The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৩, ১৬ পৌষ ১৪২০, ২৬ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ শমসের মবিন চৌধুরী আটক | বুধবার সকাল ছয়টা থেকে লাগাতার অবরোধের ডাক ১৮ দলের | কাল ব্যাংক ও পুঁজিবাজার বন্ধ | বিএনপি নেতা শমসের মবিন চৌধুরী আটক | ২ দিনের রিমান্ডে হাফিজ | বিরোধী দলের আন্দোলনের মূল লক্ষ্য মানুষ হত্যা: প্রধানমন্ত্রী | ছাড়া পেলেন সেলিমা হীরা হালিমা | ৩১ ডিসেম্বর রাতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ : ডিএমপি | রাজশাহীতে ৪৪টি তাজা ককটেল ও সাড়ে ৪ কেজি গানপাউডার উদ্ধার | মোহাম্মদপুরে ২০০ হাতবোমাসহ আটক ৩ | প্রাথমিকে পাস ৯৮.৫৮

বিউটি এক্সপার্ট

সৌন্দর্য বরাবরই সকলের কাছে কাঙ্ক্ষিত বিষয়। তাই বিউটি পার্লারের কদর দিন দিন বেড়েই চলছে। এক্ষেত্রে সৌন্দর্যসেবা দিতে এ প্রজন্মের অনেকেই নিজের মেধা এবং সৌন্দর্যচেতনাকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তুলেছেন বিউটি পার্লার, গড়ে তুলেছেন লাভজনক কর্মক্ষেত্র। প্রতিভা ও চর্চার বদৌলতে এদের অনেকেই হয়ে উঠেছেন রূপ বিশেষজ্ঞ। প্রজন্মের কাছে পেশা হিসেবে সৌন্দর্য সংশ্লিষ্ট এই ক্ষেত্রটির গুরুত্ব ও চাহিদা ক্রমেই বাড়ছে। এই প্রেক্ষাপটে তিনজন বিউটি এক্সপার্ট নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন। গ্রন্থনা এবং সম্পাদনা করেছেন রিয়াদ খন্দকার ও সাজেদুল ইসলাম শুভ্র

তানজিমা শারমিন মিউনী

প্রোপাইটর, হেয়ারোবিক্স ব্রাইডাল

আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে নতুন কোনো উদ্যোগ নেওয়ার শুরুতে অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবিলা করতে হয়, পড়তে হয় অনেক বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। তবুও এমন পরিস্থিতিতে যারা হাল ধরে থাকেন, লক্ষ্যে অটুট থাকেন, শুধু তাদের নৌকাই ভিড়ে বিজয় বন্দরে। তেমনি একজন তানজিমা শারমিন মিউনী। তার প্রতিষ্ঠান হেয়ারোবিক্স ব্রাইডালের পরিচয়েই পরিচিত এখন তিনি নগরবাসীর কাছে। বছর কয়েক আগে যাত্রা শুরুর সময়ে কেউ বাঁধ না সাধলেও খুব বেশি ইতিবাচক সহযোগিতাও করেননি। তারপরেও মিউনী চ্যালেঞ্জটি নিয়েছিলেন। সেরা সেবাটা সবার মাঝে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বিশাল পরিসরে শুরু করেছিলেন হেয়ারোবিক্স ব্রাইডালের কার্যক্রম। সেই যাত্রাটা ছিল স্রোতের প্রতিকূলে সাঁতার কাটার মতোই দুর্গম। এতটা পথ হেঁটে এসেও নিজকে সফল উদ্যোক্তা মানতে নারাজ বিনয়ী এই মানুষটা। তার মতে, এ কেবল শুরু। শুরুর সময় থেকেই তার সাথে কাজ করছেন প্রায় ত্রিশজন কর্মী। তারা প্রত্যেকেই এই কাজ করে স্বাবলম্বী, এর মাধ্যমেই চলছে তাদের সংসার। তানজিমা শারমিন মিউনীর আমেরিকাতে কাজের অভিজ্ঞতা ছিল সেলুন নির্ভর বিষয়গুলোতে। সেই ভাবনা থেকেই চাইছিলেন পার্লার করবেন। তখনি তিনি হেয়ারোবিক্স ব্রাইডাল নামে আলাদা একটি প্রতিষ্ঠান দেন। তার কাছে জনতে চেয়েছিলাম, শুরু করার সময় কোন বিষয়গুলোতে তিনি বেশি নজর দিয়েছিলেন? জানালেন, তিনি চেয়েছিলেন তার প্রতিষ্ঠানের সেবার মানটা যেন সব সময়ই আন্তর্জাতিক মানের হয়। আর সেরা কাজ দিয়েই তিনি গ্রাহকের কাছে পৌঁছাতে চেয়েছেন। একজন গ্রাহকের সন্তুষ্টিই তার কাছে সবচেয়ে বড়। তিনি নিজ হাতেই সবসময় মানের বিষয়টা নিশ্চিত করেন। পণ্য ক্রয়ের ব্যাপারেও দেশ এবং দেশের বাইরে তিনিই খবরাখবর রাখেন। নিজের নিবিড় তত্ত্বাবধান আর একনিষ্ঠ পরিশ্রম দিয়েই তিনি সৌন্দর্যসেবার প্রথম সারিতে নিয়ে এসেছেন এই বিউটি কেয়ার সেলুনটিকে। মিউনীর কাছে প্রশ্ন ছিল, নতুনরা এ ধরনের উদ্যোগের শুরুতে কেমন করে এগোবে? তিনি বললেন, 'প্রথমে খুব দরকার নিজের উপর আস্থা রাখা। তা না হলে কোনো কাজেই ভালো করা যায় না। এছাড়া কোনো বিষয় নিয়ে কাজ করতে চাইলে সেই বিষয়ে অনেক বেশি জেনে আসা জরুরি। মনে রাখা দরকার, মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। সুতরাং কেউ যদি তার লক্ষ্যের পথ ধরে অটুট থাকে, কেউ তাকে আটকে রাখতে পারবে না।' প্রজন্মের সাহসী এই উদ্যোক্তার শৈশব-কৈশোর কেটেছে পদ্মাপাড় রাজশাহীতে। কিছুদিন দেশের বাইরেও থাকা হয়েছে তার। মিউনীর বাবা তাজুল ইসলাম মোহাম্মদ ফারুক রাজশাহী থেকে একাধিকবার বিজয়ী সংসদ সদস্য। মা একজন গৃহিণী। দুই ভাইবোন আর বাবা-মায়ের সংসারে খুব আদরের ছিলেন তিনি। আর এখন একমাত্র কন্যা নাফিয়া নাজনীকে নিয়ে কেটে যায় মিউনীর সুখের দিন।

তানজিমা শারমিন

ডাক নাম :মিউনী

জন্মতারিখ ও স্থান :৩০ অক্টোবর, রাজশাহী

মায়ের নাম :নাসিমা ফারুক

বাবার নাম :তাজুল ইসলাম মোহাম্মদ ফারুক

প্রথম স্কুল :দুর্গাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রিয় মানুষ :মা, বাবা

প্রিয় উক্তি :নিজেকে জানো

প্রিয় পোশাক :ওয়েস্টার্ন

অবসর কাটে যেভাবে :মেয়ের সাথে খুনসুটি করে

সাফল্যের সংজ্ঞা :মেধা ও শ্রমের বিনিময়ে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানো।

০০০০

আফরোজা পারভীন

সিইও, রেড বিউটি সেলুন

ছোটবেলা থেকেই তার নিজের সাজগোজ এবং অন্যদের সাজানোর প্রতি খুব ঝোঁক ছিল। ক্লাস ফাইভে থাকতেই পাশের বাসার এক বিয়েতে কনে সাজালেন প্রথমবার। সেই শুরু। এখন তো পুরোদস্তুর বিউটি এক্সপার্ট। শুধুই কী তাই? প্রায়ই কর্মশালা করছেন বিউটিফিকেশনের উপর। তিনি আফরোজা পারভীন। বাবা-মায়ের ইচ্ছাতেই প্রথম ভর্তি হন কম্পিউটার গ্রাফিক্সে। কিন্তু কেন যেন তৃপ্তি পাচ্ছিলেন না। সিদ্ধান্ত নিলেন, সৌন্দর্যচর্চা বিষয়ক কিছু একটা করার। মনের ইচ্ছাশক্তিকে কাজে লাগিয়ে চলে গেলেন দেশের বাইরে। ভারতের ব্যাঙ্গালোরে তিনি মেকআপের উপর কোর্স করে দেশে ফিরে আসেন। দেশে এসে সেলিব্রেটিদের নিয়ে বিউটিফিকেশনের কাজ শুরু করেন। সে ধারায় তিনি আজকের অবস্থানে পৌঁছেছেন। আফরোজা পারভীন বলেন, 'এ পেশায় আসার আগে জানতে হবে পড়াশোনা। কারণ, অক্ষর জ্ঞান না থাকলে এ পেশায় কেউই ভালো করতে পারবে না। যে কেউ এ পেশায় আসতে পারে। হতে পারে এইচএসসি কিংবা গ্র্যাজুয়েশনের পর। পড়াশোনার পাশাপাশিও এর চর্চা করা যেতে পারে। এ পেশায় আগ্রহীদের প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জার্নাল পড়ার অভ্যাস থাকতে হবে। ইন্টারনেট ব্রাউজিংয়ের দক্ষতা থাকতে হবে। আর রাখতে হবে চারপাশের খবরাখবর—কখন, কী ধরনের স্টাইল চালু হচ্ছে বা হতে পারে। সৃজনশীলতা থাকলে এ পেশায় উন্নতি লাভ করা যায় অনেক দ্রুত।' প্রজন্মের মেধাবী এই বিউটি এক্সপার্ট আরও বলেন, 'আমাদের দেশে বিউটিফিকেশনের উপর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা অর্জন করার মতো কোনো প্রতিষ্ঠান এখনও গড়ে ওঠেনি। তবে দেশের বাইরে এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও পড়াশোনা করার সুযোগ রয়েছে। যেমন—ভারতের ব্যাঙ্গালোর, কলকাতা, মুম্বাইসহ ব্যাংকক, সিঙ্গাপুর প্রভৃতি জায়গায় এ বিষয়ে পড়াশোনার সুযোগ রয়েছে। এ ছাড়া ইউরোপের দেশগুলোতেও আছে এ বিষয়ে উন্নত পড়াশোনার সুযোগ।' আফরোজা পারভীন চান সামনের দিনগুলোতে এরকম প্রতিষ্ঠান আমাদের দেশেও গড়ে উঠবে। এ ধরনের উদ্যোগে নিজেকে সামিল রাখতে চান তিনি। আফরোজা পারভীন মনে করেন, দিন যত যাচ্ছে, ক্রমেই বিউটিফিকেশনের গুরুত্ব বাড়ছে। একটা সময় আমাদের দেশে মানুষ বিউটি পার্লারের নাম শুনলেই একটা বিরূপ মনোভাব প্রকাশ করত। মধ্যবিত্ত থেকে উচ্চবিত্ত সবাই এখন তাদের ন্যূনতম সাজগোজের জন্য হলেও বিউটিপার্লারমুখী হচ্ছেন। প্রজন্মের এই বিউটি এক্সপার্টের শৈশব কেটেছে ঢাকাতেই। এখন একমাত্র সন্তান আহিল কামাল আইয়াতই তার পথচলার প্রেরণা, এই অনুপ্রেরণাতেই তার প্রতিদিন সামনের দিকে পথচলা।

আফরোজা পারভীন

ডাকনাম :আফরোজ

জন্মতারিখ ও স্থান :৮ নভেম্বর, ঢাকা

মায়ের নাম :ফাতেমা বেগম

বাবার নাম :রফিক উদ্দিন

প্রিয় মানুষ :আমার ছেলে

প্রিয় উক্তি :তুমি অনেক ভালো মানুষ।

প্রিয় পোশাক :শাড়ি

অবসর কাটে যেভাবে :ঘুরে বেড়িয়ে

সাফল্যের সংজ্ঞা :কাজের মাঝেই সফলতা।

০০০

আমিনা হক

সিইও, নভীন'স অ্যারোমা

নিজেই কিছু করব, এমন আগ্রহটা তার অনেক আগে থেকেই ছিল। আর সেই সাথে যদি অনেক মানুষের কাজের একটা সুযোগ করে দেওয়া যায়, মন্দ হয় না। এমন ভাবনা থেকেই ২০০৩ সালে ইস্কাটনে যাত্রা শুরু করে আমিনা হকের নভীন'স। হাঁটি হাঁটি পা পা করে আজ তার ছয়টি শাখা। শুধু সৌন্দর্যচর্চা নয়, নভীন'সের রয়েছে সেরা উপাদানে তৈরি হারবাল প্রোডাক্ট। দেশ-বিদেশে সুনাম কুড়াচ্ছে আমিনা হকের এই প্রোডাক্টগুলো। সীমিত পরিসরে বসে দেখা সেই স্বপ্নটা আজ সফল প্রায়, ষাট জনের বিশাল দল নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি। শুরুতেই আমিনা হকের কাছে প্রশ্ন ছিল, আজ থেকে দশ বছর আগেই এ ধরনের কাজ করার উত্সাহ কীভাবে পেলেন? তিনি বলেন, 'আমাদের দেশে এ ধরনের কাজের সুযোগ তখনও ছিল। তবে শুরুতে অনেক প্রতিবন্ধকতা এসেছে। সেগুলো আসলে মনে রাখিনি। সবসময় চেয়েছি ইতিবাচক দিকগুলোকে মাথায় রেখে এগিয়ে যেতে।' তিনি আরও জানালেন, সেই সময়ে তার শুভাকাঙ্ক্ষী বন্ধুরা অনেক সাহায্য করেছে। গণমাধ্যমও এগিয়ে এসেছিল। আর এর সবকিছুতেই ছিল পরিবারের অনেক বড় অনুপ্রেরণা। আমিনা হক মনে করেন, সৌন্দর্যসেবা এখন অনেক ভালো একটা অবস্থানে পৌঁছেছে। আর নতুন প্রজন্মের অনেকেই এগিয়ে আসছেন এই পেশায়। তারা খুব ভালো করছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, 'শেখার আগ্রহ থাকলে, আর ধৈর্য ধরে টিকে থাকলেই সম্ভব নতুন কিছু করে সফল হওয়া।' কারণ এই সময়ে বিউটি এক্সপার্ট হিসেবে কাজের অনেক সুযোগ রয়েছে বলে জানান তিনি। তবে একটু সতর্ক থাকা চাই। সবসময়ই নিজেকে আপডেট রাখা চাই, তা না হলে নিজেকে পরিবর্তনের ধারায় খাপ খাইয়ে নেওয়া যায় না। আমিনা হক বলেন, 'পরিবারের সহযোগিতা, শিক্ষা আর নিজের দৃঢ় ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে সব অসাধ্যকে সাধন করতে পারে একজন নারী। আর কাজটাকে শুধু কাজ ভাবলে হবে না, কাজটা নিজের মধ্যে ধারণ করতে হবে।' নিজের সফলতার পেছনের গল্প বলতে গিয়ে তিনি বলেন, 'ছোটবেলায় নিজে নিজে নানাভাবে সাজাতাম। আর ওখান থেকেই সাজের প্রতি একটা ভালোবাসা জন্মায়। একটু বড় হতেই আবার আমার ভাবনায় ঘুরপাক খেতে থাকে এমন কিছু একটা করব, যার মাধ্যমে মানুষকে অনেক বেশি সুন্দর আর সুখী করে তুলতে পারব। আর এই ইচ্ছা পূরণের জন্য সৌন্দর্যসেবা সবচেয়ে আদর্শ কর্মক্ষেত্র।' আমিনা হকের ছেলেবেলা কেটেছে ঢাকাতেই। তার স্বামী ডা. নাজমুল হক ঢাকা মেডিকেল কলেজে কর্মরত। তাদের একমাত্র মেয়ে নাভীন বিনতে হক ইমা এখন স্ট্যান্ডার্ড ফোরে পড়ছে। সর্বোপরি আমিনা হক সবার ভালোবাসা নিয়েই এগিয়ে যেতে চান বহুদূর। তার জন্য শুভ কামনা।

আমিনা হক

ডাকনাম :রুমা

জন্মতারিখ ও স্থান :১৪ ফেব্রুয়ারি, ঢাকা

মায়ের নাম :মাজেদা আমিন

বাবার নাম :মো. রুহুল আমিন

প্রথম স্কুল :নীলক্ষেত উচ্চ বিদ্যালয়

প্রিয় পোশাক :শাড়ি

প্রিয় উক্তি :বরিষ ধারার মাঝে শান্তিরও বারি।

প্রিয় মানুষ :আমার শুভাকাঙ্ক্ষী সবাই

অবসর কাটে যেভাবে :নভীন'স নিয়ে ভেবে

সাফল্যের সংজ্ঞা :চেষ্টা করে যাও, সফলতা আসবে।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'এক এগারোর কুশলিবরা আবার সক্রিয় ও সোচ্চার হয়েছেন।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
9 + 2 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ১৩
ফজর৩:৫৪
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:৩৫
এশা৭:৫৪
সূর্যোদয় - ৫:১৭সূর্যাস্ত - ০৬:৩০
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :