The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৩, ১৬ পৌষ ১৪২০, ২৬ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ শমসের মবিন চৌধুরী আটক | বুধবার সকাল ছয়টা থেকে লাগাতার অবরোধের ডাক ১৮ দলের | কাল ব্যাংক ও পুঁজিবাজার বন্ধ | বিএনপি নেতা শমসের মবিন চৌধুরী আটক | ২ দিনের রিমান্ডে হাফিজ | বিরোধী দলের আন্দোলনের মূল লক্ষ্য মানুষ হত্যা: প্রধানমন্ত্রী | ছাড়া পেলেন সেলিমা হীরা হালিমা | ৩১ ডিসেম্বর রাতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ : ডিএমপি | রাজশাহীতে ৪৪টি তাজা ককটেল ও সাড়ে ৪ কেজি গানপাউডার উদ্ধার | মোহাম্মদপুরে ২০০ হাতবোমাসহ আটক ৩ | প্রাথমিকে পাস ৯৮.৫৮

ক্যামেরার ফ্রেমে ইতিহাস ধারক

যার তোলা একেকটি ছবি জন্ম দিয়েছে একেকটি ইতিহাস। বাংলাদেশের জন্মের ঐতিহাসিক গল্পগুলো পরবর্তী প্রজন্মের জন্য যিনি বন্দি করেছেন তার ক্যামেরার ফ্রেমে তিনি কিংবদন্তি আলোকচিত্র-সাংবাদিক আফতাব আহমেদ। একাত্তরের পূর্ববর্তী এবং পরবর্তী নানা ঘটনাবহুল সময়ের অগ্নিসাক্ষী একুশে পদকপ্রাপ্ত দৈনিক ইত্তেফাকের প্রবীণ এই আলোকচিত্র সাংবাদিককে নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজনে লিখেছেন রিয়াদ খন্দকার

বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর জাতীয় দৈনিক ইত্তেফাকে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার ডাটিয়া পাড়ার এক জেলেপাড়ার বস্ত্রহীন 'বাসন্তী' মাছধরার জাল পড়ে লজ্জা ঢাকা ছবি ছাপা হয়েছিল। মাছধরার জাল পড়া সেই বাসন্তীর পাশে তার বোন দূর্গতী। বিশ্ব বিবেককে নাড়িয়ে দেওয়া সেই দুর্লভচিত্র যার ক্যামেরায় ধরা পড়েছিল তিনি হচ্ছে প্রজন্মের কিংবদন্তি ফটোগ্রাফার আফতাব আহমেদ। এমনই অনেক ঐতিহাসিক ছবি তিনি তার ক্যামেরার ফ্রেমে ধরে রেখেছিলেন পরবর্তী প্রজন্মের জন্য। তার তোলা একাত্তর এবং তার পরবর্তী ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটগুলোর ছবি নতুন প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করে দেশ ও মাতৃকার সেবায় নিজেদের নিয়োজিত করতে।

আফতাব আহমদ বাংলাদেশের রাজনীতির মোড় পাল্টে দেওয়া বিভিন্ন ঐতিহাসিক মুহূর্তেরও সাক্ষী। ১৯৬২ সালে তিনি দৈনিক ইত্তেফাকে ফটোসাংবাদিক হিসেবে যোগ দেন। এরপর থেকে তার ক্যামেরায় স্বাধিকার আন্দোলন, অসহযোগ আন্দোলন, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন সময়ে তার তোলা ছবি ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বরে পাকিস্তানি বাহিনীর আত্মসমর্পণ ছাড়াও ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান হত্যাকাণ্ড, ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান এবং দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের বহু অমূল্য ছবি তোলেন আফতাব আহমদ। দৈনিক ইত্তেফাকেই তিনি তার পুরোটা কর্মজীবন কাটিয়েছেন। ১৯৭৫ সালে খালেদ মোশাররফকে হত্যার পর তিনি গোপনে ক্যান্টনমেন্টে ঢুকে ছবি তুলেছেন। এজন্য তখন সামরিকবাহিনীর সদস্যরা তাকে আটক করে রেখেছিল। এমনকি বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তিনিই ৩২ নম্বরের বাড়িতে গিয়ে তার লাশের ছবি তুলেছিলেন। এমনি অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা তিনি ক্যামেরাবন্দি করেছেন। তবে আফতাব আহমেদ সবচেয়ে বেশি আলোচিত ছিলেন জাল পরা বাসন্তীর ছবির কারণে। বাসন্তীর সেই ছবি বিশ্বজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল।

বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি চাকরি করার পর ১৯৬৪ সালে দৈনিক ইত্তেফাকে ফটোসাংবাদিক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। টানা কাজ করার পর দৈনিক ইত্তেফাক থেকে ২০০৬ সালে স্বেচ্ছায় অবসর নেন তিনি। ওই বছরই একুশে পদক পান আফতাব আহমেদ। ১৯৩৫ সালে রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া থানার মহিপুরে জন্মগ্রহণ করেন আফতাব আহমেদ। তিনি ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক মহাসচিব ও জাতীয় প্রেসক্লাবের স্থায়ী সদস্য ছিলেন। এ ছাড়া তার লেখা উল্লেখযোগ্য গ্রন্থগুলো হচ্ছে—'স্বাধীনতা সংগ্রামে বাঙালি', 'বাংলার মুক্তির সংগ্রাম সিরাজুদৌল্লা থেকে শেখ মুজিব', 'আমরা তোমাদের ভুলব না'।

তার ঐতিহাসিক ক্লিক

 ১৯৭০-এর ডিসেম্বরে সাধারণ নির্বাচনের প্রাক্কালে জনমত সৃষ্টির উদ্দেশ্যে উল্কার মতো ছুটে চলা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি।

 ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ ঢাকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ক্ষমতা হস্তান্তর নিয়ে আলোচনারত পাকিস্তান পিপলস পার্টি প্রধান জেডএ ভুট্টোর ছবি।

 কাগমারী সম্মেলনে মওলানা ভাসানী, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, বাণিজ্য ও দুর্নীতি দমনমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান এবং দৈনিক ইত্তেফাকের প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার ছবি।

 ঢাকার পুরানা পল্টন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজুদ্দিন আহমেদ, খন্দকার মোশতাক আহমেদ, এম কামরুজ্জামান প্রমুখের সত্তরের নির্বাচনোত্তর বিরাট সাফল্যে আনন্দমুখর দুর্লভ মুহূর্তের ছবি।

 মেহেরপুর মহকুমার বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে ১৭ এপ্রিল ১৯৭১ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হওয়ার পর নেতৃবৃন্দের ছবি।

 বাহাত্তরের গোড়ার দিকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একান্ত নিজস্ব উদ্যোগে বিদ্রোহী কবি নজরুলকে কলকাতা থেকে ঢাকায় নিয়ে আসার ব্যবস্থা করেন। শিল্পী ফিরোজা বেগম ও হাস্যোজ্জ্বল কবির একটি দুর্লভ মুহূর্তের ছবি।

 ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের অধিনায়ক জেনারেল অরোরা ও পাকবাহিনীর অধিনায়ক জেনারেল নিয়াজী বিকাল ৪টায় সদলবলে রেসকোর্স ময়দানে পৌঁছেন। স্বাক্ষরদানের আগে নিয়াজীর আত্মসমর্পণ দলিল পড়ে দেখার ছবি ।

 ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বিকালে পাক হানাদার বাহিনীর ট্যাংকের গোলায় বিধ্বস্ত ও ভস্মীভূত হওয়া বহুল প্রচারিত সংবাদপত্র দৈনিক ইত্তেফাক ভবনের ছবি।

এ ছাড়া রয়েছে তার আরও অনেক ছবি যা একাত্তরের সাক্ষী হয়ে আছে এই প্রজন্মের কাছে।

গত ২৫ ডিসেম্বর রোজ বুধবার রাজধানীর রামপুরায় নিজ বাসায় কিংবদন্তি ফটোসাংবাদিক আফতাব আহমেদ খুন হন। পুলিশ তার হাত-পা ও মুখবাঁধা লাশ উদ্ধার করে। দুই সন্তানের জনক আফতাব আহমেদ চারতলা ওই বাসার তৃতীয় তলায় একাই থাকতেন। তিন বছর আগে তার স্ত্রী মমতাজ আহমেদ মারা যান। তার ছেলে মনোয়ার আহমেদ সাগর যশোরে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। আর একমাত্র মেয়ে আফরোজা আহমেদ বর্ণা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক হিসেবে কর্মরত।

আফতাব আহমেদ তার মেধাবী ফটোগ্রাফির মাধ্যমে স্বাধীনতা ভোগকারী আমাদের এই প্রজন্মকে জানিয়েছেন কষ্টার্জিত স্বাধীনতার গল্প। রেখে গিয়েছেন দেশের ঐতিহাসিক প্রমাণ। তাই এই প্রজন্ম তাকে স্মরণ করে গভীর শ্রদ্ধায়।

font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'এক এগারোর কুশলিবরা আবার সক্রিয় ও সোচ্চার হয়েছেন।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
4 + 7 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
মে - ৮
ফজর৩:৫৭
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:৩৩
এশা৭:৫২
সূর্যোদয় - ৫:১৯সূর্যাস্ত - ০৬:২৮
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :