The Daily Ittefaq
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৩, ০৯ কার্তিক ১৪২০, ১৮ জেলহজ্জ ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ শর্ত সাপেক্ষে কাল ঢাকায় সমাবেশের অনুমোতি পেয়েছে বিএনপি | চট্টগ্রামে নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করে নোমানের নেতৃত্বে মিছিল | মমিনুলের শতকে শক্ত অবস্থানে বাংলাদেশ | এবার খুলনায়ও সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ | চলে গেলেন মান্না দে | কাল রাজধানীতে আওয়ামী লীগের সমাবেশ না করার সিদ্ধান্ত | তফসিল ঘোষণার আগ পর্যন্ত এই সরকার নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগ করবে: তথ্যমন্ত্রী | নির্বাচনের প্রস্তুতি চূড়ান্ত, সময় মতো তফসিল:সিইসি

বিনিয়োগেও পিছিয়ে নেই তরুণরা

আহসান হাবীব রাসেল

শেয়ারবাজার ধসে বার বার পুঁজি হারালেও এখানে তারুণ্যের দাপট এতোটুকু কমেনি। ব্রোকারেজ হাউসগুলোতে তরুণদের স্বতস্ফূর্ত উপস্থিতি সেটাই প্রমাণ করে। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র, সদ্য পাস করা ছাত্র এবং অনেক তরুণ ব্যবসায়ী টাকা হারিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও শেয়ারবাজার থেকে তারা দূরে সরে যেতে পারেন নি। এরই ধারাবাহিকতায় শেয়ারবাজার তথা ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালনা পর্ষদের তরুণদের গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে।

গত কয়েক বছরে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র থেকে শুরু করে অনেক তরুণ শেয়ারবাজারে টাকা খাটিয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এরপরও তারা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ বন্ধ করেন নি। ঝুঁকিপূর্ণ হলেও এ ব্যবসায় বিনিয়োগ করে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনাও প্রবল। এজন্যই তারা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ অব্যাহত রাখছেন বলে জানা গেছে।

তরুণদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এখানে বিনিয়োগ করলে খুব বেশি সময় দিতে হয় না। তাছাড়া বুঝে শুনে বিনিয়োগ করতে পারলে কিছু দিন পর পর রিটার্নও পাওয়া যায়। তাই অনেকেই এখানে বিনিয়োগ করছেন। তবে ২০১০ এর পর থেকে শেয়ারবাজার বিনিয়োগকারীদেরকে আশানুরূপ ফল দিতে পারেনি। কয়েকদিন বাজারে দর বাড়লেও দর পতনই হয়েছে বেশি। ফলে হতাশ হতে হয়েছে বিনিয়োগকারীদের। এর মধ্যেও তরুণরা তাদের বিনিয়োগ ধরে রেখেছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসনের ছাত্র মাহমুদুল হাসান তেমনই একজন তরুণ বিনিয়োগকারী । ২০১০ এ তিনি শেয়ারবাজারে প্রায় ১০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন। মা ও মামার কাছ থেকে ঋণ করে এ অর্থের যোগান দিয়েছিলেন তিনি। কয়েক মাস না যেতেই শেয়ারবাজারে ধস শুরু হয়। সেই সাথে পুঁজিও কমতে থাকে ধীরে ধীরে। অর্থমন্ত্রী ও নীতি নির্ধারকদের আশ্বাসে আশ্বস্ত হয়ে শেয়ার বিক্রি না করে অপেক্ষা করতে থাকেন হাসান। এতেই তার ক্ষতি সর্বোচ্চ চূড়ায় উঠে যায়। বর্তমানে তার বিনিয়োগকৃত শেয়ারের দাম কয়েক হাজার টাকায় নেমে এসেছে। এরপরও হাসান মুখ থুবড়ে পড়েন নি। তিনি জানান, বর্তমানে কয়েকটি বিও (বেনিফিশিয়ারি ওনার্স) অ্যাকাউন্ট করে প্রাইমারি মার্কেটে ব্যবসা করছেন। এতে মাঝে মাঝে শেয়ার পেয়ে কিছুটা লাভেরও মুখ দেখছেন। লাভের টাকা দিয়ে সেকেন্ডারি মার্কেটে কিছু কিছু বিনিয়োগও করছেন। আর বর্তমানে শেয়ারের দাম খুব কম হওয়ায় মাঝে মাঝে লাভও হচ্ছে।

সাধারণ বীমা ব্রোকারেজ হাউস ঘুরে দেখা গেছে, রাজধানীর কাজী নজরুল ইসলাম কলেজের ছাত্র তরিকুল ইসলাম সাগর এসেছেন শেয়ার লেনদেন করতে। অপকটে তিনি জানালেন, কিভাবে ২০১০ এ শেয়ারবাজারে ১৫ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে ২০১১ এর শেষের দিকে শূন্য হাতে ফিরে গেছেন বাজার থেকে। তবে হাল ছাড়েননি। আবার বিনিয়োগ করেছেন। তার ভাষ্য হলো- আগে যখন বিনিয়োগ করেছি তখন অনেক ক্ষেত্রেই না বুঝে বিনিয়োগ করেছি। এখন বুঝে শুনে বিনিয়োগ করছি। ফলে শেষ পর্যন্ত লাভের মুখ দেখা যাচ্ছে। শেয়ারবাজার ধসের ক্ষত এখনও শুকায়নি। তারপরও এখানেই কেন ফের বিনিয়োগ-এমন প্রশ্নের জবাবে সাগর উদ্ধৃত করেন ওয়ারেন বাফেটের একটি উক্তি- 'যেখানে তোমার টাকা হারিয়েছে, পেতে হলে তা সেখানেই খুঁজতে হবে।'

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
সংসদে খালেদা জিয়ার নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের প্রস্তাব উপস্থাপন করেছে বিএনপি, আপনি কি মনে করেন সংসদ তার প্রস্তাব বিবেচনা করবে?
7 + 7 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ১২
ফজর৫:০৯
যোহর১১:৫২
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩০সূর্যাস্ত - ০৫:১১
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :