The Daily Ittefaq
ঢাকা, সোমবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১২, ১৭ পৌষ ১৪১৯, ১৭ সফর ১৪৩৪
সর্বশেষ সংবাদ রাজধানীতে বর্ষবরণে নাশকতা ঠেকাতে মাঠে নেমেছে ৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত | নতুন বছরে খালেদা জিয়ার শুভেচ্ছা | নতুন বছরে আন্দোলনে ভেসে যাবে সরকার: তরিকুল ইসলাম | দক্ষিণ এশিয়ায় সাংবাদিক হত্যার শীর্ষে পাকিস্তান | ঢাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন নীল ৮, সাদা ৭ পদে জয়ী | জোর করে ক্ষমতায় থাকতে চাইলে ৭৫ এর মতো পরিণতি হবে: খন্দকার মোশাররফ | দুর্নীতিবাজদের ভোট দেবেন না : দুদক চেয়ারম্যান | ট্রেনের ধাক্কায় ৫ হাতির মৃত্যু | এখন বাবা-মাকে বই নিয়ে চিন্তা করতে হয় না : প্রধানমন্ত্রী | আপাতত পাকিস্তান সফর করছে না বাংলাদেশ ক্রিকেট দল | মিরপুরে ঢাবি অধ্যাপকের স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যা | তাজরীনে আগুন পরিকল্পিত: বিজিএমইএ | ১৩ জানুয়ারি থেকে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার নিবন্ধন | সমস্যা সমাধানে আলোচনার বিকল্প নেই : সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম

অভিনব ঘটনাই বটে!

বাংলাদেশে নিত্যদিনই কোন না কোন অভিনব ঘটনা ঘটে! এ সকল অভিনব ঘটনা যদি কালে-ভদ্রে ঘটিত তাহা হইলেও লোকেরা মনকে খানিক প্রবোধ দিতে পারিত। কিন্তু এখানে ঘটনার অভিনবত্ব এমনই যে, উহা সংশ্লিষ্ট মহলকে বিচলিত না করিয়া পারে না। গত শনিবার এমনই একটি ঘটনার কথা প্রকাশিত হইয়াছে স্থানীয় একটি দৈনিকে। ঘটনার বিবরণে প্রকাশ, প্রভাবশালী ব্যক্তিরা পাবনার ফরিদপুরে সরকার কর্তৃক অনুমোদনপ্রাপ্ত একটি বেসরকারি বিদ্যালয় অবৈধভাবে দখল করিয়া লইয়াছে। শুধু দখল করিয়াই তাহারা ক্ষান্ত হয় নাই; বিদ্যালয়টিকে বন্ধ করিয়া দিয়া উহাকে গরুর গোয়ালে পরিণত করিয়াছে। অর্থাত্, রাতের আঁধারে বিদ্যালয়টি দখলের পর উন্নত জাতের এক ডজন গরু সেখানে বাঁধিয়া রাখিয়াছে। বিদ্যায়তনকে গরুর গোয়ালে পরিণত করিবার ঘটনা সম্ভবত: বিশ্বে ইহাই প্রথম। সুতরাং, এ জাতীয় অভিনবত্বের যাহারা প্রতিষ্ঠাতা, প্রণেতা বা উদ্যোক্তা তাহাদের নাম গিনিজ বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থান পাইলে আশ্চর্যান্বিত হওয়ার কিছু থাকিবে না নিশ্চয়ই! ২০০৯ সালে সংশ্লিষ্ট এলাকার তিনজন উদ্যমী যুবক জমির মালিকের নিকট হইতে ২০ শতক জমি ভাড়া লইয়া যে বিদ্যালয়ের জন্ম দিয়াছিল উহা তাহাদের নিষ্ঠা ও একাগ্রতায় অল্পদিনে অত্যন্ত সুনাম অর্জনে সমর্থ হয়। দশজন শিক্ষকের নেতৃত্বে প্রায় তিনশত ছাত্র-ছাত্রী ঐ বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত। এই সব শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত্ সম্পর্কে সামান্যতম উত্কণ্ঠা বা চিন্তা-ভাবনা থাকিলে এ ধরনের বিবেকহীন কান্ড জমির মালিকেরা নিশ্চয়ই করিতে পারিতো না। কোথায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর কোথায় গরুর গোয়াল! মানুষ্য তৈরির পথ পরিহার করিয়া গরু তৈরির এই উদ্ভট পন্থা বিবেকসম্পন্ন মানুষ মাত্রকেই ক্ষুব্ধ না করিয়া পারিবে না। তাই তাহাদের এই আচরণে সংশ্লিষ্ট এলাকায় ক্ষোভ দেখা দিয়াছে বৈকি!

অবশ্য, জমিজিরাত লইয়া নানাবিধ কাড়াকাড়ি-মারামারি আমাদের সমাজেতো লাগিয়াই রহিয়াছে। একের জমি বাহুবলে জবরদখল করিবার এক উদ্বেগজনক সংস্কৃতি চালু হইয়াছে এই দেশে। এ ক্ষেত্রে সরকারি জমি হইলেতো কোন কথাই নাই। খাস জমি অবৈধ উপায়ে দখল কিংবা জাল কাগজপত্র বা দলিলপত্র তৈরি করিয়া জমি বেদখলের মোচ্ছব চলিতে দেখা যায় তাই বিভিন্ন স্থানে। এই ধরনের হীন দুষ্কর্মে সরকারিভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের নানাবিধ ইন্ধনের কথা সকলেরই জানা। রক্ষকই অনেকাংশে ভক্ষক সাজিয়া সরকারি-বেসরকারি জমি বা দালান-কোঠা আত্মসাত্ করিতেছে। ফলে মানুষের ভোগান্তির সীমা-পরিসীমা থাকিতেছে না। জমি বা ফসলকে কেন্দ্র করিয়া খুনাখুনি, উত্খাত বা বাস্তচ্যুতি, হামলা-মামলা লাগিয়াই রহিয়াছে এই দেশে।

এমতাবস্থায়, এই ধরনের অপকর্ম রোধ করিতে দেশে আইন থাকিলেও কর্তার ইচ্ছায় উহার প্রয়োগ দুঃসাধ্য হইয়া পড়ে। জমি আত্মসাত্কারীরা ছলে-বলে-কলে-কৌশলে তাহাদের কর্তৃত্ব শুধু বজায়ই রাখে না বরং পর্যায়ক্রমে এলাকায় দোর্দন্ড প্রতাপে সকলকে রক্তচক্ষু দেখাইবার লাইসেন্সও যেন লাভ করে। যুগে যুগে এই অবস্থাই চলিতেছে। সরকারি জমি বরাদ্দে নানা প্রকার অসাধুতা, বৈধ জমির অধিকার লাভ করিতে গিয়া সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হাতে নানাভাবে লাঞ্ছিত-অপমানিত হওয়ার ঘটনা ইত্যাদি বিভিন্ন প্রকার দুর্ভোগ ডাকিয়া আনিতেছে। ইহার প্রতিকার প্রয়োজন। আইনের কঠোর প্রয়োগ ভিন্ন এই জাতীয় দুষ্কৃতির প্রতিবিধান অসম্ভব। মানুষের লোভ-লালসা যেহেতু সুযোগ পাইলেই সকল সীমা ছাড়াইয়া যায় সেহেতু অংকুরেই ইহার বিনাশ করিতে না পারিলে জমি আত্মসাত্ বা জবর-দখলের ঘটনা ভয়াবহ রূপ লইবে নিশ্চয়ই। আজ স্কুলঘরকে গোয়াল বানানো হইতেছে। আগামীতে তাই বিশ্ববিদ্যালয় গোচারণভূমি বা ভাগাড়ে পরিণত হওয়া বিচিত্র নহে! সুতরাং, সাধু সাবধান!

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দলীয় সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। সাবেক উপদেষ্টা আকবর আলি খানের এই আশঙ্কা যথার্থ বলে মনে করেন?
9 + 6 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
সেপ্টেম্বর - ২০
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫৩
আসর৪:১৬
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :