The Daily Ittefaq
ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৩, ১০ জৈষ্ঠ্য ১৪২০, ১৩ রজব ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ অচিরেই দেশে আন্দোলন-সংগ্রামের নেতৃত্ব দেবেন তারেক : শামসুজ্জামান দুদু | ঢাকা-চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগে অতিভারী বর্ষণের আশঙ্কা | আগামী রবিবার ১৮ দলের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

'আমরা সবসময়ই সতর্ক আছি'

ইসমাইল হায়দার মল্লিক

দেবব্রত মুখোপাধ্যায়

বাংলাদেশি একজন 'শীর্ষস্থানীয়' খেলোয়াড় বিপিএলের চলতি স্পট ফিক্সিং ক্লাবে জড়িত—এমন খবর প্রকাশ করে বাংলাদেশে হৈ চৈ ফেলে দিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম। সেই সঙ্গে তাদের ইঙ্গিত এমন যে, ভারতীয় এই চক্রটিই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ফিক্সিং করে থাকে! যদিও এসব খবরে এখনই খুব গুরুত্ব দিচ্ছে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। তবে তারা ফিক্সিং নিয়ে অত্যন্ত সতর্ক আছে বলেই দাবি করছেন বোর্ড পরিচালক ইসমাইল হায়দার মল্লিক। বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের এই সদস্য সচিব বলছেন, সব ধরনের দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই জারি রাখতে খুব দ্রুতই তারা একজন দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা নিয়োগ দেবেন। ইত্তেফাককে দেয়া একান্ত সাক্ষাত্কারে এসব ফিক্সিং, সতর্কতা বিষয়ে নিজেদের অবস্থান ব্যাখ্যা করলেন ইসমাইল হায়দার মল্লিক।

সাক্ষাত্কার নিয়েছেন দেবব্রত মুখোপাধ্যায়—

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরটা দেখেছেন? আপনাদের প্রতিক্রিয়া কী?

হ্যাঁ, বাংলাদেশি খেলোয়াড়ের জড়িত থাকার খবর তো? দেখেছি। কিন্তু এটাকে তো আমরা আনুষ্ঠানিক কোনো ব্যাপার হিসেবে নিতে পারছি না। একটি সংবাদ মাধ্যম তাদের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র উল্লেখ করে বেনামী একজন খেলোয়াড়দের নিয়ে কথা বলেছে; এটা নিয়ে কিভাবে আমরা প্রতিক্রিয়া জানাই! এটাকে 'শোনা কথা' হিসেবে দেখতে হচ্ছে। যদি আইসিসির মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক কোনো অভিযোগ কোনো সংস্থা আমাদের কাছে পাঠায়, তখন আমরা বিবেচনা করব।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড বলেছে, তারা সামপ্রতিক এই ভারতীয় ফিক্সিং কাণ্ডে সহায়তা করতে প্রস্তুত। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও কী চাইলে বিসিসিআইকে এমন সহায়তা দিতে প্রস্তুত?

আমাদের অবস্থান সবসময়ই সব ধরনের অন্যায়ের বিপক্ষে। ফলে এ ধরনের ব্যাপারে সহায়তা করতে তো আপত্তি করার প্রশ্ন ওঠে না। তবে সহায়তার জন্য যথোপযুক্ত মাধ্যমে আবেদন আসতে হবে। যেহেতু ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি; তাই আইসিসি হয়েই এ ধরনের অনুরোধ আসতে হবে।

আইপিএলের ফিক্সিংয়ের এই ঘটনায় জড়িত বাজিকররা বিপিএলেও ফিক্সিং করেছেন বলে শোনা যাচ্ছে। এটা নিয়ে আপনারা আলাদা করে ভাবছেন কিছু?

দেখুন, বিপিএলে যাতে এমন কিছু না ঘটে, সে জন্য আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে থাকি। আমরা বিপুল ব্যয়ে আকসুর (আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগ) কর্মকর্তাদের নিয়োগ দিয়েছি। তারা বিপিএলের প্রতিটা ম্যাচে ও প্রতিটা দলের ওপর নজর রাখেন। ফলে তারা কোনো রিপোর্ট দিলে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি। এর বাইরে প্রত্যক্ষ অভিযোগ ছাড়া তো কিছু বিবেচনায় নেয়া সম্ভব না।

বিসিসিআইয়ের মতো প্রভাবশালী বোর্ড স্পট ফিক্সিং সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে। আকসুর সহায়তা তারাও নিয়েছিল। কিন্তু খুব কাজে দিল না। আপনাদের এই বাইরে নিরাপত্তার জন্য আর কোনো ব্যবস্থা কী আছে?

কিছু নিরাপত্তা ব্যবস্থা আছে। আমাদের নিজস্ব সিকিউরিটি বিভাগ আছে। কিন্তু ক্রিকেট বোর্ডগুলোর এই সিকিউরিটি বিভাগ, সব দেশেই আসলে স্পট ফিক্সিং ঠেকানোর জন্য যথেষ্ট শক্তিশালী না। তারা শুধু দেখতে পারেন কেউ অস্বাভাবিক কিছু করছে কি না, করলে আটকাতে পারেন। এর বাইরে ফিক্সিং ঠেকানোর জন্য বা ফিক্সিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর জন্য যথেষ্ট না।

তাহলে কি আপনাদের আরও কিছু করা উচিত বলে মনে করেন?

দেখুন ক্রিকেট বোর্ড চাইলেই পুলিশী সংস্থার মতো সব পদক্ষেপ নিতে পারে না। তবে আমরা বুঝতে পারছি, এখন সময়টা আরও চ্যালেঞ্জিং হয়ে পড়ছে। তাই আমরা আরও কিছু পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছি। এর মধ্যে একজন দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়াটা বড় পদক্ষেপ। ইতিমধ্যে বোর্ড সভাপতি এ জন্য প্রয়োজনীয় অনুমোদনও দিয়ে দিয়েছেন।

বিপিএলের দু'আসরেই বেশ কয়েকটি স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। সবগুলোতে প্রয়োজনীয় তদন্ত করা হয়েছে?

হ্যাঁ। প্রথম অভিযোগে আপনারা জানেন, আমাদের আগের বোর্ডই শরিফুল হক প্লাবনকে শাস্তিও দেয়া হয়েছে। এরপর যতো অভিযোগ উঠেছে, প্রতিটা আমরা তদন্তের জন্য আকসুর কাছে পাঠিয়েছি।

বলা হয়, ক্রিকেটারদের সচেতন করে তোলা, তাদের ফিক্সিংয়ের ভয়াবহ পরিণতি সম্পর্কে বোঝানো এটা ঠেকানোর একটা ভালো উপায়। এই কাজটা বোর্ডকেই করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনাদের উদ্যোগ কী?

খুব বেশি কিছু যে এ ব্যাপারে করা হয়েছে, তা দাবি করছি না। তবে সর্বশেষ আকসু কর্মকর্তারা যখন এসেছিলেন; তখনও এসব বিষয় নিয়ে তারা খেলোয়াড়দের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। আমাদের খেলোয়াড়দের সচেতন করে তুলতে আরও কিছু কর্মসূচী হাতে নেয়ার পরিকল্পনা আছে।

একটু প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে বলুন। সব জটিলতা শেষ করে খেলা কী মাঠে গড়াবে?

অবশ্যই। এখন আর খেলা নিয়ে কোনো জটিলতা থাকার কথা নয়। বোর্ড সভাপতির আহবানের পর সব পক্ষই তো খেলতে রাজী হয়েছে। ক্লাবগুলোও ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে।

খেলোয়াড়দের তরফ থেকে গ্রেডিং নিয়ে কিছু আপত্তি ছিল...

দেখুন, এটা আমরা স্থায়ী কোনো পদ্ধতি বলিনি। আমি ক্লাব কর্মকর্তা হিসেবে বলবো, এটা দরকার ছিল। খেলোয়াড়দের বাজারদর অস্বাভাবিক হয়ে গিয়েছিল। যাই হোক, খেলোয়াড়রা বোর্ডের সিদ্ধান্ত মেনে নেবে। আমরা আশাবাদী কোনো সমস্যা আর হবে না।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
স্থায়ী কমিটির বিবৃতিতে বিএনপি সরকারকে অনতিবিলম্বে সংলাপ আয়োজনের আহ্বান জানিয়েছে। আপনি কি মনে করেন সংলাপ দ্রুত সময়ের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে?
5 + 4 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
ফেব্রুয়ারী - ২৪
ফজর৫:০৯
যোহর১২:১২
আসর৪:২২
মাগরিব৬:০২
এশা৭:১৫
সূর্যোদয় - ৬:২৫সূর্যাস্ত - ০৫:৫৭
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :