The Daily Ittefaq
ঢাকা, রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৩, ০১ পৌষ ১৪২০, ১১ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ ভিকারুন নিসা নূন স্কুলের ভর্তি লটারি ২০, ২১ ও ২২ ডিসেম্বর | জয়পুরহাটে সংঘর্ষে নিহত ৩ | ভোট হচ্ছে ১৪৬ আসনে, প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৮৭ জন | সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী | লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা | নির্বাচন নিয়ে তামাশা নজীরবিহীন : কাজী জাফর | ব্যারিস্টার আনিসুলের বাড়িতে ককটেল হামলা | ১৬ ডিসেম্বরের পর থেকে পাল্টা আঘাত : হানিফ | বিএনপি আসলে এপ্রিলে নির্বাচন : আনন্দবাজার পত্রিকা | সিলেটের কানাইঘটে যুবলীগ নেতা খুন | মিরপুরে পুলিশ খুন, স্ত্রী গ্রেফতার | লালমনিরহাটে সংঘর্ষে উপজেলা শিবির সভাপতিসহ নিহত ৪

১৫১ আসনে একক প্রার্থী

আওয়ামী লীগ-১২৭, জাপা ১৮, প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন ৩২৭

সাইদুর রহমান

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণের আগেই সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়েছেন মহাজোটের প্রার্থীরা। ৩শ' আসনের মধ্যে ১৫১ আসনেই রয়েছে মহাজোটের একক প্রার্থী। ফলে সরকার গঠন করতে আওয়ামী লীগের আর বাধা রইল না। তবে সাংবিধানিক বাধার কারণে ২৪ জানুয়ারির আগে নতুন সরকার গঠন করা যাচ্ছে না।

ইসি সূত্র জানায়, সংবিধানের ১২৩ এর ৩ (ক) ধারা অনুসারে নবম জাতীয় সংসদকে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত তার মেয়াদ পূর্ণ করতে হবে। এদিকে নির্বাচন কমিশনের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫১টিতে একক প্রার্থী থাকায় এসব নির্বাচনী এলাকায় ভোট গ্রহণের দরকার হবে না। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ১২৭, জাতীয় পার্টির ১৮, ওয়ার্কার্স পার্টির ২, জাসদের (ইনু) ৩ এবং জাতীয় পার্টির (জেপি) একজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে চলেছেন। তাদের মধ্যে অনেককে জেলা রিটার্নিং অফিসার বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করেছেন। এখনো পর্যন্ত বিশেষ করে চাঁদপুর, মাদারিপুর, শরীতপুর জেলায় নির্বাচন করা লাগছে না।

নির্বাচন কমিশনের হিসাব অনুযায়ী, সারাদেশের ৩২৭জন প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এদের মধ্যে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ১০টি, জাতীয় পার্টি ১৫৮টি, জাতীয় পার্টি (জেপি) ১৭টি, জাসদ (জেএসডি) ২২টি, আওয়ামী লীগ ৪৪টি, ইসলামিক ফ্রন্ট ১টি, খেলাফত মজলিশ ২টি, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি ৪টি, তরিকত ফেডারেশন ৭টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ৩টি, ন্যাপ-১, বিএনএফ ৬টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ৮টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ৪৩টি। এখন ৩শ' আসনে মোট প্রার্থী থাকছেন ৫৫৩ জন। যা এযাবত্ যে কোন সাধারণ নির্বাচনের অংশগ্রহণকারী প্রার্থীর চেয়ে অনেক কম।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে ১৬টি দল। এগুলো হলো:আওয়ামী লীগ, জাপা, জাতীয় পার্টি (জেপি), গণতন্ত্রী পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, তরীকত ফেডারেশন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, গণফ্রন্ট, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ও বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ)।

ইসি সচিবালয়ের তথ্য অনুসারে দশম সংসদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, ঠাকুরগাঁও-২ আসনে আলহাজ্ব মো: দবিরুল ইসলাম, দিনাজপুর-২ খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, নীলফামারী-২ আসাদুজ্জামান নূর, লালমনিরহাট-২ নুরুজ্জামান আহমেদ, রংপুর-২ আবুল কালাম মো: আহসানুল হক চৌধুরী, রংপুর-৫ এইচ এন আশিকুর রহমান, গাইবান্ধা-৫ মো: ফজলে রাব্বী মিয়া, জয়পুরহাট-১ সামসুল আলম দুদু, জয়পুরহাট-২ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, বগুড়া-১ আব্দুল মান্নান, বগুড়া-৫ মো:হাবিবর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ মোহা:গোলাম রাব্বানী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ মো:আব্দুল ওদুদ, নওগাঁ-১ সাধন চন্দ মজুমদার, নওগাঁ-২ মো:শহীদুজ্জামান সরকার, নওগাঁ-৬ মো: ইসরাফিল আলম, রাজশাহী-১ ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-৪ এনামুল হক, রাজশাহী-৫ মো: আব্দুল ওয়াদুদ, নাটোর-১ মো.আবুল কালাম, নাটোর-২ মো. শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর-৪ মো: আব্দুল কুদ্দুস, সিরাজগঞ্জ-১ মোহাম্মদ নাসিম, সিরাজগঞ্জ-২ মো. হাবিবে মিল্লাত, সিরাজগঞ্জ-৩ মো. ইসহাক হোসেন তালুকদার, সিরাজগঞ্জ-৪ তানভীর ইমাম, সিরাজগঞ্জ-৬ মো. হাসিবুর রহমান স্বপন, পাবনা-২ খন্দকার আজিজুল হক আরজু, পাবনা-৪ শামসুর রহমান শরীফ, পাবনা-৫ গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স, যশোর-১ শেখ আফিল উদ্দিন, যশোর-৩ কাজী নাবিল আহমেদ, নড়াইল-১ মো: কবিরুল হক, বাগেরহাট-১ শেখ হেলাল উদ্দিন, বাগেরহাট-২ মীর শওকত আলী বাদশা, বাগেরহাট-৩ তালুকদার আব্দুল খালেক, সাতক্ষীরা-৩ আফম রুহুল হক, সাতক্ষীরা-৪ সম জগরুল হায়দার, খুলনা-৪ এস এম মোস্তফা রশিদী, খুলনা-৫ নারায়ণ চন্দ চন্দ, খুলনা-৬ শেখ মো: নুরুল হক, পটুয়াখালী-২ আসম ফিরোজ, পটুয়াখালী-৬ মো. মাহবুবুর রহমান, ভোলা-১ তোফায়েল আহমেদ, ভোলা-৪ আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, বরিশাল-১ আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ, বরিশাল-৫ মো: শওকত হোসেন, ঝালকাঠি-২ আমির হোসেন আমু, পিরোজপুর-১ একেএমএ আউয়াল (সাঈদুর রহমান), টাঙ্গাইল-১ মো: আব্দুর রাজ্জাক, টাঙ্গাঈল-৩ আমানুর রহমান খান রানা, টাঙ্গাইল-৪ আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, টাঙ্গাইল-৭ মো: একাব্বর হোসেন, টাঙ্গাইল-৮ শওকত মোমেন শাহজাহান, জামালপুর-৩ মির্জা আজম, ময়মনসিংহ-১ প্রমোদ মানকিন, ময়মনসিংহ-২ শরীফ আহেমদ, ময়মনসিংহ-৯ আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, নেত্রকোনা-৪ রেবেকা মমিন, নেত্রকোণা-৫ ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল, কিশোরগঞ্জ-১ সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ-২ মো: সোহরাব উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ-৪ রেজওয়ান আহমদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জ-৫ আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-৬ নাজমুল হাসান, মানিকগঞ্জ-২ মমতাজ বেগম, মানিকগঞ্জ-৩ জাহিদ মালেক, মুন্সিগঞ্জ-৩ মৃণাল কান্তি দাস, ঢাকা-২ মো: কামরুল ইসলাম, ঢাকা-৩ নসরুল হামিদ, ঢাকা-৯ সাবের হোসেন চৌধুরী, ঢাকা-১০ শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা-১১ একেএম রহমতুল্লাহ, ঢাকা-১২ আসাদুজ্জামান খান, ঢাকা-১৩ জাহাঙ্গীর কবির নানক, ঢাকা-১৪ মো: আসলামুল হক, ঢাকা-১৯ ডা. মো: এনামুর রহমান, ঢাকা-২০ এম এ মালেক, গাজীপুর-১ আকম মোজাম্মেল হক, গাজীপুর-২ মো: জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর-৩ আলহাজ্ব অ্যাভোকেট মো: রহমত আলী, গাজীপুর-৫ মেহের আফরোজ, নরসিংদী-৪ নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, নরসিংদী-৫ রাজি উদ্দিন আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ-২ মো. নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ-৪ শামীম ওসমান, রাজবাড়ী-১ কাজী কেরামত আলী, রাজবাড়ী-২ মো: জিল্লুল হাকিম, ফরিদপুর-১ মো. আব্দুর রহমান, ফরিদপুর-২ সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, ফরিদপুর-৩ খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মাদারীপুর-১ নূর-ই-আলম চৌধুরী, মাদারীপুর-২ শাজাহান খান, মাদারীপুর-৩ আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, শরীয়তপুর-১ বিএম মোজাম্মেল হক, শরীয়তপুর-২ শওকত আলী, শরীয়তপুর-৩ নাহিম রাজ্জাক, সুনামগঞ্জ-২ সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত, সিলেট-১ আবুল মাল আব্দুল মুহিত, সিলেট-৩ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, সিলেট-৬ নুরুল ইসলাম নাহিদ. মৌলভীবাজার-৩ সৈয়দ মহসিন আলী, মৌলভীবাজার-৪ মো. আব্দুস শহীদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আনিসুল হক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ এবি তাজুল ইসলাম, কুমিল্লা-৭ অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ, কুমিল্লা-১০ আ হ ম মুস্তফা কামাল, কুমিল্লা-১১ মো: মুজিবুল হক, চাঁদপুর-১ ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, চাঁদপুর-২ মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী, চাঁদপুর-৩ ডা. দিপু মনি, চাঁদপুর-৪ ড. মো. শামছুল হক ভুঁইয়া, চাঁদপুর-৫ মেজর অব. রফিকুল ইসলাম (বীর উত্তম), ফেনী-২ নিজাম উদ্দিন হাজারী, নোয়াখালী-১ এইচ.এম ইব্রাহিম, নোয়াখালী-২ মোরশেদ আলম, নোয়াখালী-৩-আসন মামুনুর রশিদ কিরন, নোয়াখালী-৪ একরামুল করিম চৌধুরী, নোয়াখালী-৫ ওবাদুল কাদের, লক্ষ্মীপুর-৩ একেএম শাহজাহান কামাল, চট্টগ্রাম-১ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, চট্টগ্রাম-৬ এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৭ মো. হাসান মাহমুদ, চট্টগ্রাম-১০ মো: আফছারুল আমীন, চট্টগ্রাম-১৪ মো: নজরুল ইসলাম চৌধুরী, কক্সবাজার-২ আশেক উল্লাহ রফিক, কক্সবাজার-৩ সাইমুম সরওয়ার কমল।

বিজয়ী জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রার্থীরা হলেন-ময়মনসিংহ-৪ রওশন এরশাদ, কুড়িগ্রাম-২ মো: তাজুল ইসলাম চৌধুরী, কুড়িগ্রাম-৩ এ,কে, এম মাঈদুল ইসলাম, বগুড়া-২ শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ, বগুড়া-৩ মো: নুরুল ইসলাম তালুকদার, বগুড়া-৬ মো: নূরুল ইসলাম ওমর, ময়মনসিংহ-৫ সালাহউদ্দিন আহমেদ (মুক্তি), নারায়ণগঞ্জ-৩ লিয়াকত হোসেন খোকা, নারায়ণগঞ্জ-৫ নাসিম ওসমান, সুনামগঞ্জ-৪ পীর ফজলুর রহমান, সিলেট-৫ সেলিম উদ্দিন, হবিগঞ্জ-১ মি: মোহাম্মদ আব্দুল মুনিম চৌধুরী, কুমিল্লা-২ মো: আমির হোসেন, কুমিল্লা-৮ নুরুল ইসলাম মিলন, লক্ষ্মীপুর-২ মোহাম্মদ নোমান, চট্টগ্রাম-৫ আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, কক্সবাজার-১ মোহাম্মদ ইলিয়াস, বরিশাল-৬ নাসরিন জাহান রতন।

বিজয়ী জাতীয় পার্টির-জেপির প্রার্থীরা হলেন-পিরোজপুর-২ আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। ওয়ার্কার্স পার্টি:ঢাকা-৮ রাশেদ খান মেনন ও রাজশাহী-২ ফজলে হোসেন বাদশা। জাসদ:কুষ্টিয়া-২ হাসানুল হক ইনু, চট্টগ্রাম-৮ মঈন উদ্দীন খান বাদল ও ফেনী-১ শিরীন আখতার।

লাঙ্গল প্রতীক পেলো জাপা

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের অনুরোধ সত্ত্বেও জাপার প্রার্থীদের লাঙ্গল প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরশাদ কাউকে লাঙ্গল প্রতীক না দিতে ইসিতে যে চিঠি দিয়েছে এ সম্পর্কে জানতে চাইলে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লার রহমান (ঢাকা রিটার্নিং কর্মকর্তা) নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, নির্বাচন কমিশন নির্দেশনা অনুসারে তাদেরকে কাজ করতে হচ্ছে। প্রতীক বরাদ্দ সম্পর্কে বলেন, শনিবার আটটি আসনে ২৩ জন প্রার্থীকে প্রতীক দেয়া হয়েছে। আর সাতটি আসনে কোন প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন।

এদিকে এবারের নির্বাচনে বিভিন্ন দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলিয়ে মোট এক হাজার ১০৭ জন মনোনয়নপত্র জমা দেন। বাছাইয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তারা ২৬০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করে দেন। ১৩৮ জন রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আবেদন করেন। কমিশন শুনানি শেষে ৪২টি আবেদন মঞ্জুর করে। এতে ৩৭ জন প্রার্থিতা ফিরে পেলেও ৪ জন প্রার্থিতা হারান।

উল্লেখ্য, এর আগে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে ৪৮ জন এবং ২০০৭ সালের বাতিল হওয়া ২২ জানুয়ারির নির্বাচনে ১৭ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দলের পক্ষে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, 'নাটক করার জন্যই আওয়ামী লীগ সংলাপ চালিয়ে যাচ্ছে'। আপনিও কি তাই মনে করেন?
9 + 7 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ৬
ফজর৫:০৭
যোহর১১:৫০
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:২৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :