The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৩, ১৬ পৌষ ১৪২০, ২৬ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ শমসের মবিন চৌধুরী আটক | বুধবার সকাল ছয়টা থেকে লাগাতার অবরোধের ডাক ১৮ দলের | কাল ব্যাংক ও পুঁজিবাজার বন্ধ | বিএনপি নেতা শমসের মবিন চৌধুরী আটক | ২ দিনের রিমান্ডে হাফিজ | বিরোধী দলের আন্দোলনের মূল লক্ষ্য মানুষ হত্যা: প্রধানমন্ত্রী | ছাড়া পেলেন সেলিমা হীরা হালিমা | ৩১ ডিসেম্বর রাতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ : ডিএমপি | রাজশাহীতে ৪৪টি তাজা ককটেল ও সাড়ে ৪ কেজি গানপাউডার উদ্ধার | মোহাম্মদপুরে ২০০ হাতবোমাসহ আটক ৩ | প্রাথমিকে পাস ৯৮.৫৮

কেজরিওয়ালের পথ কন্টকমুক্ত নাও হতে পারে

অঞ্জন রায় চৌধুরী

দিল্লির নতুন মুখ্যমন্ত্রী এবং আম আদমি পার্টির নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল বাইরে থেকে কংগ্রেসের সমর্থন নিয়ে কি ফাঁদে পড়তে যাচ্ছেন? তিনি যেসব বৃহত্ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা পূরণের উপায় খুঁজে পাবেন? এসব নিয়ে চলছে গুঞ্জন। কংগ্রেস যে হিসাব-নিকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, দিল্লিতে বিদ্যুতের দাম অর্ধেকে নামিয়ে আনতে পারবে না বর্তমান সরকার। এছাড়া আরো কিছু বিষয় নিয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে যাচ্ছেন সদ্য দায়িত্ব নেয়া কেজরিওয়াল।

১৯৯৩ সালের পর থেকে অর্থাত্ দিল্লি বিধানসভা গঠনের পর থেকে এখন পর্যন্ত কেজরিওয়ালই একমাত্র রাজনীতিক যিনি বিজেপি ও কংগ্রেসকে এক আঘাতেই পরাজিত করেছেন। বর্তমানে কংগ্রেসের একটি অংশ আম অদমি পার্টিকে সমর্থনের জন্য সমালোচনা মুখর আর বিজেপিও দ্বিধা-বিভক্ত। দিল্লি বিজেপির কিছু সংখ্যক নেতা মনে করে, তাদের মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী হর্ষ বর্ধন কজেরিওয়ালের ধোকাবাজির শিকার হয়েছেন। এক বিজেপি নেতা বলেন, আমাদের সর্বোচ্চ সংখ্যক আসন সত্ত্বেও এখন আমরা বিরোধীদলের আসনে বসে আছি। সম্প্রতি এক জ্যেষ্ঠ কংগ্রেস নেতা বলেছেন, কেজরিওয়াল যে কোন নেতার চেয়ে অনেক বেশি চৌকস। তারাই ঠিক। তারা রাজনীতিক নন বরং দালাল। তবে কেজরিওয়াল এর জবাবে বলেছেন, প্রয়াত লাল বাহাদুর শাস্ত্রী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি রাজনীতিকও ছিলেন। আর আমরা হলাম তার পদাঙ্ক অনুসারী। আম আদমি পার্টিকে কংগ্রেসের সমর্থন দেয়ার উদ্দেশ্য হলো দিল্লির বিধান সভার নতুন নির্বাচন কয়েক মাসের জন্য একটু বিলম্বিত করা। কারণ সামনে ভারতের লোকসভার নির্বাচন। এই মুহূর্তে বিধাসভার নির্বাচন হলে দুটিতে সমন্বয় করা কংগ্রেসের জন্য কঠিন হবে। এক্ষেত্রে বিজেপির জয় অনেকটাই অবধারিত।

এসবের পর সরকার হিসেবে আম আদমি পার্টির সাফল্য সীমিতই হবে। বর্তমানে যে উত্তেজনা চলছে তা কেটে গেলে অনেক বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হবে কেজরিওয়ালকে। প্রথমত, সমস্যা হলো সিএনজির দাম বৃদ্ধি। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তার শপথ গ্রহণের আগেই কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার এ কাজটি করেছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও ভূমির মতো কিছু গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রীর নিয়ন্ত্রণই নেই। এগুলোর উপর খবরদারি কেন্দ্রীয় সরকারের। এছাড়া সদ্য বিদায়ী শীলা দিক্ষিতের সরকারের মতো দিল্লি সরকার কেন্দ্রীয় তহবিল পাবে তো? দেশটির পুরোনো রাজনৈতিক দলটি কেজরিওয়াল সরকারকে অপদস্ত করতে নোংরা রাজনীতি করতে পারে। তারা এখন দিল্লিতে থাকা অননুমোদিত কলোনিগুলো ভেঙে গুঁড়িয়ে দিতে পারে। এসব কলোনি আগে কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি ছিলো। কিন্তু নির্বাচনে আম আদমি এসব ঘাঁটিতে ভালো করেছে। এটা হলে সাম্প্রদায়িক বা জাতিগত সংঘাতের সৃষ্টি হতে পারে। যা কেজরিওয়ালের সরকার চালানোকে কঠিন করতে পারে। তিনি জনগণকে বোঝাতে পারবেন না যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ভূমির উপর তার নিয়ন্ত্রণ সামান্যই। গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর দিল্লিতি এক তরুণী গণধর্ষণের শিকার হওয়ার পর যেটা বোঝাতে পারেননি শীলা দিক্ষিতও। আবার আম আদমির সমর্থকের অনুগ্রহ চাইলেও বিপাকে পড়তে পারেন তিনি। আবার ব্যবসায়ী বিক্রয় কর ও ভ্যাট সঠিকভাবে দিতে বললে তা কি শুনবে ব্যবসায়ীরা? এসব করতে না পারলে কেজরিওয়াল তার ভিত হারাতে পারেন। ইতিমধ্যে তার সমর্থক অটোরিক্সা চালকেরা সিএনজির দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে ধর্মঘট করার হুমকি দিয়েছে। কিন্তু তিনি এ দাবি পূরণ করলে অন্যান্য ক্ষেত্রে বিশ্বাসযোগ্যতা হারাবেন। তাই মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালের নতুন আর কঠিন চ্যালেঞ্জের দিন শুরু হয়ে গেছে।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'এক এগারোর কুশলিবরা আবার সক্রিয় ও সোচ্চার হয়েছেন।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
2 + 4 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ১৩
ফজর৩:৫৪
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:৩৫
এশা৭:৫৪
সূর্যোদয় - ৫:১৭সূর্যাস্ত - ০৬:৩০
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :