The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার, ১ মে ২০১৩, ১৮ বৈশাখ ১৪২০, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ উত্তর কোরিয়ায় মার্কিন নাগরিকের ১৫ বছরের জেল | ভৈরবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের চেহলাম শুক্রবার | মুন্সীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩ | সাভার পৌর মেয়র রেফাত উল্লাহ বরখাস্ত | সাভারে ভবন ধস: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৩৩ | নির্দলীয় সরকারের দাবি মানলে সংলাপে যাবে বিএনপি: দুদু | রাজি থাকলে সংলাপ আয়োজনে পদক্ষেপ নেব: স্পিকার ড. শিরীন | দু'এক দিনের মধ্যে সংলাপের আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিবে আওয়ামী লীগ: সৈয়দ আশরাফ | জামিন পেল আব্বাস-গয়েশ্বর-নোমান-রিজভী-আমান ও আলাল | খালেদা জিয়াকে সংলাপের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর | বিএনপি'র ৬ নেতার জামিন | সাভারের পৌর মেয়র রেফাত উল্লাহ বরখাস্ত

খালেদা জিয়াকে সংলাপে বসতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

মেহেদী হাসান

দেশ-বিদেশের বিভিন্ন মহল থেকে দাবি ওঠার পর এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার গণভবনে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে কোন সমস্যা সমাধানে সংসদ অথবা সংসদের বাইরে যে কোন স্থানে আলোচনায় বসার জন্য বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, আসুন যেখানে খুশি বসি, আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করি। যে কোন স্থানে যে কোন সময় সংলাপ হতে পারে। আপনারা যেখানেই আলোচনায় বসতে চান, আমরা সেখানেই বসতে রাজি আছি। তবে আমি মনে করি, আলোচনার স্থান হিসেবে পার্লামেন্ট (সংসদ) সবচেয়ে উপযুক্ত, নিরপদ ও নিরপেক্ষ জায়গা। এ কারণে এখানে বসলে সবচেয়ে ভাল হয়। তিনি বলেন, আলোচনায় বসে আপনাদের দাবি দাওয়া শুনি। আমাদের পক্ষ থেকে যেটুকু করার করব। দেশের জন্য যেটা ভাল সেটা করব। দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সকালে গণভবনে ঝালকাঠি জেলা আওয়ামী লীগ তৃণমূল নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রারম্ভিক বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, দেশ শান্তিতে থাকুক, দেশের মানুষ নিরাপদে থাকুক সেটা আমরা চাই। হরতাল ডেকে মানুষ হত্যা করবেন না। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে যেটা ভালো হয়, সেটাই করি। দেশে গণতন্ত্র থাকুক এটা আমরা চাই। কারণ গণতন্ত্র ছাড়া দেশের উন্নয়ন হয় না। ২ মে'র হরতাল প্রত্যাহার করায় বিরোধী দলীয় নেত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সংসদে নারী স্পিকার নির্বাচিত করে নারী ক্ষমতায়নে অভূতপূর্ব দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছি। দেশের সংসদ প্রধান, বিরোধী দলীয় নেতা, স্পিকার ও সংসদ উপনেতাও নারী। তবে উনি (খালেদা জিয়া) যদি তার দলের সংসদ উপনেতা একজন নারীকে বানান, তাহলে আরো বেশি ভাল হয়। ওনাকে বলবো, উনি যেন তার দলের একজন নারীকে সংসদ উপনেতা বানিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। বিরোধী দলীয় নেত্রীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সংসদে আসুন। তিন জনের একসঙ্গে অন্তত একটা ছবি থাকুক। নারীর ক্ষমতায়নে আমরা যে অভূতপূর্ব দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছি তা সবাই দেখুক।

প্রসঙ্গত, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার সংবিধান সংশোধন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বিলুপ্ত করার পর থেকেই বিএনপি সমমনা দলগুলোকে নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে আসছে। এই পরিস্থিতিতে আগামী নির্বাচন নিয়ে দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের মতপার্থক্য অবসানে কূটনীতিক ও ব্যবসায়ীরাও দুই নেত্রীকে আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়ে আসছেন। এ নিয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদনও হয়েছে, যাতে দেশের দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের নেত্রীকে নিয়ে রাজনৈতিক সংলাপ শুরুর জন্য আদালতের হস্তক্ষেপ চাওয়া হয়। এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সংলাপে তার দলের অনাপত্তির কথা জানালেও তার প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি নেতারা বলেন, নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার পদ্ধতির দাবি সরকার মেনে নিলে তবেই সংলাপ হতে পারে।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার চাচ্ছেন, তারা তিন মাসের জন্য এসে, নির্বাচন দিতে ব্যর্থ হয়ে পদত্যাগ করেছিলেন। তিন মাসের স্থলে দুই বছর থেকেছেন। সরতেই চাননি। যেন মনে হয়, গুলু দিয়ে আটকিয়ে গেছেন। বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং আমাকে জেলে নিয়েছিল। তার ছেলেদের ধরে উত্তম-মাধ্যম দিয়ে বিদেশে পাঠিয়েছিল। ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করা হয়েছিল, রাজনীতিবিদদের চরিত্র হরণ করা হয়েছিল। তাদের নির্যাতনের হাত থেকে কেউ রেহাই পায়নি। সেই পরিস্থিতি আমরা চাই না। বিশ্বের প্রতিটি গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন হয়, বাংলাদেশেও সেভাবে আগামী নির্বাচন হবে। জনগণ যাকে ভোট দেবে সেই জয়ী হবে। নির্বাচন কমিশন এখন স্বাধীন। বিরোধী দলীয় নেত্রীর উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, সংসদে আসুন, হরতাল পরিহার করুন। দেশের মানুষের সার্বিক কল্যাণে কাজ করুন। এটাই জনগণের পাশাপাশি আমরাও চাই।

সাভারে ভবনে ধসের মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপির লাশ গুমের অভিযোগের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, লাশ গুমের অভিযোগ করে মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। ওখানে মিডিয়া ছিল। সংবাদ মাধ্যমগুলো সাভারের ঘটনা ফলাও করে প্রচার করেছে। আমরা লাশ গুম করিনি। আমাদের কাছে মানুষের জীবনের মুল্য অনেক। আমরা যখন উদ্ধার কাজে ব্যস্ত বিএনপি তখন তাদের লোকজন দিয়ে জনগনকে বিভ্রান্ত করতে ব্যস্ত ছিল বলেও অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, লাশ গুমের ইতিহাস বিএনপির রয়েছে। চট্রগ্রাম-কক্সবাজার এলাকায় গরু আর মানুষকে এক সঙ্গে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। কাজেই লাশ গুমের ও পোড়ানোর ইতিহাস আমাদের নেই। ওনার (খালেদা জিয়ার) আছে। আপনার ছেলের (কোকো) লঞ্চডুবির সময় কত লাশ গোপন করেছিলেন। আমরা লাশ গুম করবো, কেন আমাদের কী মানবতাবোধ নেই? ওনার লাশ গুম করার অভ্যাস থাকতে পারে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, লাশ গুমের অভিযোগ করেছেন; আমাদের কাছে তালিকা দিন। গার্মেন্টেসে কত লোক কাজ করতো, তার একটি তালিকা আমাদের নিকট আছে। খামাখা লাশ গুমের অভিযোগ করে জাতিকে বিভ্রান্ত করবেন না। জাতিকে এসব বিভ্রান্ত করা থেকে বিরত থাকুন। আমরা আন্তরিকতা নিয়ে উদ্ধার কাজ করছি। পৃথিবীর মধ্যে আমরা একটি রেকর্ড সৃষ্টি করেছি। পৃথিবীতে আর যদি এমন কোন ঘটনা ঘটে তাহলে সবাই আমাদের দেখানো পথ অনুসরণ করবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা রাষ্ট্র চালাই জেগে থেকে, ঘুমিয়ে নয়। সাভারের ঘটনায় সেনাবাহিনী, পুলিশ, র্যাব, নৌবাহিনী, বিমান বাহিনীসহ স্বেচ্ছাসেবকগণ স্বতঃস্ফুর্ত উদ্ধার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উদ্ধার কাজ করেছেন। আর উনি (খালেদা জিয়া) সেনাবাহিনীসহ সকলকে কটাক্ষ করে বক্তব্য দিয়েছেন। সাভারে ভবন ধসের ঘটনায় উদ্ধার কাজে জড়িত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এত তাড়াতাড়ি উদ্ধার কাজ ও এত মানুষ জীবিত উদ্ধার পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ঘটনা। আমাদের লক্ষ ছিল যতটুকু সম্ভব জীবিত মানুষ উদ্ধার। আমরা তা করতে পেরেছি।

'যথা সময়ে সাভারে উদ্ধার কাজ সম্ভব হয়নি' মর্মে খালেদা জিয়ার অভিযোগের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে খবর পাই। ২০ মিনিটের মধ্যেই উদ্ধার কাজ শুরু হয়। উনি কী করে জানলেন উদ্ধার কাজ দেরি হয়েছে। উনি তো ঘুম থেকে দেরি করে উঠেন। রাষ্ট্রপতির শপথ নেয়া ও সংসদ অধিবেশন চালু রাখা নিয়ে খালেদার অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতির শপথ এই জন্য হয়েছে যে, যত তাড়াতাড়ি শপথ অনুষ্ঠান শেষ করে দায়িত্ব দেয়া যায় ততই দেশের জন্যে মঙ্গল। তাছাড়া সংসদ অধিবেশন চালু রাখা হয়েছে উদ্ধার কাজসহ সার্বিক বিষয়ে জনগণের নিকট জবাবদিহি করার জন্য।

দুর্যোগের সময় নারায়ণগঞ্জের বিএনপির শ্রমিক সমাবেশের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সমাবেশ না করে সেখানে ব্যয় করা অর্থগুলো অসহায় দুর্গতদের মাঝে দিতে পারতেন। তাতে মানুষের উপকার হতো। আর কিছু মিথ্যাচার করা থেকে বিরত থাকতে পারতেন। নারায়নগঞ্জে শ্রমিক সমাবেশে সরকারের বিরুদ্ধে কলকারখানা বন্ধের অভিযোগ করে খালেদার বক্তব্যের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, যেখানে দাঁড়িয়ে সরকারের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছেন সেখানেই আদমজী জুট মিল ছিল। এ মিলে ২৫ হাজার শ্রমিক কর্মরত ছিল। এক কোটি মানুষ এর সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল। বিএনপি তাদের শাসনামলে তা বন্ধ করে শ্রমিকদের পেটে লাথি মেরেছিল। ক্ষমতায় আসলে আপনারা বন্ধ করেন। আমরা বন্ধ চালু করি। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের আমলে নেয়া বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিবরণ তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রীর সূচনা বক্তব্যের পর তার সভাপতিত্বে রুদ্ধদ্বার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় দলের জেলার সাংগঠনিক পরিস্থিতি সম্পর্কে লিখিত রিপোর্ট উপস্থাপন করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতিসহ উপজেলা সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং মহিলা আওয়ামী লীগ নেতারা বক্তব্য রাখেন। সভা পরিচালনা করেন বরিশাল বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

এতে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু, প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, কাজী জাফর উল্লাহ, সতিশ চন্দ্র রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
সাভারের ঘটনায় বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতে অর্ডার কমে যেতে পারে বলে আপনি মনে করেন?
3 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মার্চ - ৩০
ফজর৪:৩৭
যোহর১২:০৪
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৭
এশা৭:৩০
সূর্যোদয় - ৫:৫৩সূর্যাস্ত - ০৬:১২
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :