি-শার্ট ও শার্ট। এবারের ডিজাইনে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে স্বাধীনতা দিবসের বিভিন্ন মোটিভ। বড়দের পোশাকের পাশাপাশি ছোটদের জন্যও থাকছে বিভিন্ন পোশাক যা অঞ্জন'স-এর সকল শোরুমে পাওয়া যাবে। ফ্যাশন হাউস রঙ-এর ফ্যাশনের মূল ভাবনা গড়ে উঠেছে দেশীয় আত্মপরিচয়কে ঘিরে। দেশীয় রং, দেশীয় কাপড় রঙ-এর আয়োজনের মূল উপাদান। লাল-সবুজ আমাদের পতাকার রং, আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক।

স্বাধীনতার এই মার্চ মাসজুড়ে তাই লাল-সবুজকে নিয়েই রঙ-এর যত আয়োজন। রঙ-এর স্বাধীনতা দিবসের পোশাকগুলো ব্যবসায়িক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে নয়, দায়িত্ব ও মূল্যবোধ থেকেই করা হয়েছে। রঙ-এর স্বাধীনতা দিবসের আয়োজনে কিছুটা ভিন্নতা আনা হয়েছে। পোশাকগুলোতে ব্যবহার করা হয়েছে সুতি ও খাদি কাপড়। রঙ-এর স্বাধীনতা দিবসের বিশেষ আয়োজন শাড়ি, থ্রিপিস, ফতুয়া, পাঞ্জাবি, টি-শার্ট, মগ, টুপি ইত্যাদিতে তুলে ধরা হয়েছে বাংলাদেশ সংবলিত লেখা। আর লাল-সবুজ রঙের মাধ্যমে উঠে এসেছে দেশীয় ভাবনার পাশাপাশি দেশীয় সংস্কৃতির বিভিন্ন উপাদান ডিজাইনের অনুষঙ্গ হিসেবে। কাজের মাধ্যম হিসেবে এসেছে চুনরি, টাই-ডাই, ব্লক, বাটিক, অ্যাপলিক, কাটওয়ার্ক, স্ক্রিন ইত্যাদি। এ ছাড়া স্বাধীনতা দিবসে প্রিয়জনকে উপহার দেওয়ার জন্য রঙ-এ রয়েছে গিফট ভাউচার। গর্ব করার মতো আমাদের যা কিছু আছে, তার অনুভূতিকে আরও বেশি মানুষের কাছে তুলে ধরার প্রচেষ্টায়, স্বাধীনতার এ মাসে স্বাধীনতার মহিমাকে পোশাকের মাধ্যমে সমুন্নত করতে সচেষ্ট হয়েছে দেশের অন্যতম ফ্যাশন হাউস কে ক্র্যাফট ।

স্বাধীনতার মাসে কে ক্র্যাফট আয়োজন করেছে স্বাধীনতার পোশাকের একটি বিশেষ কালেকশন। পহেলা মার্চ থেকে প্রতিটি কে ক্র্যাফট আউটলেটে এই কালেকশনের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। প্রধানত সুতি কাপড়ে তৈরি এ কালেক্শনে রং হিসেবে ব্যবহূত হয়েছে সবুজ ও লাল। নিজস্ব উইভিং ডিজাইনে লাল-সবুজে শাড়ি, টাই-ডাই শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া ও টপস, পাঞ্জাবি, টি-শার্ট, শাল, ব্যান্ডানা, স্কার্ফের একটি সমৃদ্ধ আয়োজন করা হয়েছে। এ আয়োজনে শিশুদের জন্যও পোশাক রয়েছে। প্রতি বছরের মতো এই বছরও নগরদোলা নিয়ে এসেছে স্বাধীনতার মাসে স্বাধীনতার পোশাক। লাল-সবুজের নান্দনিকতায় নগরদোলার স্বাধীনতার পোশাক সম্ভারে রয়েছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, পাঞ্জাবি, ছেলে-মেয়েদের ফতুয়া এবং বাচ্চাদের সব ধরনের পোশাক। বাবা-মায়ের পোশাকের সাথে মিল রেখে করা হয়েছে বাচ্চাদের পোশাক। এ সমস্ত পোশাকসমূহে কারুকাজ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে হাতের কাজ, এমব্রয়ডারি, স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক, কারচুপি ও অন্যান্য কাজ। পোশাকে রং নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিজয়ের প্রচলিত লাল-সবুজের পাশাপাশি অন্যান্য রংগুলো এসেছে পোশাক ও স্বাধীনতার মর্যাদার সাথে সমন্বয় রেখে। পোশাকের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ক্রেতাসাধারণের ক্রয় ক্ষমতা ও সাধ্যের মধ্যে।

এ ছাড়া বাংলার মেলা, অন্যমেলা, নিপুণ, আড়ং, নিত্য উপহার, বিবিআনা, তারামার্কা, পঙিত, বাসন্তী, এড্রয়েট, ওজি, ইনফিনিটি, নন্দনকুঠিরসহ অন্যান্য ফ্যাশন হাউসগুলো স্বাধীনতা দিবসে এনেছে লাল-সবুজের নানা ডিজাইনের পোশাক। মাত্র কয়েক প্রজন্ম আগেও আমাদের পোশাকে যে স্বাধীনতার চেতনাটুকু ছিল অনেকটাই অনুজ্জ্বল, সময়ের বিবর্তনে আজ সেই পোশাক সম্ভারেই লাল-সবুজের দৃপ্ত পদচারণা। উত্সবের যে রং মানুষ এতকাল ধরে তার পরিধেয়র মাঝে ধারণ করত এখন সেই উত্সবের ধারায় যুক্ত হয়েছে দেশপ্রেমের আবহও। আর তাই যেকোনো জাতীয় দিবসের মতো স্বাধীনতা দিবসেও এখন সর্বত্রই চোখে পড়ে পোশাকের মাঝে এক টুকরো স্বদেশ।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দেশে যৌথ উদ্যোগে তরুণ এসএমই উদ্যোক্তা তৈরির ভারতীয় প্রস্তাব সরকার গ্রহণ করবে বলে মনে করেন?
9 + 2 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ১৪
ফজর৪:৫৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৫:১২
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :