The Daily Ittefaq
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৩, ১৭ পৌষ ১৪২০, ২৭ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা | ৩ জানুয়ারি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

'ক্লান্ত' পুলিশ, নাশকতারোধে নেই তল্লাশি অভিযান

রাজশাহীতে হামলাকারীরা বহাল তবিয়তে

আনিসুজ্জামান, রাজশাহী অফিস

রাজশাহীতে সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধে এক বছর ধরে পুলিশের বড় ধরনের কোনো তল্লাশি অভিযান নেই। উল্টো হরতাল-অবরোধে ডিউটি করে করে 'ক্লান্ত' পুলিশ এখন আত্মরক্ষায় ব্যস্ত। কোথায় কারা ককটেল, পেট্রোল বোমা বানাচ্ছে, এসব বিষয়েও পুলিশের কোন নজরদারি নেই। এ জন্য দফায় দফায় পুলিশ আক্রান্ত হলেও সংঘবদ্ধ দুষ্কতিকারী ও জামায়াত-শিবিরের ক্যাডারদের প্রতিরোধ অথবা গ্রেফতার করা যাচ্ছে না। হামলা করেও বহাল তবিয়তে রয়ে যাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। তবে গত ২৬ ডিসেম্বর দুপুরে পুলিশের গাড়িতে বোমা হামলা চালিয়ে কনস্টেবল সিদ্ধার্থ চন্দ্র সরকারকে হত্যা এবং অপর ৮ কনস্টেবলকে গুরুতর জখম করার পর রাতে পুলিশ নগরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৮ জনকে আটক করেছে। নগরীর কয়েকটি নির্দিষ্ট এলাকা থেকে পুলিশের উপর ধারাবাহিকভাবে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িতরা কিভাবে-কোথায় পালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ তাদের কোনো হদিস করতে পারছে না।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, টানা অবরোধ, হরতালের নাশকতা থেকে রেললাইন রক্ষা, পাহারা দিয়ে তেলের ট্যাঙ্কি বিদ্যুত্ কেন্দ্রে নিরাপদে পৌঁছে দেয়া, রাষ্ট্রের অতি গুরুত্বপূর্ণ (কেপিআই-কী পয়েন্ট ইনস্টলেশন) স্থাপনায় ও নির্বাচন কার্যালয় পাহারা, বিদেশি পর্যটকদের পৌঁছে দেয়া, এমন কি বরযাত্রীর গাড়ি বহরেও এখন পুলিশী নিরাপত্তা দিতে হচ্ছে। এর বাইরে রয়েছে প্রতিদিন ভোর ৫টা থেকে দুপুর আড়াইটা এবং আবার আড়াইটা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত পালাক্রমের 'ডিউটি'। এসব করেই পুলিশ ক্লান্ত হয়ে পড়ছে। তাই দিনের বেলায় অনেক পুলিশ সদস্যকে পুলিশ ভ্যানের ওপরে বসে ঘুমাতে দেখা যায়।

এক হিসেবে দেখা গেছে, গত এক বছরে রাজশাহী নগরীতে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত শিবিরের ছোট-বড় শতাধিক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ গত ৯ ডিসেম্বর নগরীর বিনোদপুরে বন্দুক কেড়ে নিয়ে শিবিরকর্মীরা মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে পিটিয়ে পা ভেঙ্গে দেয়। হামলায় আরো দুই পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হন। এর আগে মতিহার জোনের তত্কালীন সহকারী কমিশনার আবুল হাসনাতই আহত হয়েছেন চারবার। রাজারহাতা এলাকায় আহত হন সহকারী কমিশনার সোহেল মাহমুদ। বিভিন্ন সময় কনস্টেবল আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক। এর মধ্যে গত বছর ৬ ডিসেম্বর রাজশাহী বেতার সম্প্রচার কেন্দ্রের মধ্যে কুপিয়ে জখম করা হয় কনস্টেবল শরীফুল ইসলামকে, গত ৩১ মার্চ বোমায় কব্জি উড়ে যায় উপ-পরিদর্শক মকবুল হোসেনের এবং পরের দিন নগরের শালবাগান এলাকায় হামলায় আহত হন উপ-পরিদর্শক (সশস্ত্র) জাহাঙ্গীর আলম। এসব হামলার ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। পরে অভিযান চালিয়ে যাদের গ্রেফতার করছে, তাদের সিংহভাগকেই আবার ছেড়ে দিতে হচ্ছে। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, যারা হামলা চালাচ্ছে পুলিশ তাদের নাগাল পাচ্ছে না। শুধু সাধারণ মানুষকে আটক করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, সামনাসামনি ওদের গ্রেফতার করতে যাওয়া ঝুঁকিপূর্ণ। এ জন্য পুলিশ আত্মরক্ষার অবস্থান থেকে তাদের মোকাবিলা করছে। মানুষের জানমালের যাতে তারা ক্ষয়ক্ষতি করতে না পারে সেই দিকে খেয়াল করে ওদের মোকাবিলা করা হয়।

রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন বলেন, শিবিরের বহিরাগত কর্মীরাই মূলত এসব হামলায় নেতৃত্ব দেয়। তারা যে এলাকায় হামলা চালায়, সেই এলাকায় থাকে না। অন্য এলাকার ছাত্রাবাসে থাকে। বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকে। মালিক হয়তো নিচতলায় থাকে। শিবির থাকে দোতলায়। এসব কারণে তাদের শনাক্ত করা সম্ভব হয় না।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (সদর) আবু সালেহ মো. গোলাম মাহমুদ বলেন, তল্লাশি অভিযান চালানো হয় না, এমন কথা ঠিক নয়। কিন্তু আগের মতো বড় অভিযান চালানো সম্ভব হয়নি। আগে যে কোনো সময় ৫০ প্লাটুন পুলিশ মাঠে নামাতে পারতেন। এখন ১০ প্লাটুনের বেশি নামাতে পারছেন না। তবে সম্প্রতি বিজিবি, ব্যাব ও পুলিশ যৌথ অভিযান শুরু করেছে। আশা করছি এবারের অভিযান অব্যাহত থাকলে দুষ্কৃতকারী ও জামায়াত-শিবিরের ক্যাডারদের মূলোত্পাটন সম্ভব হবে।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'বিরোধীদল সরকারের বিরুদ্ধে নয়, জনগণের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
9 + 9 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
জুন - ২৭
ফজর৩:৪৫
যোহর১২:০২
আসর৪:৪২
মাগরিব৬:৫২
এশা৮:১৭
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৪৭
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :