The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ০৫ এপ্রিল ২০১৩, ২২ চৈত্র ১৪১৯, ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ | কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌ চলাচল বন্ধ | চট্টগ্রামকে বিচ্ছিন্ন করার হুমকি হেফাজতের | সারা দেশ থেকে হেঁটে লংমার্চে যোগ দেয়ার আহবান হেফাজতে ইমলামের | লংমার্চে বাধা দিলে লাগাতার হরতাল:হেফাজতে ইসলাম | লংমার্চে পানি ও গাড়ি দিয়ে সহায়তা করছেন ফেনীর মেয়র | ঢাকার প্রবেশমুখে অবস্থান নেবে গণজাগরণ মঞ্চ | বিমানবন্দরের কার্গো ভিলেজে অগ্নিকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে | সীতাকুণ্ডে বাস খাদে, নিহত ৩ | উত্তরের ক্ষেপণাস্ত্র মোকাবেলায় দক্ষিণ কোরিয়ার যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন | ইন্দোনেশিয়ার কারাগারে বৌদ্ধ-মুসলিম দাঙ্গায় নিহত ৮ | টেস্ট দলে ফিরলেন সাকিব নাফীস | মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ৪১

ওলামায়েকেরামদের ৭ দফা দাবি

লংমার্চকে ঘিরে সুযোগ নিয়ে কাউকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না

-------------প্রধানমন্ত্রী

ইত্তেফাক রিপোর্ট

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা হেফাজতে ইসলামের লংমার্চে জামায়াত-শিবির অনুপ্রবেশ করে যাতে কোন ধরনের অঘটন ঘটাতে না পারে সেজন্য সকলকে সজাগ ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, বিএনপির সাথে হাত মিলিয়ে ক্ষমতা ভোগ করে জামায়াত একটা শক্ত অবস্থানে গেছে। তাই তারা নানা অপকর্ম করতে পারে। তবে শনিবারের লংমার্চকে ঘিরে সুযোগ নিয়ে কাউকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে গণভবনে কওমী মাদ্রাসার শীর্ষস্থানীয় ওলামায়েকেরামদের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। দেশব্যাপী জামায়াত নিষিদ্ধকরণ দাবির প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে রীট রয়েছে। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই আদালতে রীট আবেদনের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত সরকার থেকে নির্বাহী আদেশে কোন কিছু করা সম্ভব নয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলাম পবিত্র শান্তির ধর্ম। এই পবিত্র ধর্মের মর্যাদা রক্ষা প্রতিটি মুসলমানের দায়িত্ব। আমরা ধর্মকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার কিংবা ফায়দা হাসিলের রাজনীতিতে বিশ্বাস করি না। তিনি কওমী মাদ্রাসার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং শিক্ষা সনদ প্রদানে তার সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তের কথা তুলে ধরে সাক্ষাত্ করতে আসা ধর্মীয় নেতাদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা ৪/৫ ভাগে বিভক্ত। আপনাদের স্বীকৃতি দেয়ার জন্য কয়েকবার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি, কিন্তু আপনাদের মধ্য থেকে এক পক্ষ বাধা দেয়। তিনি বলেন, কওমী মাদ্রাসার স্বীকৃতি দিতে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে কমিশন গঠন করে দিয়েছি। কারিকুলাম ঠিক হয়ে গেলে এ দাবি পূরণ হয়ে যাবে।

আল্লামা মুফতি রুহুল আমীনের নেতৃত্বে আসা শতাধিক শীর্ষ ওলামায়েকেরাম ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের সঙ্গে জড়িত ব্লগারদের শাস্তি এবং মওদুদীবাদী জামায়াত-শিবির নির্মূলে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণসহ ৭ দফা দাবি জানান। দাবিগুলো হলো: মহানবীকে (সা.) কটূক্তিকারী চিহ্নিত বাকি ব্লগারদের গ্রেফতার এবং ধর্ম অবমাননাকারী ব্লগ, ফেসবুক পেইজ, ফেসবুক আইডি ও ওয়েবসাইটসমূহ বন্ধ, সংসদে আগামী অধিবেশনে মহানবীর (সা.) মর্যাদা সংরক্ষণ আইন পাস, দেশের বিভিন্ন স্থানে গ্রেফতার হওয়া কওমী মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষক, আলেম-ওলামা, ইমাম-মুয়াজ্জিন ও নিরীহ ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের নিঃশর্ত মুক্তি প্রদান ও মামলা প্রত্যাহার, অবিলম্বে কওমী মাদ্রাসার সদনের সরকারি স্বীকৃতি প্রদান, জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা মওদুদীর সব বই নিষিদ্ধ ও বাজেয়াপ্ত, ওআইসি ঘোষিত মহানবীকে (সা.) শেষ নবী অস্বীকারকারী কাদিয়ানীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণাসহ তাদের জন্য আলাদা কবরস্থানের ব্যবস্থা ও পাঠ্যবইয়ে আপত্তিকর বিষয়গুলো বাতিল এবং ভুল সংশোধন করে নতুন বই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়া। শীর্ষ ধর্মীয় নেতারা বলেন, জামায়াতের সঙ্গে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক দূরত্ব থাকতে পারে, কিন্তু আমাদের সঙ্গে দূরত্ব পবিত্র ইসলাম ধর্ম নিয়ে। জামায়াত ইসলাম ধর্মে নয়, মওদুদীবাদে বিশ্বাস করে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে সমর্থন ব্যক্ত করে তারা বলেন, এদেশ থেকে মওদুদীবাদী জামায়াত-শিবিরকে নির্মূল না করা গেলে এ দেশের মুসলমানদের শান্তি আসবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহানবী (সা.) এর বিদায় হজ্বে যে বাণী দিয়েছেন, প্রতিটি ক্ষেত্রে আমরা সেটা অনুসরণ করি। কোন ধর্মের ওপর আঘাত দেয়ার শিক্ষা ইসলামে নেই। যার ধর্ম সে স্বাধীনভাবে পালন করবে। তিনি বলেন, ইসলাম উদার ধর্ম। এই ধর্ম নিয়ে উন্মাদনা সৃষ্টি করে মানুষ হত্যা ইসলামের অবমাননা। এটা কখনোই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

আল্লামা মুফতি রুহুল আমিন বলেন, স্বাধীনতার সময় যারা এদেশের মানুষকে হত্যা-নির্যাতন করেছে দেরীতে হলেও তাদের বিচার হচ্ছে। তাই একটু ঝড় উঠবে। এ ঝড় থামাতে প্রস্তুত থাকতে হবে। যতদিন মওদুদীর অনুসারীরা থাকবে ততোদিন ওলামাদের জীবনে ঝুঁকি থাকবে।

মাওলানা আবুল কাশেম আশরাফি বলেন, ইসলামের শত্রুদের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার হতে হবে। মাওলানা এমদাদুল্লাহ হাশমী বলেন, আমরা ষড়যন্ত্র করতে আসিনি। আমরা ওলামাদের স্বীকৃতি চাই। মহানবীকে (সা.) নিয়ে যারা কটূক্তি করেছে তাদের বিচার দাবি করেন তিনি। কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের মহাসচিব মাওলানা শামসুল হক বলেন, সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা কখনো ইসলাম সমর্থন করে না।

মাওলানা মুফতি আবুল কাশেম বলেন, জামায়াত নিষিদ্ধ করুন। দেশের ওলামা আপনার সঙ্গে আছে।

মাওলানা মুফতি সোয়াহেব ইব্রাহিম বলেন, জামায়াত দেশ, স্বাধীনতা ও ধর্মের শত্রু। এ সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
রাশেদ খান মেনন বলেছেন, সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছে আবার হেফাজতের সঙ্গে আলোচনা করছে। এর ফলে সরকারের আমও যাবে ছালাও যাবে। তার বক্তব্যের সঙ্গে আপনি একমত?
8 + 2 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
সেপ্টেম্বর - ২০
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫৩
আসর৪:১৬
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :