The Daily Ittefaq
ঢাকা, শনিবার ১ জুন ২০১৩, ১৮ জৈষ্ঠ্য ১৪২০, ২১ রজব ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ ওকলাহোমায় টর্নেডোর আঘাতে নিহত ৫ | নওয়াজ তৃতীয়বারের মতো পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী | রবিবার নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুরে শিবিরের অর্ধবেলা, সোমবার রংপুরে বিএনপির হরতাল | রবিবার ৩ পার্বত্য জেলায় বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল | মাগুরায় চলন্ত বাসে গৃহবধূর সন্তান প্রসব | আশুলিয়ায় ৩ কারখানায় বিক্ষোভ | হাজারীবাগে ছাদ থেকে পড়ে ঢাবি ছাত্রীর মৃত্যু | নেতাদের মুক্তির বিষয়টি আদালত বিবেচনা করবে: স্পিকার ড. শিরীন | শান্তিরক্ষা মিশনে শহিদ চার বাংলাদেশি জাতিসংঘ পদক পেলেন | আশা করি বিরোধী দল সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে: প্রধানমন্ত্রী

'মহাসেন মোর ঘর ভাঙছে আর ভাসাইয়া লইছে জোয়ারের পানি'

আব্দুল আলীম হিমু, বরগুনা (দক্ষিণ) প্রতিনিধি

চারদিকে কোমর সমান পানি বেষ্টিত ঘর। দূর থেকে দেখে মনে হয় ছোটখাট একটা দ্বীপ। কাছাকাছি পৌঁছতেই মাচানে আশ্রয় নেয়া পরিবারটির কৌতূহলী দৃষ্টি। টানা পাঁচদিন ধরে এই পরিবারটি পানিবন্দী। দৃশ্যটি বরগুনা সদর উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের। গৃহকর্তা ফোরকান মিয়া বললেন, 'এই জীবনের চাইতে মোগো মরণই ভালো। মহাসেন মোর ঘর ভাঙছে। আর হেই ভাঙা ঘর ভাসাইয়া লইয়া গ্যাছে জোয়ারের পানি। জানডা লইয়া কোনমতে এই ওপদার উফরে বাইচ্চা আছি। আমনেরা খালি মোগো ছবি তোলেন। হেরা কেউতো আইয়া মোগো খোঁজ নেয় না।' ফোরকান পায়রা পাড়ের জেলে। ১৫ দিন ধরে নদীতে মাছ ধরতে যেতে পারছে না। রোজগার নেই তাই পরিবার নিয়ে খেয়ে না খেয়ে কোনমতে বেঁচে আছেন। পায়রা, বিষখালী, বলেশ্বরের পাড় ধরে ফোরকানের মত হাজারো জেলের এখন এমন দুর্দিন।

শুধু জেলেরাই নয়- ১৬ মে সাইক্লোন মহাসেনের পর থেকে এ পর্যন্ত টানা বর্ষণ ও জলোচ্ছ্বাসে বরগুনার হাজার হাজার বাসিন্দার এখন একই অবস্থা। বলা যেতে পারে তারা একরম বন্দি জীবন যাপন করছেন। ঘরে খাবার নেই, নেই বিশুদ্ধ পানি। সরকারি সহায়তার পরিমাণ এতই কম যে, একটি পরিবারের একদিনের খাবারের সংস্থানও হয়নি।

দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের মোহনা, আর অন্যদিকগুলোতে বিষখালী, বলেশ্বর ও পায়রা নদকে ঘিরে বরগুনা জেলা। মৌসুমী ছোটখাট ঝড় জলোচ্ছ্বাসের পাশাপাশি প্রায় প্রতিবছরই কোন না কোন ঘূর্ণিঝড় এ উপকূলে আঘাত হানে। ক্ষতিগ্রস্ত হয় এলাকার বাসিন্দারা। এ বছরও ব্যতিক্রম নয়। ১৬ মে বরগুনার ওপর দিয়ে বয়ে যায় ঘূর্ণিঝড় মহাসেন। শুধুমাত্র সরকারি হিসেবে মহাসেনে এক লাখ ১৮ হাজার ৩০৫টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মহাসেনের আঘাতে বিপর্যস্ত এসব পরিবার যখন ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে ঠিক তখনই আবার আঘাত হানে পূর্ণিমার জোরালো জোয়ার, সঙ্গে ছিল ভারিবর্ষণ। জোয়ারের পানিতে ভেসে যায় ভাঙা ঘরের কাঠামো, আসবাবপত্র। হাজার হাজার মানুষ আশ্রয় নেয় বাঁধের ওপর। কেটে যায় পাঁচদিন। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোররাতে নিম্নচাপের প্রভাবে আবারও উত্তাল হয় সাগর। ঝড়ো বাতাসের পাশাপাশি একটানা ভারিবর্ষণে উড়ে যায় বাঁধের উপর নির্মিত অস্থায়ী আশ্রয়টুকুও। এখন খোলা আকাশের নিচেই সংসার। মাথার ওপর চাল নেই, খাবারও নেই-আছে শুধু ক্ষুধার জ্বালা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বরগুনা সদর উপজেলার বালিয়াতলী, নলটোনা, নিশানবাড়িয়া এলাকা ঘুরে এ অবস্থা দেখা যায়।

জেলেদের মতো কৃষক, মজুরদের অবস্থাও একই রকম। রবিশস্য নষ্ট করে দিয়েছে সাইক্লোন মহাসেন। আউশের খেত এখন বুক সমান পানির নিচে। আমন চাষের প্রসু্ততির সময় গড়িয়ে যাচ্ছে। ফসলের ক্ষেত হয়ে গেছে ছোটখাট নদী। কৃষকের গোলায় ধান থাকলেও নেই মজুরের ঘরে খাবার। কৃষি জমিতে 'বদলা' খেটে রোজগার করেন কাটাখালী এলাকার আমিন খা। এই এলাকার অধিকাংশই আমিন খার মত ভূমিহীন কৃষক। কাজ নেই তাই রোজগারও বন্ধ। ঘরের দাওয়ায় বসে দুশ্চিন্তায় সময় পার করছেন তারা। আমিন খা বলেন, 'ঠেনহা-দড়ি টানা দিয়া কোনমতে ঘরডারে টিহাইয়া রাখছি। কাজ নাই, খামু কি। আল্লায় যে মোগে ক্যা দুন্নইতে পাডাইছে!'।

পাউবো বরগুনা কার্যালয়ের কর্মকর্তারা জানান, স্থানীয় নদ-নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ভারিবর্ষণের ফলে আরও কয়েকদিন এ অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে তারা ধারণা দিয়েছেন। এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে বরগুনা সদর উপজেলাকে দুর্গত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করেছে উপজেলা প্রশাসন।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, 'নির্দলীয় অথবা দল নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই আগামী নির্বাচন হতে হবে। আপনি কি তার এই বক্তব্যের সাথে একমত?
3 + 2 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
অক্টোবর - ২১
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫০
মাগরিব৫:৩১
এশা৬:৪৩
সূর্যোদয় - ৫:৫৮সূর্যাস্ত - ০৫:২৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :