The Daily Ittefaq
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০১২, ১১ পৌষ ১৪১৯, ১১ সফর ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ উত্তর প্রদেশে পুলিশের কাছে গিয়ে ফের ধর্ষিত | সাংবাদিক নির্মল সেন লাইফ সাপোর্টে | হলমার্ক জালিয়াতি:ঋণের নথি জব্দে সোনালী ব্যাংকে দুদকের অভিযান | ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে ৯৭ কিলোমিটার জুড়ে যানজট | রোহিঙ্গাদের স্বীকৃতি দিন: মিয়ানমারকে জাতিসংঘ | বিশ্বজিত্ হত্যাকাণ্ড: এমদাদুল ৭ দিনের রিমান্ডে | গণসংযোগে সহযোগিতা করবে সরকার :স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী | স্বাধীনতার পাশাপাশি গণমাধ্যমকে দায়িত্বশীলও হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী | গণসংযোগে বাধা দেবে না আওয়ামী লীগ : সাজেদা চৌধুরী | চট্টগ্রামে কোটি টাকার হেরোইন উদ্ধার | সম্পর্ক উন্নয়নে ভারত-পাকিস্তান সিরিজ শুরু আজ | জনসংযোগে বাধা দিলে কঠোর কর্মসূচি: বিএনপি

বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল হচ্ছে ১৫ বছর পর

মহানগর কমিটির সভাপতি হতে পারেন মেয়র হিরন

লিটন বাশার, বরিশাল অফিস

দীর্ঘ ১৫ বছর পর আগামী ২৭ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে এখানকার জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ৯ বছর পর একই দিনে মহানগর আওয়ামী লীগের কাউন্সিলও অনুষ্ঠিত হবে। জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের এ কাউন্সিলে তেমন কোনো চমক থাকছে না বলে জানিয়েছেন দলের শীর্ষ নেতারা। বিশেষ করে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ-পদবীর বিষয়টি নির্ভর করছে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা পরিষদের প্রশাসক ডা. মোখলেস উর রহমান ও সাবেক চীফ হুইপ আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর ওপর। আর মহানগরের সভাপতি প্রায় নিশ্চিত হয়ে আছে। টানা ৯ বছর আহ্বায়কের দায়িত্ব পালনকারী সিটি মেয়র শওকত হোসেন হিরনই এই পদটি পেতে যাচ্ছেন। তবে সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন একাধিক প্রার্থী।

জেলা সম্মেলনেও প্রায় একই অবস্থা। জেলা কমিটিতে পুরনো নেতাদেরই ১৫ বছর পর পুনর্বহাল করা হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ পদে। দলের দায়িত্বশীল নেতারা জানান, বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা পরিষদের প্রশাসক ডা. মোখলেস উর রহমানের ওপর নির্ভর করছে নতুন জেলা কমিটির ভাগ্য। বর্ষীয়ান এই নেতা যদি সভাপতির পদটি দাবি না করে স্বেচ্ছায় ছেড়ে দেন তা হলে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ সভাপতির দায়িত্ব নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে সাধারণ সম্পাদক হিসাবে বর্তমান দপ্তর সম্পাদক সংসদ সদস্য তালুকদার মোহম্মদ ইউনুচ বা অন্য কাউকে দেখা যেতে পারে। তা না হলে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির পদটি স্থায়ী করে ডা. মোখলেস উর রহমানকে সভাপতি ও আবুল হাসানাতকে সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল রেখে বাকি পদগুলোতে নতুন মুখের স্থান হতে পারে। হাসানাতের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, যদি হাসানাত কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মনোনীত হন, সেক্ষেত্রে তিনি জেলা কমিটিতে থাকবেন না। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জেলা বা আঞ্চলিক কমিটিতে থাকতে পারেন না।

জেলা কাউন্সিলের লক্ষ্যে গত ৬ মাসে মুলাদী, হিজলা, বাকেরগঞ্জ, বাবুগঞ্জ, উজিরপুর, বানারীপাড়া ও মেহেন্দীগঞ্জের কাউন্সিল সম্পন্ন করা হয়। এ ৭ উপজেলায় যে নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে, সেসব কমিটির সদস্যরাই জেলা কাউন্সিলে অংশ নেবেন। সকল উপজেলা কাউন্সিলে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ নিজেই উপস্থিত ছিলেন। বেশ কয়েকটি উপজেলা কমিটি গঠন নিয়ে পদ-বঞ্চিতরা আদালতে মামলাও করেছেন। আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগের মতো বৃহত্তর দলের মধ্যে পদ-পদবীর জন্য দ্বন্দ্ব থাকাই স্বাভাবিক। পদ-বঞ্চিতদের মধ্যে ক্ষোভ থাকবেই। জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সংসদ সদস্য তালুকদার মোহম্মদ ইউনুচ জানিয়েছেন, যারা আদালতে মামলা করেছেন, তাদের দলের মধ্যে তেমন কোনো অবস্থান নেই। উপজেলা নেতাদের মতামত নিয়েই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সদর উপজেলা কমিটিও স্বচ্ছতার মধ্য দিয়ে গঠন করা হবে।

এখানকার জেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৭ সালে। তখন সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন মহিউদ্দিন আহমেদ। ২০০৪ সালে তিনি মারা যাওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান ডা. মোখলেস উর রহমান। শুধু মহিউদ্দিন আহমেদ একাই নন, দীর্ঘ ১৫ বছরে এ কমিটির সহ-সভাপতি সোবাহান মাসুদ ও অধর মুখার্জী, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম ও যুগ্ম-সম্পাদক তরুণ দেবসহ ১৪ জন নেতাই বেঁচে নেই। এ অবস্থায় প্রায় নেতাশূন্য জেলা আওয়ামী লীগে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ সভাপতি নির্বাচিত হলে সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য তালুকদার মোহম্মদ ইউনুচ ছাড়াও মশিউর রহমান মিন্টু, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সাবেক সচিব সিরাজউদ্দিন আহমেদ, কর্নেল (অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীম ও মনিরুল আহসান মনিরের নাম উঠে আসছে আলোচনায়। তবে সম্ভাব্য সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীরা কাউন্সিলরদের সমর্থনের চেয়ে হাসানাতের আশির্বাদ পাওয়ার জন্য বেশি তত্পর। একই সাথে তারা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. মোখলেস উর রহমানকে সভাপতির দায়িত্ব না নেয়ার জন্য অনুনয়-বিনয় করছেন বলে দলের অধিকাংশ নেতা জানিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার যে সদর উপজেলার কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, সেটিরও সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭৮ সালে। ২০০১ সালে বিএম কলেজের সাবেক ভিপি আনোয়ার হোসাইনকে আহ্বায়ক করে নতুন উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়। ২০০৬ সালের ২৪ জুলাই চরমোনাইতে সদর উপজেলার সম্মেলন আয়োজন করা হলেও তা দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পণ্ড হয়ে যায়। সম্মেলন করতে না পেরে পুরনো আহ্বায়ক কমিটি বহাল রাখা হয়। ঐ উপজেলা কমিটি বহাল থাকা অবস্থায় আরেকটি সম্মেলন প্রস্ততি কমিটি করে ৬ মাস পূর্বে মনিরুল ইসলাম ছবিকে দায়িত্ব দেয়া হয়। সেই থেকে ভিপি আনোয়ার সদর উপজেলা কমিটিতে নিস্ক্রিয়। সদর উপজেলায় ৩৪ বছর পর অনুষ্ঠিত এই কাউন্সিলে সভাপতিত্ব করবেন সম্মেলন প্রস্তুতি উপ-কমিটির আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম ছবি। এতে ক্ষুব্ধ আহ্বায়ক ভিপি আনোয়ার হোসাইন ইত্তেফাককে জানান, এ কাউন্সিল অবৈধ। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী মেট্রোপলিটন এলাকার ৪ থানায় ৪টি কমিটি হওয়ার কথা, সেখানে ৩ থানাকে বাদ দিয়ে শুধু কোতয়ালি থানা কেন্দ্রিক সদর উপজেলা কমিটি গঠন অবৈধ। বাকেরগঞ্জের সম্মেলন হয়েছে টানা ৩০ বছর পর গত মাসে। গৌরনদীতে ২০০৪ সালের পর উপজেলা আহ্বায়ক কালিয়া দমন গুহকে বহিষ্কার করা হয়। সেই থেকে সেখানে কোনো কমিটি নেই। আগৈলঝাড়ায় ২০০১ সালে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। গতকাল এ দুইটি উপজেলার কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২০০৩ সালে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত হোসেন হিরনকে আহ্বায়ক এবং এডভোকেট আফজালুল করিম, আলমগীর হোসেন আলো ও একেএম জাহাঙ্গীরকে যুগ্ম-আহ্বায়ক করে গঠন করা হয় মহানগর আওয়ামী লীগের ৬৭ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি। গত ১৫ এপ্রিল মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ১৯ জনকে নতুন করে কো-অপ্ট করা হলেও এখনো পর্যন্ত তা অনুমোদন দেয়নি কেন্দ্রীয় কমিটি। ৯ বছর পর ২৭ ডিসেম্বর মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বিকালে বরিশাল ক্লাবে। একই দিন সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। কাউন্সিলে প্রধান অতিথি থাকবেন বরিশাল বিভাগের সমন্বয়কারী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু এমপি। উদ্বোধন করবেন প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন। প্রধান বক্তা থাকবেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাছিম। এ ছাড়াও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

এর আগে ২০১১ সালের ১২ ডিসেম্বর কাউন্সিলের সকল প্রস্তুতি নেয়া হলেও তা শেষ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে এবার সম্মেলনকে ঘিরে গত শনিবার জেলা আওয়ামী লীগ ও রবিবার রাতে মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জেলা ও মহানগর কাউন্সিল নিশ্চিত করেছে। এবার আর কাউন্সিল পিছনোর কোনো আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন দলের শীর্ষ নেতারা।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
সংসদীয় আসনের সীমানা পুন:নির্ধারণে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের আপত্তি যৌক্তিক বলে মনে করেন?
5 + 5 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ২
ফজর৫:০৪
যোহর১১:৪৮
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২৪সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :