The Daily Ittefaq
ঢাকা, রবিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৩, ২৮ আশ্বিন ১৪২০, ০৭ জেলহজ্জ, ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ ড্র হল বাংলাদেশ- নিউজিল্যান্ড প্রথম টেস্ট ম্যাচ | আগামীকাল পবিত্র হজ্ব | আন্দোলন দমাতে 'টর্চার স্কোয়াড' গঠন করছে সরকার: বিএনপি | ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন দুই নেত্রী | ২৫৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করছে বাংলাদেশ | হ্যাটট্রিক করলেন সোহাগ গাজী | যুক্তরাজ্যকে ইরানের সাথে নতুন করে সম্পর্ক না করার আহ্বান ইসরাইলের | ঘূর্ণিঝড় পাইলিনে নিহত ৭

মুক্তিযুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া

জয়দুল হোসেন

ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে প্রায় দুইশ' বছরের আন্দোলন সংগ্রামের পর-১৯৪৭ সালের ১৪ ও ১৫ আগস্ট ভারতবর্ষের হিন্দু ও মুসলমানদের জন্য আলাদা দুটি রাষ্ট্র হিন্দুস্থান বা ভারত এবং পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা হয়। আপস-আলোচনার মাধমেই তা হল। প্রায় দুইশ' বছর শাসন ও শোষণ করার পর এদেশ থেকে বিদায় নিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ। কিন্তু রেখে গেল তাদের চক্রান্ত এবং শোষণের নমুনা। বিপ¬বীদের হাতে ক্ষমতা থাকেনি। ক্ষমতা চলে যায় সুবিধাভোগী শাসকশ্রেণীর হাতে।

১৯৪৭ সালে দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে ভারতবর্ষ বিভক্ত হয়ে পাকিস্তান ও ভারত নামে পৃথক দুটি রাষ্ট্রের সৃষ্টি হয়। পাকিস্তানের একাংশ পূর্ব-বাংলা বা পূর্ব-পাকিস্তান এবং অন্য অংশ পশ্চিম-পাকিস্তান নামে পরিচিতি লাভ করে। কিন্তু পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই পশ্চিম-পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী তত্কালীন পূর্ব-পাকিস্তান বা পূর্ব-বাংলাকে রাজস্ব আদায় এবং শিল্প ও ব্যবসা-বাণিজ্যের পশ্চাত্ভূমি হিসেবে পরিগণিত করতে চাইল।

তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হল পূর্ব-বাংলার সচেতন জনগণ। এরই ধারাবাহিকতায় সংগঠিত আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার রোজ গার্ডেনে আওয়ামী মুসলিম লীগের সাংগঠনিক কমিটি গঠিত হয়। ঢাকায় কেন্দি য় কমিটি গঠনের পর থেকেই সারা দেশে সাংঠনিক তত্পরতা শুরু হয়। ঢাকার বাইরে আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রথম সাংগঠনিক সভা হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। ১৯৪৯ সালের ৩ জুলাই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার লোকনাথ ময়দানে আয়োজিত জনসভায় কেন্দ ীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক উপস্থিত ছিলেন। কেন্দ ীয় কমিটির অন্যতম সদস্য আলী আমজাদ খানের সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সভায় মুসলিম লীগের শোষণনীতির তীব্র সমালোচনা করা হয়। জনসভার পর ঐ দিন রাতে অনুষ্ঠিত হয় সাংগঠনিক সভা। এ সভায় এডভোকেট আবদুল বারীকে সভাপতি এবং রফিকুল ইসলামকে (রফিক মাস্টার) সাধারণ সম্পাদক করে আওয়ামী মুসলিম লীগের ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমা কমিটি গঠন করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামী মুসলিম লীগের সাংগঠনিক কমিটি গঠিত হওয়ার পর থেকে এখানে ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগের শোষণনীতির বিরুদ্ধে ব্যাপক কার্যক্রম শুরু হয়। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন থানা, ইউনিয়ন এবং গ্রাম পর্যায়ে কমিটি গঠন করে আন্দোলন ছড়িয়ে দেয়া হয়। ছাত্র নেতৃবৃন্দকে নিয়ে গঠিত হয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কমিটি। তত্কালীন মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন আলী আজম ভুইয়া, সাধারণ সম্পাদক ছিলেন আবদুর রহমান (বড়হরণ)। আলী আজম ভুঁইয়া তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। কেন্দ ীয় পর্যায়েও তিনি ছাত্র আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছেন।

১৯৫৭ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তত্কালীন মহকুমা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সম্মেলনে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদে এডভোকেট আবদুল বারী এবং এডভোকেট আলী আজম ভুঁইয়া নির্বাচিত হন। সারা দেশের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়ও শোষক মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে আন্দোলন জোরদার করা হয়। কিন্তু ১৯৫৮ সালে জেনারেল আইয়ুব খান সামরিক শাসন জারি করলে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড কিছুদিনের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। তবে গোপনীয়ভাবে রাজনৈতিক তত্পরতা চলতে থাকে।

১৯৬৬ সালে শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে এবং বাঙালির ন্যায়সঙ্গত অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে ছয় দফাভিত্তিক আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ছয় দফার প্রতি পূর্ব-বাংলার জনগণ অকুণ্ঠ সমর্থন জানায়। এ আন্দোলন দমানোর জন্য শেখ মুজিবুর রহমানকে প্রধান আসামি করে ১৯৬৭ সালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা রুজু করা হয়। এর প্রতিবাদে বাংলার মানুষ সোচ্চার হয়ে ওঠে। এ সময় 'আঘাত হানার দিন এসেছে' শীর্ষক একটি প্রচারপত্র বিলি করতে গিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছাত্রনেতা মাহবুবুল হুদা ভুঁইয়া এবং শফিক খান গ্রেফতার হন। কিন্তু আন্দোলন থেমে থাকেনি। ব্রাহ্মণবাড়িয়াস্থ নবীনগরের গোপালপুর গ্রামের মোঃ মুজিবুর রহমান (সাবেক হাবিলদার) ছিলেন আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলায় অন্যতম আসামি। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সমগ্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ একটি এলাকায় পরিণত হয়েছিল। এর প্রধান কারণ ভৌগোলিক অবস্থান। উত্তরে হবিগঞ্জ থেকে দক্ষিণে কুমিল¬া জেলার ব্রাহ্মণপাড়া পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা, আখাউড়া, বিজয়নগর ও সদর থানার বিস্তীর্ণ এলাকা প্রায় ৬৫ কি. মি. সীমান্ত অঞ্চল।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন- '২৫ অক্টোবরের পর ঢাকায় বিএনপিকে খুঁজে পাওয়া যাবে না।' আপনি কি তাই মনে করেন?
9 + 1 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ২০
ফজর৩:৪৯
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৪
মাগরিব৬:৩৯
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৩৪
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :