The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার, ১ মে ২০১৩, ১৮ বৈশাখ ১৪২০, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ উত্তর কোরিয়ায় মার্কিন নাগরিকের ১৫ বছরের জেল | ভৈরবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের চেহলাম শুক্রবার | মুন্সীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩ | সাভার পৌর মেয়র রেফাত উল্লাহ বরখাস্ত | সাভারে ভবন ধস: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৩৩ | নির্দলীয় সরকারের দাবি মানলে সংলাপে যাবে বিএনপি: দুদু | রাজি থাকলে সংলাপ আয়োজনে পদক্ষেপ নেব: স্পিকার ড. শিরীন | দু'এক দিনের মধ্যে সংলাপের আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিবে আওয়ামী লীগ: সৈয়দ আশরাফ | জামিন পেল আব্বাস-গয়েশ্বর-নোমান-রিজভী-আমান ও আলাল | খালেদা জিয়াকে সংলাপের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর | বিএনপি'র ৬ নেতার জামিন | সাভারের পৌর মেয়র রেফাত উল্লাহ বরখাস্ত

শোকাবহ মে দিবস

মে দিবস শ্রমজীবী মানুষের আনন্দের দিন। অর্জিত অধিকার উদযাপন ও সংহত করার দিন। কিন্তু আমাদের শ্রমজীবী মানুষের নিকট এইবারের মে দিবসের আবহ একেবারেই ভিন্ন। বিশ্বের শ্রমজীবী মানুষ যখন উত্সবমুখর পরিবেশে দিবসটি উদযাপন করিতেছে, বাংলাদেশে তখন চলিতেছে শোকের মাতম। শোকে যেন পাথর হইয়া গিয়াছে শ্রমজীবী মানুষের বুক। সাভার ট্র্যাজেডি আবারও চোখে আঙুল দিয়া দেখাইয়া দিল যে, কতোখানি নাজুক, কতোখানি অনিরাপদ এবং কতোখানি মূল্যহীন তাহাদের জীবন। সামান্য সান্ত্বনাটুকু পর্যন্ত নাই তাহাদের সামনে। একবার ভবন ধসিয়া, আরেকবার আগুনে পুড়িয়া মরাই যেন হইয়া দাঁড়াইয়াছে তাহাদের নিয়তি। অথচ এমন হইবার কথা ছিল না। কে না জানেন যে, অব্যাহত রাজনৈতিক অসহিষ্ণুতাসহ নানা প্রতিকূলতার ভিতরেও এই শ্রমজীবী মানুষেরাই রক্ত সঞ্চালন করিয়া চলিয়াছেন অর্থনীতির প্রধান প্রধান খাতগুলিতে। ইহার স্বীকৃতি বা প্রতিদান হিসাবে নিরাপদ কর্মপরিবেশ এবং উন্নততর জীবন অবশ্যই তাহাদের প্রাপ্য ছিল। প্রাপ্য ছিল সংবিধানস্বীকৃত সকল মৌলিক ও মানবিক অধিকার। কিন্তু বাস্তবতা হইল, প্রাণান্ত পরিশ্রমের পর যেই বেতন-ভাতা তাহারা পান তাহা দিয়া জীবনধারণ করাই কঠিন। ফলে উন্নততর জীবন তো দূরের কথা, কারখানার অমানবিক পরিবেশে এখন জীবন বাঁচানোই দায় হইয়া পড়িয়াছে তাহাদের জন্য। নিরাপত্তার অভাবে কর্মস্থলগুলি পরিণত হইয়াছে একেকটি ভয়ঙ্কর মৃত্যুফাঁদে। অথচ দেখিবার কেহ নাই। যাহাদের দেখিবার কথা তাহারা ব্যস্ত নিজেদের সংকীর্ণ রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের নানা ফন্দিফকিরে। সর্বোপরি, শ্রমিকেরা যে সংগঠিত ও নিয়মতান্ত্রিকভাবে নিজেদের দাবিদাওয়া তুলিয়া ধরিবেন সেই অধিকারটুকুও স্বীকৃত নহে পোশাক শিল্পে।

শ্রমজীবী মানুষের এই দুঃসহ অবস্থার জন্য যে মূলত আমাদের দায়িত্বহীন ও বুলিসর্বস্ব রাজনীতিই দায়ী তাহাতে সন্দেহের অবকাশ নাই বলিলেই চলে। অপ্রিয় হইলেও সত্য যে, জনগণের ভোটে যখন যাহারা ক্ষমতায় আসিয়াছেন তাহারা কেবল একের পর এক প্রতিশ্রুতিই প্রদান করিয়াছেন, কিন্তু শ্রমজীবী মানুষের কর্মপরিবেশ ও জীবনমান উন্নয়নে কাজের কাজ কিছুই করেন নাই। শুধু তাহাই নহে, রাষ্ট্রের এক-তৃতীয়াংশ অর্থ যাহাদের পিছনে ব্যয় হইয়া থাকে, রাজনীতিকীকরণের মাধ্যমে সেই প্রশাসনকেও অকার্যকর করিয়া ফেলা হইয়াছে। ফলে প্রশাসনও তাহাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য বিস্মৃত হইয়া ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের সেবাদাসে পরিণত হইয়াছে। স্থানীয় নেতাকর্মীদের নানা অনিয়ম, অন্যায় আবদার বা বাড়াবাড়ির নিকট নতি স্বীকার না করিয়া প্রশাসন তাহাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করিলে যে সাভার ট্র্যাজেডি সংঘটিত হইতে পারিত না তাহা দিবালোকের মতো স্পষ্ট। সাভারের নজিরবিহীন মানবিক বিপর্যয়ের ঘটনার ক্ষেত্রেই শুধু নহে, প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই প্রশাসনের অনুরূপ লেজুড়বৃত্তির দৃষ্টান্ত ভূরি ভূরি। আর এই অবস্থা যে একদিনে সৃষ্টি হয় নাই তাহাও বলার অপেক্ষা রাখে না।

শুধু পোশাকশিল্প খাতেই এখন কর্মরত আছে আমাদের জনসংখ্যার উল্লেখযোগ্য একটি অংশ। রফতানিমুখী এই শিল্পে তাহাদের বিপুল অবদান দেশে-বিদেশে স্বীকৃত। কিন্তু বংশানুক্রমিক দুঃসহ দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র হইতে মুক্তির প্রত্যাশায় দেশের নানা প্রান্ত হইতে আসা হতদরিদ্র এই মানুষগুলির জীবনমানের উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন ঘটে নাই গত তিন দশকে। কারণ তাজরীন কিংবা রানা প্লাজার মতো বড়ো ধরনের বিপর্যয় না ঘটিলে তাহাাদের কথা কাহারো মনেই থাকে না। দুর্ঘটনার পর কয়েকদিন দৌড়ঝাঁপ চলিলেও অতিদ্রুতই সব চাপা পড়িয়া যায়। মূল সমস্যার সমাধান তো হয়ই না, বরং অধিকতর ভারি হইতে থাকে উপেক্ষা ও বঞ্চনার পাল্লা। এই বাস্তবতা শুধু বাংলাদেশের একার নহে। উন্নয়নশীল অধিকাংশ দেশেই জনগণের দোহাই দিয়া গলাবাজির রাজনীতিই বেশি হয়। সমস্যা সমাধানে বাস্তবসম্মত উদ্যোগ গ্রহণ না করিয়া আশ্রয় নেওয়া হয় কূট-রাজনীতির। কারখানা-মালিক, প্রশাসন, এমনকী গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই এই সুযোগ কাজে লাগাইয়া নিজেদের আখের গোছাইতে ব্যস্ত থাকেন। আর তাহার করুণতম কুফল ভোগ করিতে হয় দরিদ্র শ্রমজীবী মানুষকে।

জাতীয় স্বার্থেই অবিলম্বে এই অবস্থার অবসান হওয়া দরকার। জনগণের জীবনমান উন্নয়ন ও নিরাপত্তা বিধানই সরকারের প্রধানতম দায়িত্ব। এই ক্ষেত্রে কোনো প্রকার অজুহাত, অবহেলা বা গাফিলতির সুযোগ নাই।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
সাভারের ঘটনায় বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতে অর্ডার কমে যেতে পারে বলে আপনি মনে করেন?
3 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুলাই - ১৫
ফজর৩:৫৪
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:২০সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :