The Daily Ittefaq
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৩, ১৭ পৌষ ১৪২০, ২৭ সফর ১৪৩৫
সর্বশেষ সংবাদ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা | ৩ জানুয়ারি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছোটদের ঝলমলে সাফল্য

প্রাথমিকে পাসের হার ৯৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ ইবতেদায়িতে ৯৫ দশমিক ৮০ শতাংশ

নিজামুল হক

রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে বছরের বিভিন্ন সময়ে ঠিকমতো অনুষ্ঠিত হতে পারেনি তাদের ক্লাস। বছরের শেষ দিকে এসে নির্ধারিত সময়ের ক্লাস থেমে থেমে বন্ধ থাকে উপর্যুপরি অনেক দিন। এরপর যখন বহু কাঙ্ক্ষিত পরীক্ষা শুরু হলো, তখন এই কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরাই সবচেয়ে বেশি খেসরাত দিল রাজনৈতিক অস্থিরতার—দফায় দফায় পেছানো হলো পরীক্ষার তারিখ। বার বার মন ভাঙলো ছোট্ট শিশুদের, বার বার ছেদ পড়লো উদ্যম-উত্তেজনায়। জীবনের প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা এভাবেই তাদের দিতে হলো অবরোধ আর হরতালের ফাঁকে ফাঁকে। আর সেই পরীক্ষায় অর্থাত্ প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে যদি শতকরা ৯৮ দশমিক ৫৮ ভাগ এবং মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের সমমানের ইবতেদায়িতে ৯৫ দশমিক ৮০ ভাগ শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়, তখন তাকে ঝলমলে সাফল্য না বলে উপায় কি। সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, অভিভাবকরা তাই এই সাফল্যকে শুধু ঝলমলেই বললেন না, বললেন এই সাফল্য স্মরণীয় সাফল্য, এই সাফল্য ঈর্ষণীয় সাফল্য।

গতকাল সোমবার সারাদেশে একযোগে প্রকাশিত হয় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফল। এ বছর পঞ্চমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো এই সমাপনী পরীক্ষা। তৃতীয়বারের মতো জিপিএ (গ্রেড পয়েন্ট অ্যাভারেজ)-এর ভিত্তিতে প্রকাশ করা হলো ফল। ২০০৯ সালে প্রথমবারের মতো প্রাথমিক স্তরের শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত প্রতিবছর পাসের হার বেড়েই চলছে।

গতবার প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে পাসের হার ছিল ৯৭ দশমিক ৩৫ এবং ইবতেদায়িতে ছিল ৯২ দশমিক ৪৫ শতাংশ। এবার প্রাথমিকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার ৯৬১ জন। গতবার এ সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৩০ হাজার ২২০। এবার ইবতেদায়িতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭ হাজার ২৫৩ জন।

গতবারের মতো এবারও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে দেশের সাতটি বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ পাসের হার বরিশালে—৯৯ দশমিক ২৫ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন পাসের হার সিলেট বিভাগে—৯৬ দশমিক ৫৪ শতাংশ। গতবার বরিশালে পাসের হার ছিল ৯৯ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন পাসের হার সিলেট বিভাগে ৯৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ।

গতকাল দুপুর একটায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফল ঘোষণা করেন। এর আগে সকালে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি পরীক্ষার ফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা অনিশ্চয়তা, আতঙ্ক, মানসিক চাপ ও ঝুঁকির মধ্যে পরীক্ষা দিয়েছে। এবার দেশের ৮৭ হাজার ১৮৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৬ লাখ ৩৯ হাজার ৪৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত হয়। পরীক্ষায় অংশ নেয় ২৫ লাখ ১৯ হাজার ৩২ জন। প্রাথমিকে পাস করে ২৪ লাখ ৮৩ হাজার ১৪২ জন।

এছাড়া ইবতেদায়ীতে (সংযুক্ত ইবতেদায়ি ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি) ১১ হাজার ৭৭১টি মাদ্রাসার ৫ম শ্রেণীর ৩ লাখ ২২ হাজার ১৯২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত হয়। পরীক্ষায় অংশ নেয় ২ লাখ ৭৩ হাজার ৯৭৯ জন। ইবতেদায়ীতে পাস করে ২ লাখ ৬২ হাজার ৪৭২ জন।

গতকাল ফল প্রকাশের পর পরই স্কুলগুলোতে শুরু হয় সাফল্য উদযাপন—ক্ষুদে বিজয়ীদের হৈ-হুল্লোর, বাঁধভাঙা আনন্দে মাতামাতি। স্কুল প্রাঙ্গণে সেই আনন্দের অংশীদার হন অভিভাবক ও শিক্ষকরা। নামি-দামি স্কুলগুলোতে আনন্দের মাত্রা ছিল আরো বেশি। ড্রামের তালে তালে নেচে-গেয়ে শিশুরা আনন্দ-উল্লাস করে।

রাজনৈতিক প্রতিকূল অবস্থার কারণে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলে না গিয়ে মোবাইল ফোন ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফল সংগ্রহ করে।

প্রাথমিকে গতবারের মতো এবারও দেশসেরা মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয়। নিবন্ধিত ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা, পাসের হার, জিপিএ-৫ প্রাপ্তির হার এবং অনুপস্থিত ছাত্র-ছাত্রীদের সংখ্যার ভিত্তিতে প্রাথমিকে দেশের সেরা ২০টি স্কুলের তালিকা করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। এই তালিকায় সেরাদের সেরা মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় পেয়েছে ৬৮ দশমিক ৫৩৪৫ পয়েন্ট। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ন্যাশনাল আইডিয়াল স্কুল, এর পরে রয়েছে মাইলস্টোন প্রিপারেটরি কেজি স্কুল। ৬৪ জেলার মধ্যে সর্বোচ্চ পাসের হারে এগিয়ে রয়েছে যশোর ও লালমনিরহাট। ওই দুই জেলায় পাসের হার শতভাগ। পাসের দিক দিয়ে সিলেট জেলার অবস্থান সর্বনিম্নে (৯৫ দশমিক ৭৭ শতাংশ)। ৫০৬ উপজেলা-থানার মধ্যে ৩৬ উপজেলায় শতভাগ পাস করেছে। উপজেলার মধ্যে বান্দরবানের আলীকদমে পাসের হার সর্বনিম্ন (৯০ দশমিক ০৫ শতাংশ)।

প্রাথমিকে ১২ ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে পাসের হারে এগিয়ে আছে পিটিআই সংলগ্ন পরীক্ষণ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ে পাসের হার ৯৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ। দ্বিতীয় ব্র্যাক পরিচালিত বিদ্যালয়। এ প্রতিষ্ঠানে পাসের হার ৯৯ দশমিক ৮৩ শতাংশ। পাসের হারে সর্বনিম্নে রয়েছে অন্যান্য এনজিও পরিচালিত বিদ্যালয়। সেগুলোতে পাসের হার ৯৫ দশমিক ৯১ শতাংশ। এবার শতভাগ পাস করেছে ৭৩ হাজার ৬টি স্কুল। গতবার এ সংখ্যা ছিল ৭২ হাজার ২২৭। পাশাপাশি শূন্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৪৬। গতবার এ সংখ্যা ছিল ৭১০।

ঢাকা বিভাগ: এ বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ৮ লাখ ৩৯ হাজার ৫১০ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় ৭ লাখ ৯৫ হাজার ৬৭১ জন। গড় পাসের হার ৯৮ দশমিক ৭০ ভাগ। জিপিএ ৫ পেয়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ৬৪৬ জন।

চট্টগ্রাম বিভাগ: এ বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ৫ লাখ ৪৯ হাজার ৮৬৭ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় ৫ লাখ ২৫ হাজার ৬৮৩ জন। গড় পাসের হার ৯৮ দশমিক ৭৯ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৮ হাজার ৪৪১ জন।

রাজশাহী বিভাগ: এ বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ৩ লাখ ১৮ হাজার ৪৬৮ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় ৩ লাখ ৫ হাজার ১১৮ জন। গড় পাসের হার ৯৮ দশমিক ৫৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬ হাজার ৬৬৩ জন।

খুলনা বিভাগ: এ বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৭৪ হাজার ২৮১ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় মোট ২ লাখ ৬৮ হাজার ১২২ জন। গড় পাসের হার ৯৯ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৩ হাজার ৫৯৪ জন।

বরিশাল বিভাগ: বরিশাল বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ৬২ হাজার ৮৯৯ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় ১ লাখ ৫৬ হাজার ১৬৬ জন। গড় পাসের হার ৯৯ দশমিক ২৫ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১ হাজার ৭৫৯ জন।

সিলেট বিভাগ: সিলেট বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ৮৬ হাজার ৪১৫ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় মোট ১ লাখ ৭৬ হাজার ৭৫৬ জন। গড় পাসের হার ৯৬ দশমিক ৫৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ১৯৬ জন।

রংপুর বিভাগ: রংপুর বিভাগের পরীক্ষার জন্য তালিকাভুক্ত শিক্ষার্থী ছিল ৩ লাখ ৭ হাজার ৬০৫ জন। পরীক্ষায় অংশ নেয় মোট ২ লাখ ৯০ হাজার ৪৫২ জন। গড় পাসের হার ৯৮ দশমিক ৩৮ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৮ হাজার ৬৬২ জন।

এই পাতার আরো খবর -
font
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'বিরোধীদল সরকারের বিরুদ্ধে নয়, জনগণের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে।' আপনিও কি তাই মনে করেন?
2 + 6 =  
ফলাফল
আজকের নামাজের সময়সূচী
আগষ্ট - ২১
ফজর৪:১৭
যোহর১২:০২
আসর৪:৩৬
মাগরিব৬:৩০
এশা৭:৪৬
সূর্যোদয় - ৫:৩৬সূর্যাস্ত - ০৬:২৫
archive
বছর : মাস :
The Daily Ittefaq
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: তাসমিমা হোসেন। উপদেষ্টা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে তারিন হোসেন কর্তৃক ৪০, কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ থেকে প্রকাশিত ও মুহিবুল আহসান কর্তৃক নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস, কাজলারপাড়, ডেমরা রোড, ঢাকা-১২৩২ থেকে মুদ্রিত। কাওরান বাজার ফোন: পিএবিএক্স: ৭১২২৬৬০, ৮১৮৯৯৬০, বার্ত ফ্যাক্স: ৮১৮৯০১৭-৮, মফস্বল ফ্যাক্স : ৮১৮৯৩৮৪, বিজ্ঞাপন-ফোন: ৮১৮৯৯৭১, ৭১২২৬৬৪ ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭২, e-mail: [email protected], সার্কুলেশন ফ্যাক্স: ৮১৮৯৯৭৩। www.ittefaq.com.bd, e-mail: [email protected]
Copyright The Daily Ittefaq © 2014 Developed By :