The Daily Ittefaq
ঢাকা, শনিবার ১ জুন ২০১৩, ১৮ জৈষ্ঠ্য ১৪২০, ২১ রজব ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ ওকলাহোমায় টর্নেডোর আঘাতে নিহত ৫ | নওয়াজ তৃতীয়বারের মতো পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী | রবিবার নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুরে শিবিরের অর্ধবেলা, সোমবার রংপুরে বিএনপির হরতাল | রবিবার ৩ পার্বত্য জেলায় বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল | মাগুরায় চলন্ত বাসে গৃহবধূর সন্তান প্রসব | আশুলিয়ায় ৩ কারখানায় বিক্ষোভ | হাজারীবাগে ছাদ থেকে পড়ে ঢাবি ছাত্রীর মৃত্যু | নেতাদের মুক্তির বিষয়টি আদালত বিবেচনা করবে: স্পিকার ড. শিরীন | শান্তিরক্ষা মিশনে শহিদ চার বাংলাদেশি জাতিসংঘ পদক পেলেন | আশা করি বিরোধী দল সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক কারখানার নিরাপত্তা দেবে ক্রেতা ও বিদেশি সংস্থা!

জাইকার শত কোটি টাকার তহবিল, উদ্যোক্তাদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

সাইদুল ইসলাম

জাপানের রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা 'জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি-জাইকা' বাংলাদেশের পোশাক কারখানার নিরাপত্তার কাজে ব্যবহারের জন্য একশ' কোটি টাকার তহবিল দেয়ার কথা ঘোষণা দিয়েছে। এছাড়া কারখানাগুলোর নিরাপত্তার বিষয়টি দেখভালে ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নামকরা ৪০টি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে বিদেশি ক্রেতা ও সংস্থার এই সব উদ্যোগের ব্যাপারে উদ্যোক্তারা মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে জাইকার তহবিল থেকে একজন উদ্যোক্তাকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা ঋণ দেয়া হবে। এ ব্যাপারে উদ্যোক্তারা বলছেন, একজন কারখানা মালিককে ১০ লাখ টাকা ঋণ দিয়ে এ খাতের উদ্যোক্তাদের প্রকৃতপক্ষে হেয় করা হচ্ছে। নিজেদের কারখানার নিরাপত্তা বিধানের জন্য এভাবে অন্য দেশের দ্বারস্থ হবার ঘটনা পৃথিবীর কোথাও নেই। জাইকার অর্থে শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার পক্ষে মত দিয়েছেন তারা। আবার কেউ কেউ ক্রেতাদের ওপরই এ দায়টি চাপাতে চাইছেন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্র জানায়, প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী একজন উদ্যোক্তা জাইকা'র একশ' কোটি টাকার তহবিল থেকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা ঋণ পাবেন। দেশের তফসিলী ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঋণ বিতরণের ব্যবস্থা করবে। ২৫০ জন উদ্যোক্তাকে এ খাত থেকে ঋণ দেয়া যাবে। ২ বছরের গ্রেস পিরয়িডসহ ১০ বছরে এ ঋণ পরিশোধের সুযোগ থাকবে। প্রথমদিকে একশ' কোটি টাকা দিয়ে এ তহবিল শুরু করলেও পরবর্তীতে জাইকা এ তহবিল আরো বাড়াবে বলে জানা গেছে।

এছাড়া 'বাংলাদেশ সেফটি এ্যকর্ড' বা 'বাংলাদেশ নিরাপত্তা' নামক এক চুক্তিতে ৪০ টি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান এখানকার যেসব কারখানায় কাজ করান সেগুলোর নিরাপত্তার বিষয়টি দেখভাল করার অঙ্গীকার করেছেন। মুলত: সাভারের রানা প্লাজা ধসে ব্যাপক প্রাণহানির পর ক্রেতারা কয়েকটি আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংগঠনের চাপে ওই চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। তবে নামকরা প্রতিষ্ঠান 'ওয়ালমার্ট' এবং 'গ্যাপ' এই প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের এ দুটি প্রতিষ্ঠান কোন কাঠামোগত বাধ্যবাধকতায় আসতে চাচ্ছে না। তবে শ্রমিক এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আন্দোলনের মুখে ওই দুটি প্রতিষ্ঠানও বসে থাকতে পারেনি।

জানা গেছে, প্রতিষ্ঠান দু'টি বাংলাদেশে যেসব কারখানায় তাদের কাজ করায় সেগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য একটি আলাদা 'সেফটি প্লান তৈরি করতে একমত হয়েছে। তারা আগামী একমাসের মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি খসড়াপত্র তৈরি করবে। ক্রেতা প্রতিষ্ঠান দুটি এও বিশ্বাস করে অন্য ক্রেতারা তাদের এ প্লানের সাথে যুক্ত হবে। সম্প্রতি ওয়াশিংটনে মার্কিন সিনেটর জর্জ জে মিশেলের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে কোম্পানি দুটি তাদের পরিকল্পনার বিশদ তুলে ধরে।

দেশের পোশাক কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিদেশি ক্রেতা ও সংস্থার এইসব উদ্যোগ প্রসঙ্গে তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ'র সাবেক সহ-সভাপতি এবিএম শামছুদ্দিন বলেন, দেশে এবং বহির্বিশ্বে পোশাক শিল্পের উদ্যোক্তাদের হেয় করতে এ ধরনের আয়োজন করা হয়েছে। ১০ লাখ টাকা একজন উদ্যোক্তার জন্য কিছুই নয়। অনেক কারখানা মালিক শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য মাসে ১০ লাখ টাকারও বেশি অর্থ ব্যয় করেন। তিনি বলেন, জাইকার একশ' কোটি টাকা দিয়ে শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে। এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে বিজিএমইএ সভাপতির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, 'নির্দলীয় অথবা দল নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই আগামী নির্বাচন হতে হবে। আপনি কি তার এই বক্তব্যের সাথে একমত?
3 + 3 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
অক্টোবর - ২১
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫০
মাগরিব৫:৩১
এশা৬:৪৩
সূর্যোদয় - ৫:৫৮সূর্যাস্ত - ০৫:২৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :