The Daily Ittefaq
ঢাকা, বুধবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০১৩, ১১ পৌষ ১৪২০, ২১ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ টেস্ট ক্রিকেট থেকে বিদায় নিচ্ছেন ক্যালিস | বাগদাদে চার্চের সন্নিকটে গাড়িবোমা বিস্ফোরণ, নিহত ১৫ | কাল সারাদেশে ১৮ দলের বিক্ষোভ সমাবেশ | রাজধানীতে পেট্রোল বোমায় দগ্ধ হয়ে পুলিশের মৃত্যু | আগুনে প্রাণ গেল আরও দুই পরিবহন শ্রমিকের

'বাংলাদেশ রুখে দাঁড়াও'-এর সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তারা

জামায়াত পরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু নিধন করছে

ইত্তেফাক রিপোর্ট

জামায়াত-শিবির পরিকল্পিতভাবে ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও তৃণমূলের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হত্যা করছে বলে অভিযোগ করেছেন 'বাংলাদেশ রুখে দাঁড়াও'-এর নেতৃবৃন্দ। তারা সাতক্ষীরার আক্রান্ত এলাকা পরিদর্শন করে এসে জানান, জামায়াত-শিবির '৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে যে ধরনের সহিংস আচরণ করেছিল; একইভাবে তারা এখনো অগ্নিসংযোগ, লুট, হত্যা করে যাচ্ছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের যে মৌলিক ভাবনাগুলো ছিল তা আমাদের ফিরিয়ে আনতে হবে। এ দেশের নাগরিক হিসেবে এটা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করার দাবি অত্যন্ত জোড়ালোভাবে তুলে ধরতে হবে।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে সেগুনবাগিচা মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর মিলনায়তনে 'বাংলাদেশ রুখে দাঁড়াও' আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন সাংবাদিক আবেদ খান। আরও বক্তব্য রাখেন মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, ডা. সারওয়ার আলী, তথ্য কমিশনার অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সানজিদা আক্তার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. কাবেরী গায়েন, নাট্যব্যক্তিত্ব রোকেয়া প্রাচী প্রমুখ।

গত ২২ ও ২৩ ডিসেম্বর সাতক্ষীরার কলারোয়া, দেবহাটা, কালীগঞ্জ ও আশাশুনির বুধহাটার আক্রান্ত এলাকাগুলো সরেজমিন ঘুরে এসে সাংবাদিকদের এ বিষয়ে অবহিত করতেই নেতৃবৃন্দ এ সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন।

সুলতানা কামাল বলেন, আমরা লক্ষ্য করছি তারা পরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু হিন্দু ও তৃণমূলের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের টার্গেট করে হত্যা করছে। তিনি বলেন, সাতক্ষীরার সহিংসতার ধরন প্রমাণ করে এসব সহিংসতা মোটেই নির্বাচনকেন্দ্রিক নয়; বরং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা ও জামায়াত শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার যে দাবি উঠেছে তারই প্রতিক্রিয়া।

লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিক আবেদ খান বলেন, আমরা সাতক্ষীরা ঘুরে যা দেখে এসেছি, তা মুক্তিযুদ্ধেরই আরেক রূপ। কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের আগের রাতে মুখে কাপড় বেঁধে ১৫০ থেকে ২০০ জনের মতো মানুষ কলারোয়া উপজেলায় একটি বাজারে লুটপাট চালায়। কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের পাঁচ মিনিটের মধ্যেই কয়েকশ' জামায়াত-শিবিরকর্মী কলারোয়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আজহারুল ইসলাম আজুকে কুপিয়ে হত্যা করে। পিতার কবরে পালিয়েও জামায়াত কর্মীদের হাত থেকে রেহাই পাননি তিনি। সেখান থেকে ধরে এনে স্বজনদের সামনেই কুপিয়ে হত্যা করা হয় তাকে।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আগরদাড়ির তিন কিলোমিটার দূরে কুচপুকুর এলাকায় রয়েছে জামায়াত পরিচালিত মাদ্রাসা। স্থানীয় জনগণের ভাষায়—'জামায়াতের ক্যান্টনমেন্ট'। সেখানে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলামকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। কারো দোকান পুড়িয়ে বা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে অথবা মারধর করা হয়েছে। ওই এলাকাতেই নয় বছরের শিশু রিয়াদকে পানিতে ডুবিয়ে মেরেছে ঘাতকরা। ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা। কুচপুকুর এলাকায় আওয়ামী লীগ নামে কোন সংগঠন থাকবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে জামায়াতের চেয়ারম্যান।

লিখিত বক্তব্যে আবেদ খান আরও বলেন, দেবহাটা উপজেলায় আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুল হকসহ চারজনকে হত্যা করা হয়েছে। ৭৫ জনের বসতবাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও দোকানপাট পুড়িয়ে দেয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে। কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের পরই চেষ্টা করা হয়েছে কুলিয়া শহীদ মিনার ভেঙ্গে ফেলার। তবে সকল তাণ্ডবের সাক্ষী হয়ে আছে দেবহাটা থানার গাজীর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সুভাষ ঘোষের বাড়িটি। ১৩ ডিসেম্বর সকালেই শত শত মানুষ এসে মজবুত দোতলা বাড়িটি পেট্রোল ঢেলে গানপাউডার দিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

এসব ঘটনায় 'বাংলাদেশ রুখে দাঁড়াও'-এর পক্ষ থেকে বক্তারা বলেছেন, সাতক্ষীরার আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে। সাম্প্রদায়িক সহিংসতা প্রতিরোধ করতে হবে। সেই সঙ্গে সরকারকে শক্ত হতে হবে। গণমাধ্যমের বর্তমান দায়িত্বশীল ভূমিকা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি প্রত্যন্ত অঞ্চলের ঘটনাগুলোকে তুলে আনতে হবে এবং সংবাদকে ব্ল্যাক আউট করা যাবে না।

বক্তারা দাবি জানিয়ে বলেন, যুদ্ধাপরাধের বিচার ত্বরান্বিত এবং রায় দ্রুত কার্যকরা করা হোক। দলীয় নেতা-কর্মীদের ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর ব্যবস্থা করুন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সাংস্কৃতিক আন্দোলন গড়ে তুলুন এবং প্রথমে দলীয় নেতাকর্মীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার প্রশিক্ষণ দিন।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, 'সরকারের অনড় অবস্থানের কারণে সঙ্কটের সমাধান হয়নি।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
8 + 8 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
নভেম্বর - ১৫
ফজর৫:১২
যোহর১১:৫৪
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৫
সূর্যোদয় - ৬:৩৩সূর্যাস্ত - ০৫:১২
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :