The Daily Ittefaq
ঢাকা, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০১৩, ১ বৈশাখ ১৪২০, ২ জমাদিউস সানি ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ ভেনেজুয়ালার নতুন প্রেসিডেন্ট মাদুরো | পদ্মায় নৌকাডুবি: তিন লাশ উদ্ধার | রাজশাহীর তিন জেলায় হরতাল পালন: ছাত্রলীগ কর্মীকে হত্যা, বিএনপি কার্যালয়ে ভাংচুর | সাংবাদিকদের অনশনে বিএনপির সংহতি | ঢাবিতে ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি: ১১ কর্মী বহিষ্কার | ক্ষমা চাইল প্রথম আলো ও হাসনাত আবদুল হাই | সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখবে সশস্ত্র বাহিনী: তিন বাহিনীর প্রধান | যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মাননা পাচ্ছেন ড. ইউনূস | বিদেশে কর্মী পাঠাতে প্রতারণা করলে সাত বছরের কারাদণ্ড

১৩ দফার ব্যাখ্যা দিল হেফাজতে ইসলাম

চট্টগ্রাম অফিস

হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি সম্পর্কে বিভিন্ন মহলে ব্যাপক আলোচনা- সমালোচনা ও বিতর্কের প্রেক্ষিতে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হওয়ায় সংগঠনটির পক্ষ থেকে এসব দাবির যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সংগঠনের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী এক বিবৃতিতে এ ব্যাপারে বিশদ ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন, হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি নিয়ে কোনো বিভ্রান্তি ও অপপ্রচারের সুযোগ নেই। গত ৯ মার্চ জাতীয় ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে দেশের শীর্ষস্থানীয় ইসলামী নেতৃবৃন্দ ও বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে এই দাবিনামা প্রণয়ন করা হয়েছে। আমাদের সকল দাবি মুসলমানদের ঈমান-আক্বীদার সংরক্ষণ এবং দেশের স্বাধীনতা, সামাজিক শৃঙ্খলা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সুরক্ষার জন্য অত্যন্ত জরুরি।

সংবিধানে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতিতে 'সর্বশক্তিমান আল্লাহর ওপর অবিচল আস্থা ও বিশ্বাস' পুনঃস্থাপন দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। আল্লাহর ওপর অবিচল আস্থা ও বিশ্বাস মুসলমানদের ঈমানের প্রধান বিষয়। সর্বশেষ পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে সংবিধানের মূলনীতি থেকে মহান আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাস উঠিয়ে দিয়ে তদস্থলে ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি যুক্ত করা হয়। এর মাধ্যমে দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের ঈমানের ওপর প্রচণ্ড আঘাত হানে সরকার। তাই অত্যন্ত যৌক্তিক কারণেই এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিকে প্রধান দাবি হিসেবে পেশ করা হয়েছে।

আল্লাহ, রাসূল (সা.) ও ইসলাম ধর্মের অবমাননা রোধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে আইন পাসের দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার কোন অধিকার কারো নেই। এ জন্য পৃথিবীর বহু দেশে ধর্ম অবমাননার কঠোর শাস্তির বিধান সম্বলিত আইন রয়েছে। ধর্ম অবমাননার মাধ্যমে কোন স্বার্থান্বেষী মহল যাতে দেশে কোন বিশৃঙ্খলা বা সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাধাতে না পারে- এই দিক বিবেচনায়ও এ ধরনের আইন করা জরুরি।

গণজাগরণ মঞ্চের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কতিপয় ব্লগার, নাস্তিক-মুরতাদ ও ইসলাম বিদ্বেষীদের সকল অপতত্পরতা ও প্রচারণা বন্ধ করা এবং দেশের ৯০ শতাংশ মুসলমানের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যাপারে তিনি বলেন, তথাকথিত গণজাগরণ মঞ্চের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা ইসলামের এমন জঘন্য অবমাননা করেছে, যা পশ্চিমা বিশ্বের কোন অমুসলিমের মুখেও কখনো শোনা যায়নি। তাই ধর্ম অবমাননা বিরোধী আইনের আওতায় এসব ব্লগারের সবাইকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তি দেয়ার দাবি করেছি আমরা।

নারী নীতি ও শিক্ষা নীতির ইসলাম বিরোধী ধারা ও বিষয়সমূহ বিলুপ্ত করতে হবে এবং শিক্ষার প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত ইসলামের মৌলিক শিক্ষা মুসলিম ছাত্রদের জন্য বাধ্যতামূলক করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ত্যাজ্য সম্পত্তিতে সমঅধিকারের আইনসহ নারী নীতির পবিত্র কুরআন-সুন্নাহ বিরোধী ধারাগুলোই আমরা সংশোধনের দাবি করছি। এছাড়া সিডো সনদ কার্যকর হলে পারিবারিক ব্যবস্থা বলে কিছুই থাকবে না বিধায় এটা বাতিলের দাবি জানাচ্ছি। অন্যদিকে সরকার ঘোষিত শিক্ষা নীতিতে ধর্মীয় শিক্ষাকে সংকোচিত করা হয়েছে। তাই শিক্ষার সকল স্তরে সঠিক ধর্ম শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়েছি আমরা।

ভাস্কর্যের নামে মূর্তিস্থাপন, মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বলনের নামে শিরিকী সংস্কৃতিসহ সকল বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ বন্ধ করার দাবির ব্যাখ্যা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মুসলমানের দেশে এসব কখনো কাম্য হতে পারে না। ইসলামে স্পষ্টভাবে মূর্তি তৈরী ও সম্মান প্রদর্শনকে শিরক ও হারাম ঘোষণা করা হয়েছে। তাই এই ধরনের কার্যক্রম বন্ধের দাবি অত্যন্ত যৌক্তিক এবং বাস্তবসম্মত।

রেডিও টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে দাড়ি-টুপি ও ইসলামি কৃষ্টি-কালচার নিয়ে হাসি-ঠাট্টা এবং নাটক-সিনেমায় খল ও নেতিবাচক চরিত্রে ধর্মীয় লেবাস-পোশাক পরিয়ে অভিনয়ের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের মনে ইসলামের প্রতি বিদ্বেষমূলক মনোভাব সৃষ্টির অপপ্রয়াস বন্ধ করার দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা স্পষ্টতঃই ইসলাম ও মুসলমানদেরকে ষড়যন্ত্রমূলক হেয় করা ছাড়া আর কিছু নয়। তাই এই দাবির যৌক্তিকতাও বলার অপেক্ষা রাখে না।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশের সব মসজিদে মুসল্লিদের নির্বিঘ্নে নামায আদায়ে বাধা-বিপত্তি ও প্রতিবন্ধকতা অপসারণ এবং ওয়াজ-নসিহত ও ধর্মীয় কার্যকলাপে বাধাদান বন্ধ করার দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বর্তমানে রাজনৈতিক কারণে মসজিদ-মাদ্রাসায় অনাকাঙ্ক্ষিত বিভিন্ন ধরনের হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। ধর্মকর্ম পালনে এবং মসজিদে কোন ধরনের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা বা রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিকে চাপিয়ে দেয়া মুসলমানের দেশে কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও ভৌগলিক অখণ্ডতা রক্ষার স্বার্থে পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশব্যাপী ঈমান ও দেশ বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত এনজিও ও খ্রিস্টান মিশনারীদের ধর্মান্তকরণসহ সকল অপতত্পরতা বন্ধ করার দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামকে নিয়ে পশ্চিমা খ্রীস্টান বিশ্ব সুগভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত; এটা এখন আর কারো কাছে গোপন বিষয় নয়। খ্রীস্টান মিশনারীসমূহের পার্বত্য এলাকায় ধর্মান্তকরণ প্রক্রিয়া এতটাই প্রকট আকার ধারণ করেছে যে, যা এদেশের স্বাধীনতা ও অখণ্ডতার জন্য মারাত্মক হুমকি সৃষ্টি করছে। তাই আমরা এমন দাবি করেছি।

কাদিয়ানিদের সরকারিভাবে অমুসলিম ঘোষণা এবং তাদের প্রচারণা ও ষড়যন্ত্রমূলক সব অপতত্পরতা বন্ধ করার দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গোলাম আহমদ কাদিয়ানীর অনুসারী আহমদিয়ারা নিজেদেরকে মুসলমান দাবি করে এদেশের সরলমনা মুসলমানদেরকে বিভ্রান্ত করার গভীর ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। তাই তাদের প্রতারণাপূর্ণ সকল অপতত্পরতা ও অপপ্রচার নিষিদ্ধ করার দাবি ওঠেছে।

প্রতিবাদী আলেম-ওলামা, মাদরাসার ছাত্র, মসজিদের ইমাম-খতীব ও তৌহিদী জনতার ওপর হামলা, নির্বিচারে গুলিবর্ষণ এবং হত্যাকাণ্ড বন্ধ করার দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যৌক্তিক ঈমানী দাবিগুলোর পক্ষে কথা বলতে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের জুলুম নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে। স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে এমনটা চলতে পারে না। তাই আমরা অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত সকল আলেম-ওলামা, মাদ্রাসা ছাত্র, ইমাম-খতীব ও তৌহিদী জনতাকে মুক্তি দেয়ার দাবি জানাচ্ছি। তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং আহত ও নিহতদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানিয়েছি। এছাড়া দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সুনামকে নস্যাত্ করার জন্য ষড়যন্ত্রকারী মহল উঠেপড়ে লেগেছে বলে আমরা মনে করি। তাই সংখ্যালঘু সমপ্রদায়সমূহের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত এবং সামপ্রদায়িক সমপ্রীতি বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ ও সতর্ক দৃষ্টি রাখার দাবি জানিয়েছি।

এছাড়া বিবৃতিতে হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফার অন্যান্য দাবি সম্পর্কেও ব্যাখ্যা দিয়েছেন সংগঠনটির আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করবে সংসদীয় ঐকমত্য কমিটি। টিআইবির এ প্রস্তাবের সঙ্গে আপনি একমত?
3 + 9 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
অক্টোবর - ৩০
ফজর৪:৪৭
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৪
মাগরিব৫:২৪
এশা৬:৩৮
সূর্যোদয় - ৬:০৪সূর্যাস্ত - ০৫:১৯
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :